নতুন বছর বৈদ্যুতিক গাড়ির

রবিবার, ৫ জানুয়ারি ২০২০

২০২৬ সাল নাগাদ ইভি বিক্রি মোট গাড়ি বিক্রির এক-পঞ্চমাংশে দাঁড়াতে পারে বলে পূর্বাভাস করা হয়েছে। অন্যদিকে চলতি বছর ইউরোপজুড়ে মোট ৫ লাখ ৪০ হাজার ইভি বিক্রি হতে পারে বলে পূর্বাভাস করেছে এলএমসি অটোমোটিভ। গত বছর তা ছিল ৩ লাখ ১৯ হাজার। এদিকে কার্বন নিঃসরণের নিয়ম না মানলে বিপুল জরিমানার আইন কার্যকর শুরু করছে ইইউ। প্রতিষ্ঠানটির আইন অনুযায়ী যেসব গাড়ি প্রতি কিলোমিটারে ৯৫ গ্রামের বেশি কার্বন নিঃসরণ করবে, সেগুলো এ জরিমানার আওতায় পড়বে-শুরু হওয়া নতুন বছরটি বৈদ্যুতিক গাড়ির (ইভি) করে নেয়ার সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে ইউরোপের গাড়ি নির্মাতারা। উপমহাদেশটির প্রাব সব বিখ্যাত গাড়ি নির্মাতা এ বছর নতুন মডেলের গাড়ি বাজারে আনতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন খাতটির বিশ্লেষকরা। এসব গাড়ি কার্বন নিঃসরণের পরিমাণ সর্বনিম্ন পর্যায়ে রাখতে পারবে বলেও জানিয়েছেন তারা।

আগে যেসব ইভি বাজারে আনা হয়েছিল, সেগুলো সীমিত পরিসরে বিক্রি করা হয়েছে। তবে এসব গাড়ি চলতি বছর থেকে বড় পরিসরে বাজারে আনা হবে। ফলে সাধারণ মানুষের মধ্যে এসব গাড়ি ক্রয়ের সুযোগ বাড়বে। মিনি, ভক্সহ্যাল ক্রোসা ও ফিয়াট ৫০০-সহ বিখ্যাত নামিদামি সব ব্র্যান্ডের নামে এসব গাড়ি চলতি বছর থেকে বাজারে পাওয়া যাবে। এদিকে চলতি বছরের শেষ নাগাদ বিভিন্ন কোম্পানির ইভি মডেলের সংখ্যা

১৭৫-এ দাঁড়াতে পারে বলে উল্লেখ করা হয়েছে আইএইচএস মার্কিটের পরিসংখ্যানে।

অন্যদিকে ২০২৫ সাল নাগাদ ইভি মডেলের সংখ্যা ৩৩০ ছাড়িয়ে যাওয়ার কথা বলা হয়েছে গাড়ি বিশ্লেষকদের প্রতিবেদনে। ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ (ইইউ) উপমহাদেশটির বিভিন্ন দেশ স্বতন্ত্রভাবে কয়েক বছর ধরে কার্বন নিঃসরণ নিয়ে কড়াকড়ি আরোপ করে আসছে। এ ছাড়াও সেখানে সাধারণ মানুষের মধ্যে জলবায়ু পরিবর্তন ও পরিবেশ নিয়ে সচেতনতা বেড়েছে। এ অবস্থায় পেট্রোলচালিত গাড়ির চাহিদা বাজারটিতে ক্রমেই কমছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সেখানে আগামীতে ধীরে ধীরে ইভির চাহিদা বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে। আগের বছরের তুলনায় গত বছর ব্রিটেনে বিক্রি ৩ দশমিক ৪ শতাংশ বাড়ায় মোট ইভি বিক্রি হয়েছিল ৮০ হাজার। চলতি বছর তা ৫ দশমিক ৫ শতাংশ নিয়ে ১ লাখ ৩১ হাজারে দাঁড়াতে পারে বলে পূর্বাভাস করা হয়েছে ব্লুæমবার্গের নিউ এনার্জি ফিন্যান্সের প্রতিবেদনে। ২০২৬ সাল নাগাদ দেশটিতে ইভি বিক্রি মোট গাড়ি বিক্রির

এক-পঞ্চমাংশে দাঁড়াতে পারে বলে পূর্বাভাস করা হয়েছে একই প্রতিবেদনে। অন্যদিকে চলতি বছর ইউরোপজুড়ে মোট ৫ লাখ ৪০ হাজার ইভি বিক্রি হতে পারে বলে পূর্বাভাস করেছে এলএমসি অটোমোটিভ। গত বছর তা ছিল ৩ লাখ ১৯ হাজার। এদিকে কার্বন নিঃসরণের নিয়ম না মানলে বিপুল জরিমানার আইন কার্যকর শুরু করছে ইইউ। প্রতিষ্ঠানটির আইন অনুযায়ী যেসব গাড়ি প্রতি কিলোমিটারে ৯৫ গ্রামের বেশি কার্বন নিঃসরণ করবে, সেগুলো এ জরিমানার আওতায় পড়বে।

গাড়ি নির্মাতারা আইনটি অমান্য করলে অতিরিক্ত প্রতি গ্রাম কার্বনের জন্য জরিমানা গুনতে হবে ৯৫ ইউরো (৭৯ পাউন্ড)। এটিকে দণ্ডপ্রাপ্ত কোম্পানিগুলো মোট যত গাড়ি বিক্রি করেছে সেটার সঙ্গে গুণ করা হবে। অতিরিক্ত কার্বন নিঃসরণের জন্য ২০১৮ সালে ব্রিটেনে কোম্পানিগুলোকে যে জরিমানা করা হয়েছে তার পরিমাণ ২ হাজার ৮৬০ কোটি পাউন্ড হতে পারে বলে জানিয়েছে গাড়ি পরামর্শ প্রতিষ্ঠান জ্যাতু ডিনামিকস। এ পরিস্থিতি গাড়ি কোম্পানিগুলোকে অঞ্চলটির কার্বন নিঃসরণ আইনের সঙ্গে সংগতি বজায় রাখার জন্য অল্প সময়ের মধ্যে বড় পরিবর্তন আনতে হবে বলে মনে করে জ্যাতু। এদিকে কোনো কোনো কোম্পানি এখনো অপেক্ষাকৃত বেশি কার্বন নিঃসরণ করে, এমন গাড়ির বিক্রি অব্যাহত রেখেছে। চলতি বছর এসব কোম্পানির ওপর জরিমানা আরো বাড়তে পারে বলে জানান প্রতিষ্ঠানটির বিশ্লেষক ফেলিপ।

ফ্যাশন (ট্যাবলয়েড)'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj