দল পরিচিতি : সিলেট থান্ডার

সোমবার, ৯ ডিসেম্বর ২০১৯

কাগজ প্রতিবেদক : বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের নতুন আসরের নাম ‘বঙ্গবন্ধু বিপিএল।’ বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডই যার দেখভাল করার দায়িত্বে আছে এবং যেখানে থাকছে না আগের কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজি। সিলেট থান্ডারসহ সম্পূর্ণ নতুন ৭ দল অংশ নিচ্ছে এবারের আসরে।

প্রতিনিধিত্ব করা সিলেট দলটির চতুর্থ বারের মতো নামের পরিবর্তন হয়েছে। বিপিএলের প্রথম দুই আসরে সিলেট রয়্যালস ও তৃতীয় আসরে সিলেট সুপার স্টার্স নামে অংশ নেয় ফ্র্যাঞ্চাইজিটি। চতুর্থ আসরে নিষিদ্ধ থাকার পর পঞ্চম আসরে সিলেট সিক্সার্স নামে খেলে দলটি। এবার নতুন নাম সিলেট থান্ডার নামে খেলবে সিলেট বিভাগের দল। দলটির স্লোগান হচ্ছে- ‘ব্যাটে-বলে বজ্রপাত’। বিপিএলে এখনো শিরোপাহীন সিলেট। তবে শিরোপা জয়ের জন্য এবার মাঠে নামছে তারা। বঙ্গবন্ধু বিপিএলের বিশেষ আসর স্মরণীয় করে রাখতে চাইছে সুরমা পারের দলটি।

সিলেট থান্ডারের সবচেয়ে বড় আকর্ষণ হার্শেল গিবস। দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক এই ব্যাটসম্যানকে প্রধান কোচ হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে সিলেট। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে সিলেট থান্ডারের পেজে এক ভিডিও বার্তায় গিবস জানান, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বিশেষ বিপিএলের অংশীদার হতে পেরে গর্ববোধ করছেন। টুর্নামেন্টের জন্য মুখিয়ে আছেন তিনি। তার অধীনেই এগিয়ে যাবে সিলেট।

বড় তারকার নাম না থাকলেও দক্ষ ও মেধাবী ক্রিকেটার নিয়েছে দলটি। দেশি খেলোয়াড়দের মধ্যে মোহাম্মদ মিঠুন দলের নেতৃত্বে থাকতে পারেন। এ ছাড়া মোসাদ্দেক হোসেন, নাজমুল অপু, এবাদত হোসেনরা আলো ছড়াবেন। মোসাদ্দেক হোসেন জানিয়েছেন, বিপিএল একটা বড় মঞ্চ। নিজেদের মেলে ধরারও বড় সুযোগ। এ সুযোগ কাজে লাগাতে চান তারা। টুর্নামেন্টে যে কয়টি দল অংশ নিচ্ছে- প্রত্যেকটি দলই শিরোপা জয়ের লক্ষ্যে মাঠে নামবে। এ ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম নয় সিলেটও। এরই মধ্যে অনুশীলন শুরু করে দিয়েছে দলটি।

বিদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে ড্রাফটের বাইরে থেকে সিলেট দলে ভিড়িয়েছে শেলডন কটরেল ও মোহাম্মদ সামিকে। তবে ভারতের বিপক্ষে সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজ স্কোয়াডে থাকছেন বলে তাকে পুরো টুর্নামেন্ট পাওয়া যাবে না। বিদেশিদের ক্ষেত্রে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও আফগানিস্তানের ক্রিকেটারদের প্রাধান্য দিয়েছে সিলেট। সিলেট থান্ডারের প্রধান পরামর্শক সারোয়ার ইমরান জানান, কটরেলকে টুর্নামেন্টের শেষের দিকে পাওয়া যাবে। তার মতে, ভালো দল গঠন করেছে সিলেট। বিদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে রাদারফোর্ড, চার্লসরা ভালো ক্রিকেটার। কিন্তু কাতার টি-টেন টুর্নামেন্টের জন্য তাদের আসতে বিলম্ব হতে পারে। এ জন্য একটু চিন্তায় রয়েছে দলটি। সিলেট থান্ডার পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছেন তানজিল চৌধুরী। দলটির স্পন্সর গিবানি ফুটওয়্যার। এছাড়া সিলেট থান্ডারে বোলিং কোচ হিসেবে থাকছেন সাবেক দক্ষিণ আফ্রিকার পেসার ন্যান্টি হেওয়ার্ড।

স্কোয়াড : মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মোহাম্মদ মিঠুন, নাজমুল ইসলাম অপু, সোহাগ গাজী, রনি তালুকদার, নাইম হাসান, দেলোয়ার হোসেন, মনির হোসেন, রুবেল মিয়া, এবাদত হোসেন।

বিদেশি : শেরফান রাদারফোর্ড (ওয়েস্ট ইন্ডিজ), শফিকউল্লাহ শাফাক (আফগানিস্তান), নাভিন-উল-হক (আফগানিস্তান), জীবন মেন্ডিস (শ্রীলঙ্কা), শেলডন কটরেল (ওয়েস্ট ইন্ডিজ), মোহাম্মদ সামি (পাকিস্তান), জনসন চার্র্লস (ওয়েস্ট ইন্ডিজ), আন্দ্রে ফ্লেচার (ওয়েস্ট ইন্ডিজ) এবং ক্রিশমার সান্টোকি (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)।

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj