প্রধানমন্ত্রীর জন্য ব্যতিক্রমী মধ্যাহ্নভোজ

বৃহস্পতিবার, ৭ নভেম্বর ২০১৯

খেলা প্রতিবেদক : আগামী ২২ নভেম্বর ইডেন গার্ডেনে ভারতের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচে মাঠে নামবে টাইগাররা। এ ম্যাচ ঘিরে নানা পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি। ম্যাচটিকে স্মরণীয় করে রাখতে নানান উদ্যোগ নিয়েছে ভারতের ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা- বিসিসিআই এবং ক্রিকেট এসোসিয়েশন অব বেঙ্গল-সিএবি। যার অন্যতম বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আমন্ত্রণ জানানো। এরই মধ্যে সে আমন্ত্রণে সাড়া দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর আয়োজনকে বর্ণাঢ্য ও স্মরণীয় করে রাখতে ইডেন টেস্টের প্রথম দিন রাজকীয় মধ্যাহ্নভোজ আয়োজন করতে যাচ্ছে সিএবি। ম্যাচের প্রথম দিন টসের আগে থেকে শুরু করে কয়েক ঘণ্টা ইডেনে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে শেখ হাসিনার। আর এ সময়ের মাঝেই প্রায় ৫০ পদের রাজকীয় মধ্যাহ্নভোজের ব্যবস্থা করা হবে তার জন্য।

ভারত-বাংলাদেশের ঐতিহাসিক লড়াই প্রত্যক্ষ করার নিমন্ত্রণ পেয়েছেন কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান শচীন টেন্ডুলকার, রাহুল দ্রাবিড়সহ জীবিত প্রায় সব ভারতীয় অধিনায়ক। প্রথম টেস্ট খেলা টাইগার ক্রিকেটাররাও উপস্থিত থাকবেন। ম্যাচ উপভোগ করতে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি ও ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে সেখানে টেনে আনার চেষ্টা করছেন বিসিসিআই নয়া প্রেসিডেন্ট সৌরভ গাঙ্গুলি।

অতিথি অ্যাপায়নে রাজকীয় মধ্যাহ্নভোজনের আয়োজন করছে সিএবি। তাতে থাকছে ৫০ পদের খাবার। শুধু মধ্যাহ্নভোজ দিয়েই থামছে না শেখ হাসিনাকে আপ্যায়নের আয়োজন। তাকে উপহার দেয়ার জন্য আন্তর্জাতিক মানের বিশেষ পোশাক প্রস্তুতকারককে দিয়ে বানানো হচ্ছে নান্দনিক শাড়ি। সঙ্গে থাকবে শাল। এ ছাড়া বাংলার ঐতিহ্য মেনে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের পক্ষ থেকে দেয়া হবে নানা উপহার।

বোর্ড প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর মাত্র কয়েক দিনের মধ্যে বাংলাদেশ ও ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্টকে দিবা-রাত্রির টেস্ট খেলতে রাজি করান সৌরভ। এটি ছিল প্রথম চমক। ম্যাচ আয়োজনে তুমুল জাঁকজমক করে দ্বিতীয় চমকটা দিতে চাচ্ছে সিএবি। মুখ্য উদ্দেশ্য- টেস্ট থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়া দর্শকদের পাঁচ দিনের ফরম্যাটে মাঠে ফেরানো। ইতোমধ্যে খুশি হওয়ার উপলক্ষ পেয়ে গেছেন সৌরভ। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের খবর, ইতোপূর্বে অনলাইনে টিকেট বিক্রি শুরু হয়েছে। বিক্রির হার আশাতীত ভালো। কয়েক ঘণ্টাতেই প্রায় সব টিকেটই বিক্রি হয়ে গেছে।

এ টেস্টের টস হবে সোনার মুদ্রায়। এ জন্য নামি গহনা প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান কাজ করছে। অভ্যাগতদের স্মরণিকা হিসেবে দেয়া হবে রূপার মুদ্রা। ৬০টি বিশেষ টাইও তৈরি করা হচ্ছে ভিভিআইপি অতিথিদের জন্য। সব মিলিয়ে বাস্তবিক অর্থে নভেম্বর মাসের শেষ সপ্তাহে ঐতিহাসিক ঘটনার সাক্ষী হতে চলেছে টেস্ট ক্রিকেট।

কী থাকবে সেই মধ্যাহ্নভোজে? ভারতীয় দৈনিক এই সময়ের প্রতিবেদন মতে, গঙ্গার ইলিশ, পাবদা সর্ষে, ভেটকি পাতুরি, ডাব চিংড়ি- মাছের এই পদগুলো ছাড়াও দুই বাংলার প্রথামাফিক সব রকম জনপ্রিয় পদই থাকবে অতিথি আপ্যায়নে। যার মধ্যে থাকছে শুক্তো, আলু পোস্ত, ফুলকপির রোস্ট, ছানার ডালনাসহ অন্তত ৫০-এর বেশি পদ।

এ ছাড়া ভাত, রুটি, পোলাও, পায়েস, চাটনির মতো পদগুলো তো থাকছেই। যেসব অতিথির মাছ পছন্দ নয়, তাদের জন্য থাকবে মুরগি ও খাসির হরেক রকম পদ।

মঙ্গলবার সিএবি কর্তাদের সঙ্গে এ নিয়ে প্রাথমিক আলোচনা হয়েছে শহরের এক পাঁচ তারকা হোটেলের। মধ্যাহ্নভোজের চূড়ান্ত মেন্যু অবশ্য ঠিক করবেন বিসিসিআইয়ের নতুন সভাপতি ও সিএবির সাবেক প্রধান সৌরভ গাঙ্গুলি।

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj