পিপুল

বৃহস্পতিবার, ৫ ডিসেম্বর ২০১৯

গ্রাম বাংলার একটি পরিচিত উদ্ভিদ হলো পিপুল। এটি সুগন্ধিযুক্ত লতানো গাছ, মাটিতে বেয়ে বেয়ে বড় হয়। কখনো অন্য গাছ বেয়ে ওঠে। লতায় পর্বসন্ধি বা গিট থাকে। এর একটি করে পাতা একান্তভাবে জন্মায়। এর পাতা দেখতে অনেকটা পান পাতার মতো। বোঁটা ছাড়া পাতা লম্বায় ৪-৬ সে.মি. এবং চওড়া ২-৪ সে.মি.। পতার উপরিভাগ ঘন সবুজ এবং চওড়া এবং নিচের দিকটা হালকা সবুজ। প্রতিটি পর্ব ৭-১৩ সে.মি. লম্বা হয়। ফুল কুঁড়ি অবস্থায় সবুজ। ফল পাকলে হলুদ ও পরে ধূসর হয়ে যায়। আমাদের দেশের গ্রামে গঞ্জের আনাচে-কানাচে এই গাছ দেখতে পাওয়া যায়। পিপুলের কিছু ভেষজ ঔষধি গুণাগুণ রয়েছে। পিপুল শাককে এন্টিবায়োটিক হিসেবেও অভিহিত করা হয়। মূল থেকে শুরু করে কাণ্ড ও পাতায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ঔষধি গুণ। পিপুল শাকের পাতা ও ডালিমের পাতা একসঙ্গে মিহি করে বেটে মুখে ব্যবহার করলে ব্রন ও মেছতার দাগ দূর হয়। পা ফেটে গেলে এর পাতা ও গোল মরিচ বেটে সেখানে ব্যবহার করলে উপকার পাওয়া যায়। এই শাক প্রসূতি মায়ের অনেক শারীরিক সমস্যার সমাধান করে থাকে। এই শাক রান্না করে প্রসূতি মাকে খাওয়ালে ক্ষতজনিত অনেক সমস্যার সমাধান হয়। সর্দি, কাশি, হৃদপিণ্ড সচল রাখতে ও য²া নিরাময়ে পিপুল লতা খুব কার্যকরী। এতে পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন ‘কে’ বিদ্যমান। এছাড়া জন্ডিস নিরাময়ে এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। পিপুল শাক রান্না করে খাওয়া যায়। এটি ব্যথানাশক ও এন্টিহিস্টামিন হিসেবে মানব শরীরে জ্বর বা বাতজনিত ব্যথা ও এলার্জি উপশম করে। কৃমির ওষুধ হিসেবে এটি ভালো কাজ করে। জ্বর ও কাশি হলে পিপুল গরম পানির সঙ্গে সকাল ও বিকেলে খেলে জ্বর ও কাশি ভালো হয়ে যায়। হাঁপানি রোগীদের জন্য পিপুল বেশ উপকারী। শরীরের ক্ষতিকারক কোলেস্টেরল কমাতে পিপুল বেশ কাজের।

মুক্তচিন্তা'র আরও সংবাদ
মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম

পুঁজিবাজারের ধস পরবর্তী দশ বছর

শাহ মো. জিয়াউদ্দিন

ধর্ষক, নরপশু ও সভ্যতা

সাঈদ চৌধুরী

অনিরাপদ সড়ক

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী

ঘুরে দাঁড়ানোর এখনই সময়

আরাফাত হোসেন ভূঁইয়া

ধর্ষণ : কারণ ও প্রতিরোধের উপায়

Bhorerkagoj