সমধারা প্রকাশনার দশ বছর উদযাপন

শুক্রবার, ২৭ ডিসেম্বর ২০১৯

গত ২৩ ডিসেম্বর সমধারা প্রকাশনার ১০ বছর পূর্তি উৎসব পালন করলো। জাতীয় জাদুঘরের সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে বিকেলে এই উৎসব শুরু হয়। তিন পর্বের উৎসবে সমধারার পাঠক, লেখক ও শুভানুধ্যায়ীরা উপস্থিত ছিলেন। মুখরিত হয়ে ওঠে অনুষ্ঠান প্রাঙ্গণ। অনুষ্ঠানের তিন পর্বের প্রথম পর্বে মুক্তিযুদ্ধকালীন কবি সুফিয়া কামালের দিনলিপি অবলম্বনে আবৃত্তি প্রযোজনা ‘একাত্তরের ডায়েরী’ উপস্থাপন করা হয়। প্রযোজনায় অংশগ্রহণ করেছেন মাসুম আজিজুল বাসার, কাজী নুসরাত শরমীন, সালেক নাছির উদ্দিন, ঋতুরাজ ফিরোজ, পলি পারভীন, ফালাক ফারজানা, আবদুল মালেক, ইসরাত সুলতানা নিশি, মাহবুব রহমান, মিসবাহিল মোকার রাবিন, মেরাজ হোসেন মেহেদী, নাঈমা রুম্মান রুমা, সাবরিনা খাতুন, অন্তরা সাহা, শেখ শাখাওয়াত হোসেন সৌরভ, মায়মুনা হায়দার চৌধুরী, মাসুদ রানা, সুপ্তি দাশ চৈতী, বিথী রহমান, আনিকা অরিন ও মাহেরা বিনতে রফিক । গ্রন্থনা ও নির্দেশনা দিয়েছেন সালেক নাছির উদ্দিন। একদল আবৃত্তিশিল্পী আবেগ দিয়ে যখন কবি সুফিয়া কামালের কথাগুলো তুলে ধরছেন সবার চোখ ভিজে উঠেছিল, তখন তারাই উপলব্ধি করেছেন যে দিনশেষে এই প্রাঙ্গণটা আজ তাদের বড্ড দরকার ছিল। বেঁচে থাকার জন্য খোরাকি চাই তা আমরা সবাই জানি। আত্মার খোরাকি কয়জন খুঁজি আমরা? সেই প্রাঙ্গণে সেদিন অনেকেরই মনে হয়েছিল, এই বুঝি তবে আত্মার খোরাক! নতুন যারা এসেছিলেন তারাও মুগ্ধতায় ঘিরে ছিলেন সেই অনন্য সন্ধ্যায়। জাতীয় সঙ্গীতের মধ্য দিয়ে প্রযোজনার ইতি টানা হয়।

দ্বিতীয় পর্বে সমধারা প্রকাশনার ১০ বছর উপলক্ষে কলকাতা এবং বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকার দশজন লিটল ম্যাগ সম্পাদককে সম্মাননা প্রদান করা হয়। সম্মাননাপ্রাপ্ত সম্পাদকরা হচ্ছেন- গৌরশংকর বন্দ্যোপাধ্যায়, সম্পাদক-চান্দ্রমাস, কলকাতা; সরোজ দেব, সম্পাদক-শব্দ, গাইবান্ধা; অনিকেত শামীম, সম্পাদক-লোক, ঢাকা; ফরিদ আহমদ দুলাল, সম্পাদক-স্বতন্ত্র, ময়মনসিংহ; মাহমুদ কামাল, সম্পাদক-অরণি, টাঙ্গাইল; পুলিন রায়, সম্পাদক-ভাস্কর, সিলেট; মুজাহিদ আহমদ, সম্পাদক-কোরাস, মৌলভীবাজার; মনিরুল মনির, সম্পাদক-খড়িমাটি, চট্টগ্রাম; সুমন শিকদার, সম্পাদক-বেগবতী, ঝিনাইদহ; ইসলাম রফিক, দোআঁশ-সম্পাদক-বগুড়া। শুরুতে সম্পাদকের উত্তরীয় পরিয়ে দেন কবি ও শিল্পী শুভ্রা নীলাঞ্জনা ও সমধারার সহকারী সম্পাদক জান্নাত আরা মমতাজ। সম্মাননাপ্রাপ্তদের স্মারক তুলে দেন জতিসত্তার কবি মুহম্মদ নুরুল হুদা। শুভেচ্ছা জানান কবি ও আবৃত্তিশিল্পী হাসান কল্লোল, কবি নজমুল হেলাল, কথাসাহিত্যিক স ম সামসুল আলম, শিশুসাহিত্যিক রহীম শাহ, সাংবাদিক ফিরোজ চাষী ও সমধারা সম্পাদক সালেক নাছির উদ্দিন। সম্পাদকরা তাদের অনুভূতি প্রকাশে প্রত্যেকের ভাবনা, মূল্যবান মতামত উগড়ে দিয়েছেন অকপটে একে একে। আমরা শিখেছি নতুন কিছু, তাদের জীবনের মধ্য দিয়ে জেনেছি জীবনকে হয়তো আবারো।

তৃতীয় পর্বে উপস্থিত কবিদের স্বরচিত কবিতা পাঠ অনুষ্ঠিত হয়। কবিতা পাঠ করেছেন- কবি তাহমিনা কোরাইশী, রোকেয়া ইসলাম, সোহাগ সিদ্দিকী, শামীম পারভেজ, প্রণব মজুমদার, নীতুল জান্নাত নীতি, নাহিদা পাঠান তুহিন, সৈয়দ নূরূল আলম, বৃষ্টি সাহা, ফাতেমা তাসনিম, সালমা বেগ, অন্তরা স্কলাস্টিকা গমেজ, কাজী নুসরাত শরমীন, মালিহা ইসলাম, আমির আসহাব, বাপ্পি সাহা, লাবণ্য রায়, কাঙাল শাহীন, হাসিনা হাসি, গৌরি সর্ববিদ্যা, মেঘলা জান্নাত, আফরোজা লীনা, আলেয়া আরমিন আলো, মাশরুরা লাকি, মহিমা আজম হিমু, মাহফুজা অনন্যা, আফরোজা হীরা, ফারজানা ইসলাম ও আবৃত্তি শিল্পী কুমার লাভলু, রশীদ কামাল, লুলুয়া ইসহাক মুন্নী, সৈয়দ একতেদার আলী।

এরপর সমধারার ৭৪তম সংখ্যার মোড়ক উন্মোচন করা হয়। সংখ্যাটি প্রতিষ্ঠাবর্ষিকী সংখ্যা হিসেবে প্রকাশিত হয়েছে। এতে লিখেছেন কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন, কবি হেলাল হাফিজ, কবি মৃণাল বসুচৌধুরী, অমিত গোস্বামী, সাইফুল হক সিরাজী, আলম তালুকদার, মুহম্মদ নিযামুদ্দীন, চন্দ্রশীলা ছন্দা, এম এম জিহাদ ওয়াজেদ পরাগ, তুলি আলম, ইলিয়াস বাবর প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে সমধারা সম্পাদক সালেক নাছির উদ্দিন ২০২১ সালের সমধারা সাহিত্য পুরস্কারের নাম ঘোষণা করেন। কবি সরোজ দেবকে এই সাহিত্য পুরস্কার প্রদান করা হবে বলে তিনি ঘোষণা দেন। ২০২০ সালের এই পুরস্কার পাচ্ছেন কথাসাহিত্যে সেলিনা হোসেন এবং শিশুসাহিত্যে রহীম শাহ। এর আগে কবি নির্মলেন্দু গুণ, হেলাল হাফিজ, মুহম্মদ নুরুর হুদা ও মৃণাল বসুচৌধুরী সমধারা সাহিত্য পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন।

মুখরিত প্রাঙ্গণে সবার উপস্থিতিই প্রমাণ করেছে যে, সমধারার যাত্রা বিফল নয়। সমধারা সব সময়ই সিক্ত ভালোবাসায়, দশম পূর্তিতে কিংবা শতবর্ষে।

:: নীতুল জান্নাত নীতি

সাময়িকী'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj