ডাকসু ভিপির কার্যালয়ে তালা

বৃহস্পতিবার, ৫ ডিসেম্বর ২০১৯

ঢাবি প্রতিনিধি : দুর্নীতির অভিযোগে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সহসভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুরের পদত্যাগ ও গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়ে তার অফিসে তালা দিয়েছে ‘মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ’ নামের একটি সংগঠন। গতকাল বুধবার দুপুরে ডাকসু ভিপির বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ এনে মানববন্ধন ও তার কুশপুত্তলিকা দাহ করে কোটা সংস্কারের বিরুদ্ধে গড়ে ওঠা মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। মানববন্ধন শেষে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের আহ্বায়ক আ ক ম জামাল উদ্দিনের নেতৃত্বে তারা ডাকসু কার্যালয়ে গিয়ে ভিপির কক্ষে তালা দেন। তালা দেয়ার পাশাপাশি অফিসের দরজায় নুরের পদত্যাগের দাবি সংবলিত ২টি পোস্টার সাঁটিয়ে দেন।

এ বিষয়ে নুরুল হক নুর বলেন, আমি তালা ভেঙে অফিসে প্রবেশ করেছি এবং অফিস করেছি। আর তালা দেয়ার মতো এ নৈরাজ্য সৃষ্টিকারী কাজ করেছে ছাত্রলীগের মদদে গঠিত তথাকথিত মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ নামের একটি সংগঠন। আর এতে নেতৃত্ব দিয়েছেন সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক আ ক ম জামাল উদ্দীন, যাকে অনেকে মানসিক বিকারগ্রস্তও বলে থাকেন। এ বিষয়ে অভিযোগ করতে আমি বিশ^বিদ্যালয়ের প্রক্টরের কাছে গিয়েছি। তিনি আমাকে কোনো ধরনের সাহায্য করেননি।

তালা দেয়ার বিষয়ে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক এ কে এম গোলাম রাব্বানী ভোরের কাগজকে বলেন, এটি মোটেও কাম্য নয়। এ বিষয়ে আমি ডাকসু কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলেছি। আমরা তাদের বলছি যে কোনো বিষয়ে বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসন থেকে সাহায্য করা হবে। তারা চাইলে প্রয়োজনে সিসিটিভি ফুটেজ দেখে যারা তালা দিয়েছে তাদের শনাক্ত করা হবে।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ভিপি নুরুল হক নুরের ফোনালাপের একটি অডিও ক্লিপ ফাঁস হয়। যেখানে ভিপি নুরকে জনৈক এক প্রকল্প কর্মকর্তার কাছে তদবির এবং প্রবাসী এক বাংলাদেশির সঙ্গে টেলিফোনে টাকা লেনদেনের বিষয়ে কথা বলতে শোনা গেছে। ফোনালাপটি ইতোমধ্যেই ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। তবে ফোনালাপকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে আংশিকভাবে প্রচার করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন নুর। পাশাপাশি নুর ওই সংবাদ মাধ্যমের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলেও জানান।

দ্বিতীয় সংস্করন'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj