শ্রমিক লীগেও নতুন নেতৃত্ব! সম্মেলন কাল

শুক্রবার, ৮ নভেম্বর ২০১৯

কাগজ প্রতিবেদক : আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতীম সংগঠন জাতীয় শ্রমিক লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আগামীকাল শনিবার। ওইদিন বেলা ১১টায় ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সর্বশেষ ২০১২ সালে শ্রমিক লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এ সম্মেলনে সৈয়দ শুক্কুর মাহমুদ সভাপতি ও সিরাজুল ইসলাম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। এরপর দীর্ঘ ৭ বছরে কোনো সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়নি।

এদিকে সম্মেলনকে কেন্দ্র করে শ্রমিক লীগ নেতাকর্মীদের মধ্যে উৎসাহ-উদ্দীপনা বিরাজ করছে। এবার সম্মেলনে সম্পূর্ণ নতুন নেতৃত্ব গঠন হবে। বাদ দেয়া হবে বর্তমান কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই বিভিন্ন মাধ্যম থেকে আগামী নেতৃত্ব নির্বাচনের প্রক্রিয়া শুরু করেন। কোনো বিতর্কিত ব্যক্তি যেন নেতৃত্বে না আসতে পারে, সে জন্য সতর্কতার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। যোগ্য নেতৃত্ব সন্ধানের দায়িত্ব দিয়েছেন আওয়ামী লীগের চার নেতা জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, বি এম মোজাম্মেল হক ও আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিমকে। দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই চার নেতা সম্ভাব্য প্রার্থীদের সম্পর্কে খোঁজখবর নিচ্ছেন। খোঁজখবর নিচ্ছে বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থাও।

এদিকে নতুন কমিটিতে পদ পেতে বিভিন্ন পর্যায়ে দৌড়ঝাঁপ করছেন পদপত্যাশীরা। তবে দলে যাদের অবদান আছে। ইতোপর্বে সংগঠনের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। ইমেজের দিক দিয়ে যারা স্বচ্ছ ও মেধাবী, এমন ব্যক্তিকেই কেন্দ্রীয় নেতৃত্বে আনা হবে বলে জানা গেছে। এবার যারা আলোচনায় রয়েছেন, তারা হলে- সভাপতি পদে জাতীয় শ্রমিক লীগের বর্তমান কার্যকরী সভাপতি ফজলুল হক মন্টু, সহসভাপতি ই¯্রাফিল আলম, হাবিবুর রহমান আকন্দ প্রমুখ। সাধারণ সম্পাদক পদে আলোচনায় আছেন তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবীব মোল্লা, জহিরুল ইসলাম চৌধুরীসহ বেশ কয়েকজন। আহসান হাবীব দীর্ঘদিন ধরে ঢাকা মহানগরীর দায়িত্ব পালন করে আসছেন। বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রামে প্রথম সারিতে থেকে নেতৃত্ব দেয়ায় সবার কাছে তার একটি পরিচিতি ও গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। তবে সভাপতি পদে একাধিক প্রার্থী থাকলেও সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য দৌড়ে অন্য কোনো প্রার্থীকে খুব একটা পাওয়া যায়নি। সংগঠনটির বর্তমান সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক আগামীতে কোনো পদ চান না। তবে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফের তাদের দায়িত্ব দিলে তা যথাযথভাবে পালন করবেন বলে জানান তারা।

প্রথম পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj