ডুমুরিয়ায় কাজ বন্ধ করে দিল এলাকাবাসী

শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯

শেখ মাহতাব হোসেন, ডুমুরিয়া (খুলনা) থেকে : ডুমুরিয়া উপজেলার মাগুরাঘোনার আলাদিপুর আরএন্ডএইচ বাদুড়িয়া বাজার সড়ক নির্মাণে দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ইটের পরিবর্তে আদলা ইট, এক নম্বর ইটের পরিবর্তে দুই নম্বর ইট, বালির পরিবর্তে মাটি রাস্তায় কাজ করা হচ্ছে।

এ কারণে এলাকাবাসী একাধিকবার কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। তারপর ঠিকাদার সবাইকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে কাজ করছেন। জানা যায়, ডুমুরিয়া উপজেলাধীন আলাদিপুর আরএন্ডএইচ বাদুড়িয়া বাজার পর্যন্ত স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদপ্তরের (এলজিইডি) পল্লী অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পে ১৪শ মিটার ও ২৮০ মিটার রাস্তা নির্মাণ করার জন্য বরাদ্দ দেয়া হয় ২ কোটি ১৬ লাখ ১৯ হাজার ৮১৩ টাকা। কাজটি পান আমিন এন্ড কোং নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। কাজ নেন হাওলাদার বাশারত আলী নামে এক ঠিকাদার। কাজটি শুরু হয় প্রায় ৬ মাস পরে। এরপর দুই পাশের পাইলিংয়ের কাজ শুরু হয় ধীরগতিতে। সেখানে মিকচার মেশিনের পরিবর্তে খোয়া সিমেন্ট ও বালি মেশানো হয় ঝুড়ি কোদাল দিয়ে।

পাইলিংয়ের কাজ শেষ করার কয়েক দিনের মাথায় ৮/১০ স্থান থেকে পাইলিং ভেঙে পড়ার উপক্রম। এরপর রাস্তার তলদেশে দেয়া হয় ঘোষড়া বিলের কাদাযুক্ত মাটি, সে কাদা শুকাতে প্রায় ১ মাস সময় লাগে। এক মাস এলাকাবাসী রাস্তা চলাচলে চরম ভোগান্তিতে পড়েন।

ঘোষড়া গ্রামের নুরুল আমীন বলেন, নরম ইট দিয়ে কাজ শুরু করা হলে আমরা কাজ বন্ধ করে দিয়েছিলাম। তাছাড়া রাস্তার নিচে বা উপরে বালির পরিবর্তে রাস্তার দুই পাশ থেকে মাটি কেটে তা ছিটিয়ে দেয়া হচ্ছে। কাঞ্চনপুর ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য আক্তারুজ্জামান বাবলু বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমরা একাধিক বার উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার বিদ্যুৎ কুমার দাসকে জানিয়েছি। কিন্তু অদ্যাবধি তাকে এ রাস্তায় আনা সম্ভব হয়নি। আর এ কারণে ঠিকাদার নিজের ইচ্ছামতো ইট দিয়ে রাস্তা তৈরি করছে।

ঠিকাদার হাওলাদার বাশারত আলী বলেন, আমি যে ইট দিয়ে কাজ করছি তা আমার দৃষ্টিতে এক নম্বর ইট। গ্রামবাসী আমার কাছে টাকা চেয়েছিল। তাদের টাকা না দেয়ায় তারা বারবার কাজ বন্ধ করে দেয়ার চেষ্টা করেছে। এ ব্যাপারে নির্বাহী প্রকৌশলী এ এস এম কবির বলেন, আমি বিষয়টি এখনি গুরুত্ব সহকারে দেখছি।

সারাদেশ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj