এনআরসি-এনপিআর নিয়ে ধোঁয়াশা কি ইচ্ছাকৃত

শনিবার, ৪ জানুয়ারি ২০২০

কাগজ ডেস্ক : সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন পাস হওয়ার পর ভারতে আম জনতার মধ্যে মুখ্য আলোচ্য বিষয় এনপিআর এবং এনআরসি। এই দুই-কে এক করে দেখছেন বিরোধীরা। সরকার বলছে, সম্পর্ক নেই। তা সত্ত্বেও রয়ে গেছে অস্পষ্টতা। ভারতজুড়ে জাতীয় নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) এবং জাতীয় জনসংখ্যাপঞ্জি (এনপিআর) নিয়ে ধোঁয়াশা চলছেই। জিইয়ে রাখা হচ্ছে দ্ব›দ্ব। তবে সবটাই ইচ্ছাকৃত। একদিকে সরকার ও শাসক দলের অভিযোগ, বিরোধী দলগুলো আম জনতা এবং সংখালঘু স¤প্রদায়ভুক্ত মানুষদের ভুল বুঝিয়ে বিভ্রান্ত করছে। আন্দোলনের নামে হিংসা ছড়িয়ে রাজনৈতিক সুবিধা নেয়ার চেষ্টা চলছে। অন্যদিকে বিরোধীদের অভিযোগ, সরকারের মন্ত্রী থেকে শাসক দল ভারতীয় জনতা পার্টির নেতারাই জনগণকে বোকা বানাচ্ছেন। সবমিলিয়ে দ্ব›দ্ব রয়েছে দ্ব›েদ্বর জায়গাতেই।

‘মোদি-ওয়ান’ সরকারের তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং, কিরণ রিজিজুরা পরপর ৯ বার সংসদে বলেছেন, এনপিআর-ই এনআরসির প্রথম ধাপ। পরে ‘মোদি-টু’ সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ সংসদের দুই কক্ষ লোকসভা ও রাজ্যসভায় দাঁড়িয়ে জোর গলায় বলেছেন, সারা দেশে নাগরিকপঞ্জি চালু করবে সরকার। এমনকি, স¤প্রতি সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন নিয়ে বিক্ষোভ, আন্দোলনের আগুন ছড়িয়ে পড়ার পর দিল্লির রামলীলা ময়দানে এক জনসভায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বললেন, এনআরসি নিয়ে কোনও আলোচনা শুরুই হয়নি। মানুষকে বিভ্রান্ত করছে বিরোধীরা। পরদিন আবার অমিত শাহ টিভির পর্দায় এলেন। জানালেন, জনসংখ্যাপঞ্জির তথ্য এনআরসিতে ব্যবহার করা হবে না। এতকিছুর পর আবার এলেন এক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। তিনি আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ। বললেন, জাতীয় নাগরিকপঞ্জি বা এনআরসি তৈরির সময় জনসংখ্যাপঞ্জি বা এনপিআর-এর তথ্য ব্যবহার করা হতে পারে, আবার নাও হতে পারে। স্পষ্টতই বোঝা যাচ্ছে জল্পনা, ধোঁয়াশা বা দ্ব›দ্ব জিইয়ে রাখছে কারা। কেন্দ্রীয় সরকারের দায়িত্ববান মন্ত্রীদের একের পর এক এ হেন ভাষণ ও ঘোষণায় যারপরনাই বিভ্রান্ত সাধারণ মানুষ। বিরোধীদের অভিযোগ, আম জনতাকে বিভ্রান্ত করে রাজনৈতিক ফায়দা তুলতে চাইছে বিজেপি।

ডয়চে ভেলেকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে রাজনৈতিক বিশ্লেষক সুগত হাজরা বলেছেন, বিরোধীদের দিকে আঙুল তুলে সরকার তার দায় এড়াতে পারে না। বিরোধিরা তো বিরোধিতা করবেনই। ধোঁয়াশা দূর করার দায়িত্ব সরকার ও শাসক দলের। তা না করে সরকার পক্ষ ধর্মীয় মেরুকরণ চাইছে। আরো হতাশাজনক ব্যাপার হল, সরকার জ্বলন্ত আগুনে জল ঢালার পরিবর্তে ঘি ঢালছে!

এখন সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন পাস হওয়ার পর দেশজুড়ে যেভাবে তার বিরোধিতা চলছে, তাতে পিছপা হওয়ার পরিবর্তে বিতর্কে এনআরসি এবং এনপিআর ইস্যু জুড়ে দিয়ে বিজেপি বিভিন্ন রাজ্যে ধর্মীয় মেরুকরণের চেষ্টায় আরো সক্রিয় হবে।

দূরের জানালা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj