আইসক্রিম আবিষ্কার

সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯

বর্তমানকালে আইসক্রিম অত্যন্ত জনপ্রিয় মিষ্টি খাবার। অতীতে লোকরা গ্রীষ্মকালে আইসক্রিম আস্বাদন করত। কিন্তু বর্তমানে শীতকালেও লোকে আইসক্রিম খায়। প্রথম কোথায় আইসক্রিম আবিষ্কৃত হয়েছিল এবং কীভাবে তা পৃথিবীর অন্য অংশে ছড়িয়ে পড়ে তা কি আমরা জানি?

চীনদেশে আইসক্রিমের সৃষ্টি হয়। প্রায় ৭০০ বছর আগে বিখ্যাত পরিব্রাজক মর্কো পোলো এটা ইতালিতে নিয়ে আসেন। ১২৭১ সালে মার্কো পোলো তার পিতা ও ভ্রাতার সঙ্গে বাণিজ্য অভিযানে চীনদেশে যান। পিকিংয়ের রাস্তায় ঠেলাগাড়িতে করে এক রকম বরফে জমাট বাঁধা খাবার বিক্রি হতে দেখে তিনি আশ্চর্য হন। বস্তুত সেটি ছিল বরফে জমাট বাঁধানো দুধ- তার কোনো কোনোটিতে ফলের রস মেশানো। মার্কো পোলোকে এটি উপহাপর দেয়া হয়। তিনি সেটি ইতালিতে নিয়ে যান। ইতালি এই খাদ্যের ধারণা ফ্রান্সে পৌঁছায়। ১৫৩৩ সালে ইতালির কেথেরিন ডি মেডিসি ফ্রান্সে যান এবং ফ্রান্সের প্রথম ফ্রান্সিসের দ্বিতীয় পুত্রকে বিবাহ করেন। কেথেরিন তার সঙ্গে এক বিরাট পাচক দল নিয়ে যান। তারাই ফরাসিদের মধ্যে এই সুমিষ্ট খাদ্যের প্রচলন করে। ফরাসিরা সত্বর দেখল কী সুস্বাদু এই খাদ্য।

মজার কথা এই যে পরবর্তীকালে ইংল্যান্ডেও এই খাদ্যটি নিয়ে যান একজন নববিবাহিত বধূ। তিনি হলেন ফ্রান্সের হেনরিয়েটা ম্যারিয়া। তিনি ১৬৩০ সালে প্রথম চার্লসকে বিবাহ করেন। তার পাচক আইসক্রিম তৈরির গোপন কৌশল ইংল্যান্ডে নিয়ে যায়।

সত্বরই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ পৃথিবীর সব দেশে আইসক্রিম ছড়িয়ে পড়ে। ব্যাপকভাবে আইসক্রিম তৈরির প্রথম কারখানা ১৮৫১ সালে ম্যারিল্যান্ড অঞ্চলের বালটিমোরে স্থাপিত হয়। জমাট বাঁধানো ব্যবস্থার কৌশল সৃষ্টি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই বস্তুত ১৯০০ সালের পর থেকে আইসক্রিমের সত্যিকার প্রগতি ঘটে এবং আইসক্রিম ব্যবসার সমৃদ্ধির সূত্রপাত হয়।

আইসক্রিম উৎপাদনের উপাদান হলো দুধের সর, দুধ, চিনি, কখনো কখনো এমনকি ডিমও। একে সুগন্ধযুক্ত করার জন্য ভ্যানিলা, চকোলেট, বেরিজ, ফলের রস এবং বাদাম মিশ্রিত করা হয়। সচরাচর আইসক্রিমের মধ্যে থাকে ২০ থেকে ২৫ শতাংশ ক্রিম ও দুগ্ধজাত দ্রব্য, ১৫ শতাংশ চিনি, সামান্য সুগন্ধ বস্তু এবং সামান্য পরিমাণ স্টেবিলাইজার, যা দিয়ে আইসক্রিমকে অপরিবর্তনীয় রাখা যায়। আইসক্রিমের মসৃণতা বজায় রাখার জন্য এবং কোনো রকম অমসৃণ বরফ কুচি যাতে না জন্মায় সেই জন্য স্টেবিলাইজার ব্যবহার করতে হয়। খাদ্যদ্রব্যে ব্যবহার উপযোগী বিশুদ্ধ সিরিশ আঠা সাধারণত এই কাজে ব্যবহার করা হয়। ক্যালসিয়াম, প্রোটিন এবং এ ও বি ভিটামিন আইসক্রিমে থাকে।

গ্রন্থনা : ইমরুল ইউসুফ

সারাদেশ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj