চলতি মাসেই কাজ শুরু : বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত হবে রাঙ্গাবালী

বুধবার, ৬ নভেম্বর ২০১৯

কামরুল হাসান রুবেল, রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী) থেকে : চট্টগ্রামের সমুদ্রবেষ্টিত দুর্গম উপজেলা স›দ্বীপ বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত হলেও পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলা এখনো বিদ্যুৎহীন। তবে দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর অবশেষে বিদ্যুৎ সংযোগের আওতায় আসছেন রাঙ্গাবালী উপজেলার ১০৭ গ্রামের প্রায় দুই লাখ মানুষ। জাতীয় গ্রিডের বিদ্যুতের সঙ্গে এ উপজেলাকে যুক্ত করার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। এ মাসের মধ্যেই শুরু হবে বিদ্যুতের খুঁটি স্থাপন ও লাইন টানার কাজ। সাংবাদিকদের এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সেলিম মিয়া।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে পল্লী বিদ্যুতায়ন উপলক্ষে রাঙ্গাবালী উপজেলা পরিষদে আলোচনা সভা ও মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন পটুয়াখালী-৪ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ মহিবুর রহমান মহিব। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সেলিম মিয়া, পটুয়াখালী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার মনোহর কুমার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাশফাকুর রহমান। উপস্থিত ছিলেন- রাঙ্গাবালী প্রেসক্লাব সভাপতি মো. জোবায়ের হোসেন, সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান রুবেল প্রমুখ।

জানা গেছে, পটুয়াখালী জেলার সাগরবেষ্টিত একটি অবহেলিত জনপদ রাঙ্গাবালী। উপজেলা ঘোষণার পর ৮ বছর পেরিয়ে গেলেও এখানে বিদ্যুৎ আসেনি, নির্মিত হয়নি হাসপাতাল। যার কারণে স্থানীয় লোকজন সারাদেশের তুলনায় অনেক পিছিয়ে রয়েছে। গত ৩১ ডিসেম্বর জাতীয় নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর অধ্যক্ষ মহিবুর রহমান মহিব ও রাঙ্গাবালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাশফাকুর রহমান বিদ্যুৎ সরবরাহ ও হাসপাতাল নির্মাণের জন্য উদ্যোগ নেন। এরপর দীর্ঘ সময় চিঠি চালাচালি ও গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর বিষয়টি আমলে নেয় কর্তৃপক্ষ। ইতোমধ্যে রাঙ্গাবালীতে পল্লী বিদ্যুতের একটি সাব-স্টেশন করার লক্ষ্যে স্থান পরিদর্শন করেছেন বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের একটি টিম। এ মাসের মধ্যেই বিদ্যুতের পিলার স্থাপন ও লাইন টানার কার্যক্রম শুরু হবে। ভোলা থেকে পিলার ও তারের মাধ্যমে রাঙ্গাবালী সাব-স্টেশনে বিদ্যুৎ আনা হবে। এরপর ওই সাব-স্টেশন থেকে উপজেলার চারটি ইউনিয়ন অর্থাৎ রাঙ্গাবালী সদর, ছোটবাইশদিয়া, বড়বাইশদিয়া ও মৌডুবিতে সংযোগ দেয়া হবে। এ ছাড়া বাকি দুটি ইউনিয়নের মধ্যে চর মোন্তাজ ইউনিয়নে চর কাজল-চর বিশ্বাস আর চলিতাবুনিয়া ইউনিয়নে গলাচিপা উপজেলা থেকে সংযোগ দেয়া হবে। ২০২০ সালের মধ্যে পুরো উপজেলা বিদ্যুতায়নের কাজ শেষ হবে বলে জানিয়েছে পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ।

পটুয়াখালী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার মনোহর কুমার বিশ্বাস জানান, চারদিকে নদীবেষ্টিত এই উপজেলাকে বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত করার লক্ষ্যে আমরা কার্যক্রম শুরু করেছি। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের একটি টিম সাব-স্টেশনের জায়গা পরিদর্শন করেছেন। রাঙ্গাবালীতে বিদ্যুতের সংযোগ দিতে ২০২০ সাল পর্যন্ত সময় লাগবে।

প্রথম পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj