পুকুর গিলে খাচ্ছে রাস্তা শঙ্কায় ১৫ গ্রামের মানুষ

শনিবার, ৯ নভেম্বর ২০১৯

মো. আব্দুল আজিজ মণ্ডল, ধামইরহাট (নওগাঁ) থেকে : নওগাঁর ধামইরহাটের ১৫ গ্রামের মানুষের যাতায়াতের একমাত্র রাস্তাটি পুকুরে গিলে খাচ্ছে। প্রতিদিন এ রাস্তা দিয়ে হাজার হাজার মানুষের চলাচল। অথচ গুরুত্বপূর্ণ এ রাস্তাটি পুকুরের আগ্রাসনে হারিয়ে যেতে বসেছে। দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে জনগণকে আরো বড় ভোগান্তিতে পড়তে হবে।

জানা গেছে, ধামইরহাট উপজেলার আড়ানগর ইউনিয়নের বড়থা বাজারের দক্ষিণ পাশ থেকে বড়থা-লক্ষণপাড়া হয়ে বংশীবাটি সংস্কারবিহীন পাকা সড়কটি ব্রজবন হয়ে পার্শ্ববর্তী পতœীতলা উপজেলার আমাইড় ইউনিয়নে গিয়ে মিলেছে। রাস্তাটি বংশীবাটি গ্রামের মাঝখান দিয়ে গ্রামবাসীর মালিকানায় একটি বড় পুকুরের পাশ দিয়ে চলে গেছে। পুকুরটি বর্তমানে লিজ দেয়া হয়েছে। পুকুরের পশ্চিম ও দক্ষিণপাড় পুকুরের পানিতে ভেঙে একাকার হয়েছে গেছে। রাস্তা পুকুরে মিশে যাওয়ার গ্রামবাসীকে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। পুকুরের উত্তর পাড়ে কিছু অংশ গাইডওয়াল দেয়া হয়েছে। বাকি অংশ গাইডওয়াল না দেয়ায় গুরুত্বপূর্ণ পাকা রাস্তাটি হুমকির মুখে পড়েছে। যে কোনো সময় রাস্তাটি পুকুরে বিলীন হয়ে যেতে পারে। অথচ মাত্র কয়েক গজ গাইডওয়াল দেয়া হলে রাস্তাটি রক্ষা করা যেতে পারে।

লক্ষণপাড়া, ব্রজবন, খেড়শুকনা, মধুপুর, বলাবান, ঢিকলাসহ প্রায় ১৫টি গ্রামের মানুষ নিয়মিত চলাচল করে।

এলাকার কৃষকরা তাদের উৎপাদিত ফসল এ পথ দিয়ে বড়থা বাজার এবং এলাকার বৃহৎ হাটমাতাজী নিয়ে কেনাবেচা করে। এ ছাড়া এলাকার শত শত শিক্ষার্থী সড়কটি দিয়ে লক্ষণপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়, বড়থা ফাজিল মাদ্রাসা, নজিপুর সরকারি কলেজ এবং ধামইরহাট সরকারি এম.এম কলেজে আসা-যাওয়া করে। অথচ গুরুত্বপূর্ণ এ রাস্তাটিকে বংশীবাটি গ্রামের একটি পুকুর গ্রাস করছে।

ব্রজবন গ্রামের রুবেল হোসেন বলেন, নওগাঁ, ধামইরহাট ও পতœীতলা যাওয়ার একমাত্র এ রাস্তাটি পুকুরে মিশে যেতে বসেছে। রাস্তাটি বন্ধ হয়ে গেলে এলাকাবাসীকে চরম ভোগান্তি পোহাতে হবে।

লক্ষণপাড়া বলাবান গ্রামের কৃষক মো. ওয়ারেজ আলী বলেন, একমাত্র রাস্তা ও পুকুরের গাইড ওয়াল না দেয়ায় যে কোনো সময় চলাচল বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

এ ব্যাপারে আড়ানগর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান আলী কমল বলেন, রাস্তা সংস্কার ও পুকুরের বাকি অংশে গাইডওয়াল নির্মাণের জন্য বিভিন্ন দপ্তরে জানানো হয়েছে। আশা করছি, রাস্তাটি সচল রাখার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এলজিইডি নওগাঁর ধামইরহাট প্রকৌশলী মো. আলী হোসেন বলেন, গাইডওয়াল নির্মাণ এবং আড়ানগর-কাশিপুর ভায়া বড়থা বাজার পর্যন্ত ২ হাজার ৮৭২ মিটার রাস্তা সংস্কারের প্রকল্প ঊর্ধ্বতন কর্ত"পক্ষের কাছে পাঠানো হয়েছে। প্রয়োজনীয় বরাদ্দ পেলে দ্রুত গাইডওয়াল নির্মাণ ও রাস্তা সংস্কার কাজ শুরু হবে।

এই জনপদ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj