ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যুৎ লাইনে মৃত্যুফাঁদ : সঞ্চালন ও বিতরণ ব্যবস্থার উন্নয়ন জরুরি

বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯

দেশের বিভিন্ন স্থানে পুরনো বিদ্যুৎ সঞ্চালন ব্যবস্থা দিন দিন মরণফাঁদে পরিণত হচ্ছে। বর্ষা মৌসুমে এসব বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন ঝড়ো হাওয়ায় ছিঁড়ে রাস্তায় পড়ে থাকে। এবারো ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে উপক‚লীয় জেলাগুলোর বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। এতে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে ১৪ জেলা। ক্ষতি হয়েছে ১৮ কোটি টাকা। এমন বিপর্যয় আগেও দেখা গেছে। দেশের বিদ্যুতের প্রযুক্তি ও ব্যবস্থাপনা কতটা নাজুক ও ঝুঁকিপূর্ণ তা আবার দেখা গেল। ২০২১ সালের মধ্যে সারাদেশের ঘরে ঘরে বিদ্যুতের আলো পৌঁছে দেয়ার যে উদ্যোগ সরকার নিয়েছে, তা প্রশংসনীয়। দ্রুতগতিতে বিদ্যুতের লাইন সম্প্রসারিত হচ্ছে। তবে অপরিকল্পিতভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ দিতে গিয়ে সাধারণ মানুষ ঝুঁকিতে পড়ছে। গ্রামগঞ্জে দ্রুত মানুষকে বিদ্যুৎ পৌঁছে দিতে গিয়ে যেনতেনভাবে লাইন টানা হয়েছে। নিয়মকানুন বহু ক্ষেত্রেই মানা হয়নি। কারো বাড়ির জানালার পাশ দিয়ে, কারো বাড়ির গাছগাছালির ভেতর দিয়ে ঝুঁকিপূর্ণভাবে লাইন চলে গেছে। পাশাপাশি বিদ্যুৎ সংযোগে ব্যবহার করা হচ্ছে নি¤œমানের সামগ্রী। বিদ্যুতের তার, সুইচ বোর্ড, সার্কিটগুলো নি¤œমানের হওয়ায় বাসাবাড়িতে হরহামেশা শর্টসার্কিটের ঘটনা ঘটছে। আগুন লাগছে। প্রাণহানির ঘটনা ঘটছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে এই বিপর্যয় ঘটেছে। এ মৌসুমে সারাদেশেই ঝড়-তুফান হয়। আমাদের দেশের জন্য এটা স্বাভাবিক ঘটনা। কাজেই এ ধরনের ঝুঁকি মাথায় রেখেই আমাদের জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ সঞ্চালনের বিষয়টি নিশ্চিত করা জরুরি নয় কি? সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে দেশে বেশ কয়েকটি সংস্থা গবেষণা করে। সেখানে এ বিষয়ে পরিসংখ্যান পাওয়া যায়। কিন্তু বিদ্যুৎস্পর্শে দুর্ঘটনা নিয়ে উল্লেখযোগ্য তেমন গবেষণা নেই। বিশ্লেষকরা বলছেন, সড়ক দুর্ঘটনার মতো প্রতিদিনই বিদ্যুৎস্পর্শে মৃত্যুর ঘটনা বাড়ছে। এ বিষয়ে সরকার কার্যকর ব্যবস্থা না নিলে মৃত্যুর হার সড়ক দুর্ঘটনাকে ছাপিয়ে যাবে। জরাজীর্ণ বিদ্যুৎ সঞ্চালন ব্যবস্থার সংস্কার ও আধুনিকায়ন দরকার নিরাপত্তার জন্যও। ২০১৪ সালে ১ নভেম্বর সারাদেশ একযোগে ব্লু্যাক আউটের কবলে পড়ে। এ রকম বিপর্যয়কর অবস্থায় যাতে না পড়তে হয়, সে জন্য জরুরিভিত্তিতে সঞ্চালন ব্যবস্থায় আধুনিক প্রযুক্তির সমাবেশ ঘটানো দরকার। বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়ছে কিন্তু সঞ্চালন বিতরণ অবকাঠামো ও ব্যবস্থাপনার উন্নতি না হওয়ার কারণে উৎপাদন বৃদ্ধির সুফল কাক্সিক্ষত মাত্রায় পাওয়া যাচ্ছে না। এদিকে দেশে প্রতিনিয়তই বাড়ছে বিদ্যুতের চাহিদা। দেশের ৪০ শতাংশেরও বেশি মানুষ বিদ্যুতের ন্যূনতম সেবা প্রাপ্তি থেকে এখনো বঞ্চিত। বঞ্চিত গ্রামীণ এলাকাকে বিদ্যুতের আওতায় আনতে গেলে আরো বিদ্যুতের জোগান প্রয়োজন, প্রয়োজন বিদ্যুৎ বিতরণ লাইনের সম্প্রসারণ। দেশের বিদ্যুৎ ব্যবস্থার উন্নয়নে বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়ানোর পাশাপাশি সঞ্চালন ও বিতরণ ব্যবস্থার উন্নয়ন ত্বরান্বিত করতে হবে সরকারকে। দূর করতে হবে এ খাতের ব্যবস্থাপনাগত দুর্বলতাও।

সম্পাদকীয়'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj