ক্যারিয়ার হিসেবে ভিডিও এডিটিং

রবিবার, ১৯ জানুয়ারি ২০২০

সৃজনশীল কাজ দিয়ে সিনেমা, নাটক, বিজ্ঞাপনকে বহুগুণ আকর্ষণীয় করে তুলতে পারেন। বর্তমানে হলিউডের প্রায় প্রতিটি চলচ্চিত্রই অ্যানিমেশনের হাত ধরে দর্শকের দৃষ্টিনন্দন হয়ে ওঠে। তাই তো অ্যানিমেশন মাস্টারদের কারিশমাতে ভর করা হলিউডের সঙ্গে ঢালিউডের এতটা ফারাক! বাংলাদেশে এখনো অ্যানিমেশনের তেমন কোনো ছোঁয়া পড়েনি, হাতেগোনা কিছু কাজ হয়েছে মাত্র। দেশে যে পরিমাণ সৃজনশীল জনবল রয়েছে তাদের আধুনিক একটি কর্মক্ষেত্র তৈরি করে দিতে পারলে অচিরেই এ দেশের নির্মাতারা সাধারণ জনগণকে হলিউডের মতো চলচ্চিত্র উপহার দিতে পারবেন বলে আশাবাদী। পড়াশোনা ও অন্য পেশা থেকেও ভিডিও এডিটিং পেশায় নিযুক্ত হয়ে আপনি আয়ের উৎস বাড়াতে পারেন। রীতিমতো অনেকে আগ্রহী হয়ে উঠেছে। এ ছাড়াও নিজস্ব ব্যবসা বা ফ্রিল্যান্সার হিসেবেও কাজ করতে পারেন। সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট ফার্ম এবং ওয়েবসাইট তো বসেই আছে আপনার প্রতীক্ষায়!

বাংলাদেশে এখন প্রায় ২৫-২৬টি টিভি চ্যানেল রয়েছে। সবগুলো টিভি চ্যানেলেই প্রয়োজন দক্ষ ভিডিও এডিটরের। টিভি চ্যানেলগুলোতে সংবাদের পাশাপাশি অসংখ্য অনুষ্ঠান, নাটক, ম্যাগাজিন, বিজ্ঞাপন প্রচারিত হয়। সব অনুষ্ঠান টিভি চ্যানেল ছাড়াও প্রযোজনা সংস্থাও নির্মাণ করে থাকে। তাই ফুলটাইম-পার্টটাইম দু’ভাবেই ভিডিও এডিটর হিসেবে কাজ করা যায়।

দেশে টিভি চ্যানেল দিন দিন বাড়ছে। এই বাড়াটা স্বাভাবিক। ফলে বর্তমান সময়ে ভিডিও এডিটরদের প্রসার ও প্রচার ঘটছে অত্যন্ত দ্রুত গতিতে। প্রতিটি চ্যানেলে মোটামুটি ২৫ থেকে ৫০ জন ভিডিও এডিটর রয়েছে। সেটি জানলে হয়ত চাকরি পাওয়ার সম্ভাবনাটা অনুধাবন করা সহজ হবে। একটা চ্যানেলে কয়েক ধরনের ক্যাটাগরিতে ভিডিও এডিটর নেয়া হয়।

১. ভিডিও এডিটর ইনচার্জ, ২. সিনিয়র ভিডিও এডিটর, ৩. ভিডিও এডিটর, ৪. জুনিয়র ভিডিও এডিটর এবং ৫. নতুন যারা আসতে চায় ফ্রেশার বা শিক্ষানবিশ নিয়োগ দেয়া হয়।

একজন ভিডিও এডিটর মাসিক পারিশ্রমিক হিসেবে ১৮-২০ হাজার এবং পরবর্তী সময়ে তা ৮০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকাও হতে পারে। যত বেশি চ্যানেল তত বেশি নাটক ও সিনেমা আর বিজ্ঞাপন। মাল্টিমিডিয়া জগতে শিক্ষাগত যোগ্যতাকে কোনো সঠিক মাপ কাঠিতে মাপা সম্ভব নয়। কারণ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে জ্ঞানের পরিধি যত বিস্তৃত তত বেশি করে বিস্তার ঘটিয়ে সাফল্য অর্জন করা সম্ভব। মেধা কাজে লাগিয়ে ভালো কাজ প্রদর্শন করে কাজের শৈল্পিক নান্দনিকতা বাড়াতে এই পেশাটাকে আপন করতে পারেন। বেকারত্ব, হতাশা, দরিদ্রতা কিছুদিনের প্রশিক্ষণে আপনার জীবন থেকে দূর হবে।

ফ্যাশন (ট্যাবলয়েড)'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj