দেশ গঠনে শিক্ষকের ভূমিকা

বৃহস্পতিবার, ৭ নভেম্বর ২০১৯

একজন শিক্ষকই সমাজে নৈতিকতা, মূল্যবোধ ও মনুষত্ব প্রতিষ্ঠা করতে অধিক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। শিক্ষকের সীমাহীন ত্যাগ, শ্রম ও মেধার কারণেই আমরা আজ সভ্যতার উন্নত শিখরে উন্নীত হয়েছি। শিক্ষকই তার শিক্ষার মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থীকে পূর্ণতা দান করেন। প্রকৃত শিক্ষকের সংকটের কারণেই আজ তরুণ সমাজ বিপথগামী।

শিক্ষক দুই ধরনের। একজন নামধারী (চাকরিজীবী) এবং অপরজন গুণধারী। আজকের সমাজে নামধারী শিক্ষকের পরিমাণ অনেক থাকলেও গুণধারী শিক্ষকের পরিমাণ খুবই নগণ্য। নামধারী (চাকরিজীবী) শিক্ষকদের অবহেলা এবং অনীহার কারণে সমাজ সভ্যতায় গতিশীলতা স্থির হয়ে পড়েছে এবং প্রতিক্রিয়াশীলতার বিস্তার ঘটছে। আর এর দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতির প্রভাব পড়ে আমাদের পরিবার, সমাজ, রাষ্ট্রে এবং এর ভোক্তভোগী আমরাই। শিক্ষক শুধু রুটিরুজির জন্যই শেখাবেন না। তিনি শেখাবেন আলোকিত মানুষ গড়ার জন্য, আলোর স্ফুলিঙ্গ ছড়িয়ে দিতে। একজন শিক্ষককে মনে রাখতে হবে তিনি সমাজ-সভ্যতাকে যত বেশি আলোকিত করবেন, বিকশিত করবেন, সমৃদ্ধশালী করবেন, অনাগত ভবিষ্যৎ ততটাই বিকশিত, আলোকিত হবে। যে শিক্ষক নিজেকেই বিকশিত করতে পারেন না, আলোর জগৎ ও মুক্তচিন্তার জগতে নিজেকে যুক্ত করতে পারেন না, তিনি অন্যকেও বিকশিত করতে পারে না, আলোকিত করতে পারেন না। তার শিক্ষায় সমাজে বন্ধ্যত্ব তৈরি হয়।

সভ্যতার শুরু থেকে আমরা দেখি শিক্ষকদের নিরলস প্রচেষ্টা কীভাবে শত প্রতিক‚লতা, বাধা-বিপত্তিকে উপেক্ষা করে সত্যকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। শিক্ষক শেখান সত্যকে প্রতিষ্ঠা করার জন্য জীবন দিতে হয়, মিথ্যাকে প্রতিষ্ঠা করার জন্য নয়। শুধু শ্রেণিকক্ষে পড়ানোই শিক্ষকের কাজ নয়। একজন ছাত্রের শারীরিক, মানসিক, সামাজিক বিকাশে শিক্ষক প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ ভূমিকা পালন করবেন। একদল শিক্ষককে দেখা যায় তার সব কিছু বিকিয়ে দিয়ে শুধু টাকার পিছনে ছুটছেন। আর এভাবেই শুরু হয় সামাজিক অধঃপতন ও অবক্ষয়। শিক্ষক শিক্ষার্থীদের মধ্যে চেতনাবোধ গড়ে তুলবেন, জাগ্রত করবেন আর তা করতে না পারলে তিনি শিক্ষক হতে পারেন না। শিক্ষক এবং শিক্ষার যে সংকট চলছে তা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। আর এর জন্য প্রয়োজন রাষ্ট্রীয় উদ্যোগ, শিক্ষকদের সহযোগিতা এবং সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন। সমাজ-সভ্যতাকে এগিয়ে নিতে হলে প্রকৃত শিক্ষকের পরিসর বৃদ্ধি করতে হবে। শিক্ষকদের নিজেদের মধ্যেও শিক্ষার সংগ্রামকে অব্যাহত রাখতে হবে। তবেই আমরা আগামীর একটি সুখী-সমৃদ্ধ দেশ গঠন করতে পারব, আলোকিত মানুষ পাব বলে বিশ্বাস করি।

সুধীর বরণ মাঝি

শিক্ষক, হাইমচর সরকারি মহাবিদ্যালয়, চাঁদপুর।

মুক্তচিন্তা'র আরও সংবাদ
মুহম্মদ জাফর ইকবাল

ধূসর আকাশ, বিষাক্ত বাতাস

অধ্যাপক ড. অরূপরতন চৌধুরী

আসুন, পরিবারকে ডায়াবেটিসমুক্ত রাখি

ফাহিম ইবনে সারওয়ার

গভীর সংকটে জাবি

মাহফুজা অনন্যা

আবারো আবরারের অপমৃত্যু!

Bhorerkagoj