গোলাপি বলের অপেক্ষায়

বৃহস্পতিবার, ৭ নভেম্বর ২০১৯

খেলা প্রতিবেদক : প্রথমবারের মতো গোলাপি বলে দিবা-রাত্রির টেস্ট ম্যাচ খেলতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ও ভারত। ক্রিকেট ইতিহাসের প্রথম দিবা-রাত্রির টেস্ট অনুষ্ঠিত হয় ২০১৫ সালের ২৭ নভেম্বর অ্যাডিলেডের ওভালে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের মধ্যে গোলাপি কোকাবুরা বলে। আর ২২-২৬ নভেম্বর কলকাতার ইডেন গার্ডেনে বাংলাদেশ-ভারত প্রথম ফ্ল্যাডলাইটের আলোয় টেস্ট খেলার অভিজ্ঞতা অর্জন করবে এসজি গোলাপি বলে। ম্যাচটিকে সামনে রেখে ইতোমধ্যে এসজি কোম্পানির ৭২টি বলের অর্ডার দিয়েছে বিসিসিআই।

চার বছর আগে টেস্ট ক্রিকেটে দিবা-রাত্রির ম্যাচ চালু হলেও তা খেলা হয়ে ওঠেনি বাংলাদেশ ও ভারতের। দুদলের সামনে এর আগে দিবা-রাত্রির টেস্ট ম্যাচ খেলার প্রস্তাব এলেও রাজি হয়নি তারা কেউই। নিউজিল্যান্ডের মাটিতে অনুষ্ঠেয় দুই টেস্টে ম্যাচের একটি দিবা-রাত্রির আয়োজন করতে চেয়েছিল নিউজিল্যান্ড। নিউজিল্যান্ডের সে প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছিল বাংলাদেশ। সাদা পোশাকে ১৯ বছরেরও কিছু বেশি সময়ের পথ চলায় বাংলাদেশ যেমন গোলাপি বলে খেলেনি, তেমনি ৮৭ বছরের সাদা পোশাকের অভিজ্ঞতায় পুষ্ট ভারতও খেলেনি। সবকিছু ঠিক থাকলে এই ম্যাচটি দিয়েই দিবা-রাত্রির টেস্ট যাত্রা শুরু হবে উপমহাদেশের প্রতিবেশী এই দুই দলের। কিন্তু সমস্যাটা অন্য জায়গায়। ঐতিহাসিক এই ম্যাচটিকে সামনে রেখে দুই দলের কেউই এখনো লাল বলের প্রস্তুতিই শুরু করতে পারেনি। তার পেছনে অবশ্য কারণও আছে। টি-টোয়েন্টি সিরিজের ব্যস্ততায় দুদলের কারোরই সেই সুযোগ হয়ে উঠছে না মোটেই। তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি শেষে ইন্দোরে গড়াবে সিরিজের প্রথম টেস্ট। প্রথম টেস্ট ম্যাচটি যথারীতি অনুষ্ঠিত হবে লাল বলেই। সেই ম্যাচ শেষে দিন কয়েকের যে বিরতি থাকবে সেই বিরতিতেই গোলাপি বলের প্রস্তুতি সারবে দুই দল।

গোলাপি বলে ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা বাংলাদেশের নেই বললেই চলে। ৬ বছর আগে ২০১৩ সালে বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগের (বিসিএল) ফাইনাল ম্যাচ হয়েছিল দিবা-রাত্রির। ঘরোয়া ক্রিকেটে বাংলাদেশ গোলাপি বলে খেলেছে ওই একটি ম্যাচ। ভারতও কখনো খেলেনি গোলাপি বলে। মাহেন্দ্র সিং ধোনী অধিনায়ক থাকার সময় বরাবরই গোলাপি বলে খেলার প্রস্তাব বিনাবাক্যে ফিরিয়ে দিতেন। এবার সৌরভ গাঙ্গুলি ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান হবার পর অধিনায়ক বিরাট কোহলির সঙ্গে প্রথম আলোচনাতেই আসে গোলাপি বল প্রসঙ্গ। বাংলাদেশকেও দেয়া হয় খেলার প্রস্তাব। বলের ওজন এবং আকৃতি একই, পার্থক্য শুধু রংয়ে। আর এই রংয়ের কারণেই ব্যাটিং কৌশল নিয়েই নতুন কিছু চিন্তা করতে হচ্ছে ব্যাটসম্যানদের। বাংলাদেশের টেস্ট দলের ক্রিকেটারদের কাছে আগ্রহ এবং রোমাঞ্চের নতুন নাম- গোলাপি বল! টাইগারদের কোচ রাসেল ডমিঙ্গো গোলাপি বলের টেস্ট ম্যাচ খেলা নিয়ে ভীষণ রোমাঞ্চিত। বিসিবি ও শিষ্যদের সম্মতির পরই গণমাধ্যমের সামনে ডমিঙ্গো বলেন, এটা আমাদের জন্য বিশাল সুযোগ। দুই দলের কেউই দিবা-রাত্রের টেস্ট খেলেনি। সেদিক থেকে প্রস্তুতি সবারই সমান সমান। গোলাপি বলে খেলতে আমরা ভীষণ রোমাঞ্চিত।

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj