এনআরসি আতঙ্ক : ভারতে বেহাল অর্থনীতি চাকরিতে অনিশ্চয়তা

শনিবার, ৩০ নভেম্বর ২০১৯

কাগজ ডেস্ক : অর্থনীতির বেহাল দশা। নতুন কর্মসংস্থান হচ্ছে না, উল্টে চাকরিতে বাড়ছে অনিশ্চয়তা। উগ্র হিন্দুত্ববাদকে জাতীয়তাবাদের মোড়কে পেশ করার প্রচেষ্টাও চলছে। পদ্ম শিবিরের বিরুদ্ধে রয়েছে ঔদ্ধত্য, দাম্ভিকতা, সংখ্যার জোর খাটানোর অভিযোগও। তার মধ্যে আবার নতুন ঘোষণা সারা দেশে জাতীয় নাগরিকপঞ্জি। গোটা দেশের বৃহৎ এই উপন্যাসেরই একটা খণ্ডচিত্র কি দেখা গেল পশ্চিমবঙ্গে? তিন কেন্দ্রে বিধানসভা উপনির্বাচনের ফলে কি এসবেরই প্রতিফলন? এখনই সরাসরি এই প্রশ্নের উত্তর দেয়ার সময় না হলেও তার কিছুটা আঁচ মিলেছে, এমনটা মানছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা। তিনটি কেন্দ্রের সবটিতেই জিতেছে তৃণমূল। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের ছেড়ে যাওয়া কেন্দ্র হাতছাড়া হয়েছে বিজেপির। লোকসভা ভোটের নিরিখে বিপুল ভোটের ব্যবধানে এগিয়ে থেকেও বিজেপি জিততে পারেনি কালিয়াগঞ্জ কেন্দ্রে। করিমপুরেও বেড়েছে জয়ের ব্যবধান।

আসামে এনআরসির পর থেকেই পশ্চিমবঙ্গ রাজনীতিতে অন্য মাত্রা পেয়েছে এনআরসি। আসামে এনআরসির চূড়ান্ত তালিকা থেকে ১৯ লাখ মানুষ বাদ পড়ার পরেই তীব্র আতঙ্ক ছড়ায় এ রাজ্যেও। আসামের মতো ১৯৭১ সালকে সময়সীমা ধরা হলে এ রাজ্যেও যে বহু মানুষ এনআরসি থেকে বাদ পড়বেন, তা আন্দাজ করা কঠিন নয়। তাই এ রাজ্যের বিশেষ করে গোটা উত্তরবঙ্গ এবং দক্ষিণবঙ্গের ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী জেলাগুলিতে একটা বিরাট অংশের মানুষের মধ্যে এনআরসি আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

আতঙ্ক থেকে বাঁচতেই কি তৃণমূলের দিকে ঝোঁক? উড়িয়ে দিচ্ছে না রাজনৈতিক মহল। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গোড়া থেকেই এনআরসির বিরোধী। এমনকি, তিনি স্পষ্ট ঘোষণা করেছেন, এ রাজ্যে এনআরসি হতে দেবেন না। তাঁর কথায় বিশ্বাস করেছেন আতঙ্কিত মানুষজন। তাই এনআরসি নিয়ে বিজেপির একগুঁয়েমি এবং তার জেরে আতঙ্কের চোরাস্রোত ইভিএম-এ ঢুকে পড়াটা অসম্ভব নয় বলেই মনে করছেন নির্বাচনী পর্যবেক্ষকদের একাংশ। কালিয়াগঞ্জের বিজেপি প্রার্থী কমলচন্দ্র সরকার যেমন সরাসরিই বলেছেন, এনআরসি নিয়ে মানুষকে আমরা বোঝাতে পারিনি। তাই এমন ফল।

প্রায় একই দাবি করেছে তৃণমূলও। দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেও বলেছেন, বিজেপি কখনো এনআরসি, কখনো অন্য কিছু নিয়ে যা খুশি প্রচার করছে। এই মানুষরাই দীর্ঘ দিন ধরে ভোট দিয়েছেন, এমপি-এমএলএ বানিয়েছেন, সব কাজ করেছেন। আর এখন ওরা (বিজেপি) বলছে, নাগরিকত্বের প্রমাণ দিতে হবে। অর্থাৎ বিজেপির খারাপ ফল এবং তাঁদের সাফল্যের পেছনে এনআরসি অন্যতম বড় ‘ফ্যাক্টর’ হিসেবে কাজ করেছে মানছেন তৃণমূলনেত্রী। যদিও এখনই সে কথা মানতে নারাজ বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্ব। যুক্তি হিসেবে তারা তুলে আনছেন কালিয়াগঞ্জ এবং করিমপুরের ফলাফল। ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী এলাকা করিমপুরে এনআরসি আতঙ্ক ছিল বেশি। কিন্তু সেখানে বিজেপির ভোট কমার বদলে প্রায় ৫ হাজার বেড়েছে। কিন্তু বাম-কংগ্রেসের মিলিত ভোটে কার্যত ধস নেমেছে। লোকসভা নির্বাচনে দুদলের মিলিত ভোট ছিল ৩৯ হাজারেরও বেশি। সেটা কমে দাঁড়িয়েছে ১৮ হাজারের কিছু বেশি। আবার কালিয়াগঞ্জেও বিপুল পরিমাণ ভোট কমেছে বিজেপির এমনটা বলা যাবে না। বরং তার তুলনায় বাম-কংগ্রেসের ভোট অনেক কমেছে। অথচ খড়্গপুর সদর কেন্দ্রে, যেখানে এনআরসির তেমন প্রভাব পড়ার কথা নয়, সেখানেই বিজেপির ভোট বিপুল কমে ৯৩ হাজার থেকে কমে নেমে এসেছে ৫২ হাজারের কাছাকাছি। এনআরসির জন্যই বিজেপির এই খারাপ ফল কি না, এই প্রশ্নে দলের নেতা মুকুল রায় যেমন বলেছেন, এখনই সে কথা বলে দেয়া যাবে না। কেন এই ফল হলো, সেটা আমরা বিশ্লেষণ করে দেখব।

তবে কি শুধু এনআরসি নয়, আরো কিছু? অন্দরের কারণ হিসেবে পর্যবেক্ষকরা তুলে আনছেন দেশের সামগ্রিক পরিস্থিতি। জিডিপি, রাজকোষ ঘাটতি, ক্রেডিং রেটিং, বিদেশি বিনিয়োগের মতো জটিল হিসাব-নিকাশ আম ভোটারদের মাথায় না ঢুকলেও, সামগ্রিক অর্থনীতি যে ধুঁকছে, তা বুঝতে অসুবিধা হওয়ার কথা নয় তাদের। বিরোধীরাও সেটা বারবার স্মরণ করিয়ে দিচ্ছেন। ধুঁকতে থাকা অধিকাংশ রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা বেসরকারিকরণের চেষ্টা চলছে। সরকারি চাকরিতেও কমছে নিশ্চয়তা। রেল, বিএসএনএল-এমটিএনএল, ব্যাংকিং ক্ষেত্রে তীব্র আতঙ্ক কর্মীদের মধ্যে। নতুন শিল্প-বিনিয়োগ প্রায় নেই। ফলে কর্মসংস্থানের নতুন ক্ষেত্র তৈরি হচ্ছে না, উল্টে স্থায়ী চাকরিও রাতারাতি বাতিল হয়ে যাচ্ছে, এমন নজিরও রয়েছে। অর্থনীতির এই সামগ্রিক ভঙ্গুর দশা ইভিএম-এ ছাপ ফেলবে না, এমন ভাবতে নারাজ বিশ্লেষকরা।

উদাহরণ হিসেবে নেয়া যেতে পারে খড়্গপুরের ফল। বিজেপির ভোট কমেছে বিপুল হারে। অথচ সেখানে এনআরসির প্রভাব কার্যত নেই। রেলশহর খড়গপুরে রয়েছেন প্রচুর ভিন রাজ্যের মানুষ, তথা অবাঙালি। এই অবাঙালি স¤প্রদায়ের ভোট মূলত বিজেপির দিকেই যেত। তবে কি তারাও এ বার মুখ ফেরাতে শুরু করেছেন বিজেপির দিক থেকে? মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও সে দিকেই ইঙ্গিত করে বলেছেন, খড়্গপুরের অবাঙালি ভিন রাজ্যের বাসিন্দারাও আমাদের ভোট দিয়েছেন।

২০১৪-র পর ২০১৯-এ আরো বেশি আসন নিয়ে বিপুল জয় পেয়েছে বিজেপি তথা এনডিএ শিবির। কিন্তু সংখ্যার জোর থাকলেই দলের মতবাদকে গায়ের জোরে দেশবাসীর উপরে চাপিয়ে দেয়ার মনোভাবকে দেশবাসী ভালোভাবে নাও নিতে পারেন। কিন্তু কার্যক্ষেত্রে কার্যত সেই মেরুকরণের চেষ্টাই করে চলেছে বিজেপি। অভিযোগ উঠেছে, এনআরসিসহ একাধিক সিদ্ধান্তে চেষ্টা চলছে মুসলিম স¤প্রদায়কে কোণঠাসা করার।

দূরের জানালা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj