‘বঙ্গবন্ধু’ বিপিএলের জমকালো উদ্বোধন

সোমবার, ৯ ডিসেম্বর ২০১৯

কাগজ প্রতিবেদক : জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে পর্দা উঠল বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) আসরের। এটি বিপিএলের সপ্তম আসর। গতকাল সন্ধ্যা ৭টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করেন এ প্রতিযোগিতার। অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি বিন¤্র শ্রদ্ধা প্রদর্শন করেন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মূল আকর্ষণ সালমান খান ও ক্যাটরিনা কাইফ। অনুষ্ঠান শেষ হওয়ার ঠিক আগ দিয়ে ক্যাটরিনা ও সালমানের দ্বৈত পারফরম্যান্স মঞ্চস্থ হওয়ার আগে, বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ করেন। সালমান ও ক্যাটরিনা দুজনই বলেন, কোটি বাঙালির প্রাণের ¯েøাগান, ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’। এ সময় পুরো শেরে বাংলায় আকাশ বাতাস কাঁপিয়ে রব ওঠে ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’। সালমান-ক্যাটরিনার এ শ্রদ্ধা অর্পণের পুরো বিষয়টি স্বচক্ষে দেখেছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্বোধনী ঘোষণার পর চোখ ধাঁধানো আতশাবাজির মেলা বসে মিরপুর স্টেডিয়ামের আকাশে, যা চলে প্রায় ৭ মিনিট কাল। বিপিএলের উদ্বোধনী ঘোষণার পর থেকে মিরপুর শেরেবাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামের হসপিটালিটি বক্সে বসে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন প্রধানমন্ত্রী। জমকালো এ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের প্রদান আকর্ষণে ছিলেন সালমান-ক্যাটরিনা। মঞ্চে তখন সনু নিগম গান গাইছেন। আর নিজের পারফরম্যান্সের জন্য প্রস্ততি নিতে একটু আগেভাগে স্টেডিয়ামে চলে আসেন বলিউড সুপারস্টার সালমান খান ও হার্টথ্রব নায়িকা ক্যাটরিনা কাইফ। এই দুই তারকা নিজেদের পারফরম্যান্স করতে মঞ্চে নামার আগে হসপিটালিটি বক্সে এসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। দুজনেই সেখানে খানিকক্ষণ সময় কাটান। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথাবার্তা বলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও তাদের খোঁজখবর নেন। কথাবার্তার এই পর্বে ক্যাটরিনার চেয়ে সালমান খানকেই একটু বেশি সপ্রতিভ দেখা গেছে। ভিভিআইপি বক্সে এ সময় বিসিবি সভাপতি নাজমুল হোসেন পাপন এবং ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেলও উপস্থিত ছিলেন।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষেই এবারের বিপিএলের আসরের নামকরণ করা হয়েছে ‘বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল)’। খুব স্বাভাবিকভাবেই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক সন্ধ্যার অনেকটা জুড়েই ছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

গতকাল উদ্বোধনী ঘোষণার সময় সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত সব দর্শককে আমার আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। বঙ্গবন্ধুর নামে এই টুর্নামেন্ট সফল হোক, স্বার্থক হোক, একই সঙ্গে এই আয়োজনের সফলতা কামনা করে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ-২০১৯ এর শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করছি।

প্রধানমন্ত্রীর আনুষ্ঠানিক ঘোষণার আগে বিকেলে গান পরিবেশন করেন দুই স্থানীয় শিল্পী। এরপর সাড়ে ৬টার দিকে স্টেজে ওঠেন জেমস ও তার দল নগর বাউল। জেমস তার প্রথম গানটি গাওয়ার সময় অনুষ্ঠানস্থলে এসে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। এরপর সব মিলিয়ে তার বিখ্যাত ৩টি গান পরিবেশন করেন, যার মধ্যে ছিল মা গানটি। জেমসের পর মঞ্চে উঠেন ভারতের বিখ্যাত শিল্পী সনু নিগম। প্রথমে একটি হিন্দি গান গাওয়ার পর দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের ধনধান্য পুষ্পে ভরা বিখ্যাত বাংলা গানটি পরিবেশন করেন তিনি। এরপর তিনি পরিবেশন করেন বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লেখা শোন একটি মুজিবরের কণ্ঠে গানটি।

সনু নিগমের পর মঞ্চ মাতাতে আসেন আরেক ভারতীয় শিল্পী কৈলাস খের। এরপর শুরু হয় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মূল আকর্ষণ ক্যাটরিনা ও সালমান খান শো। এ দুই তারকা নৈপুণ্য প্রদর্শনের ফাঁকে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনপূর্বক তার জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানের সফলতা কামনা করেন সালমান ও ক্যাটরিনা। সালমানের মুখ থেকে শোনা যায়, বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনে বঙ্গবন্ধুর অবদানের কথাও।

এ ছাড়া সালমান খান নিজের বাবার কথা রাখতে গিয়ে বাংলাদেশের প্রাণের কবি, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের প্রতিও শ্রদ্ধা প্রদর্শন করেন। কথা প্রসঙ্গে সালমান জানিয়ে দেন, তার পিতা কাজী নজরুল ইসলামের একনিষ্ঠ ভক্ত এবং তার অনেক কবিতাও পড়েছেন।

সে কারণেই ঢাকা আসার আগে তার বাবা বলেছিলেন, একবার হলেও সালমান যেন কাজী নজরুলের নাম স্মরণ করেন। বাবার কথা রাখতেই নিজের বক্তব্যের শেষাংশে কাজী নজরুল ইসলামের নাম বলেন এবং জানান যে, বাবার মুখে শুনেছি কাজী নজরুল ইসলাম অনেক বড় মাপের কবি।

এ শ্রদ্ধা নিবেদন পর্ব শেষে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সমাপনী পারফরম্যান্স নিয়ে মঞ্চে আসেন সালমান ও ক্যাটরিনা। তাদের পারফরম্যান্সের মধ্য দিয়েই শেষ হয় প্রায় পাঁচ ঘণ্টার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান।

প্রথম পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj