বাংলাদেশ-ভারত দ্বাদশ

বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯

খেলা প্রতিবেদক : কাল ইডেন গার্ডেনে শুরু হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ-ভারত ঐতিহাসিক দিবা-রাত্রির টেস্ট। লাল বল দেখতে অসুবিধা হয়। রং হারালে সেটি দেখা কঠিন হয়ে পড়ে। সেজন্য উজ্জ্বল রংয়ের গোলাপি বল বেছে নেয়া হয়েছে। এটি রং হারায় কম। টেস্ট ম্যাচ শুরুর আগে কলকাতা শহরও সাজানো হয়েছে গোলাপি রংয়ে। রাস্তায় দেয়া হয়েছে গোলাপি রংয়ের লাইট। গুরুত্বপূর্ণ স্থানে শোভা পেয়েছে গোলাপি রংয়ের নানান সাজ। সন্ধ্যা হতেই নগর যেন গোলাপি হয়ে যাচ্ছে। গাছ ও গাছের পাতা সব যেন গোলাপি। কলকাতার ময়দান মেসারার্স ক্রিকেট ক্লাবের ফটক সাজানো হয়েছে গোলাপি রংয়ে। অস্ট্রেলিয়া ২০১৫ সালে প্রথম গোলাপি বলে টেস্ট খেলে। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওই টেস্টে ৩ উইকেটে জয় পায় অজিরা। অস্ট্রেলিয়াই এ পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি পাঁচটি গোলাপি বলের টেস্ট খেলেছে। সবকটিতেই জয় পেয়েছে তারা। এ পর্যন্ত ১১ টেস্ট খেলা হয়েছে গোলাপি বলে। এবার ১২ টেস্ট খেলতে মাঠে নামছে বাংলাদেশ-ভারত। এ পর্যন্ত মাঠে গড়ানো ১১টি টেস্টের একটিও ড্র হয়নি। মানে ফলাফল হয়েছে।

টেস্ট খেলুড়ে ১২ দেশের মধ্যে ৮ দল এরই মধ্যে গোলাপি বলে টেস্ট খেলার স্বাদ নিয়েছে। বড় দলের মধ্যে বাকি ছিল কেবল ভারত। বাংলাদেশকে সঙ্গে নিয়ে প্রতিবেশী দুই দেশ এবার সেই অভিজ্ঞতাও নিচ্ছে। কাল বাংলাদেশ সময় দুপুর দেড়টায় শুরু হবে গোলাপি বলের দিবা-রাত্রির টেস্ট। বাংলাদেশ সময় ৪টা ১০ মিনিটে শেষ হবে মধ্যাহ্ন ভোজের বিরতি। ৪০ মিনিটের ওই বিরতি শেষে শুরু হবে দ্বিতীয় সেশন। দ্বিতীয় সেশন থেকেই জ্বলে উঠবে ফ্লাড লাইট।

এরপর বাংলাদেশ সময় ৬টা ১০ মিনিটে দেয়া হবে চা পানের বিরতি। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা থেকে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত চলবে তৃতীয় সেশন। গোলাপি বলের সিমে সেলাই বেশি তাই পেসাররা বেশি বাউন্স পাবেন। বল দ্রুত পুরনো হয় না। ওদিকে সন্ধ্যার আগে থেকেই শিশির ভূমিকা রাখবে। সেদিক থেকে স্পিন স্বর্গ হলেও ইডেনে স্পিনাররা সুবিধা কম পাবেন। ভারত শক্তির বিচারে এগিয়ে। তবে সুযোগ থাকছে বাংলাদেশেরও। শ্রীলঙ্কার গোলাপি বলের সাফল্য বাংলাদেশ দলকে দেবে বাড়তি প্রেরণা। গোলাপি বলে এরই মধ্যে তিন টেস্টে দুই জয় পেয়েছে তারা।

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj