আপনার কাজের সময়

রবিবার, ৩ নভেম্বর ২০১৯

আপনি একজন সফল উদ্যোক্তা অথবা একজন চাকরিজীবী। আপনি নিয়মিত কাজ করে যাচ্ছেন। অন্যদের মতোই সবার কাজ একদম শিডিউল মেনেই হয়। কিন্তু সমস্যাটা পরবর্তীতে হয় এই শিডিউল মেলাতে গিয়েই। কারণ হয়ত আপনি সঠিকভাবে আপনার ক্যালেন্ডার মেনে চলছেন না। মানে হচ্ছে সময়ের কাজ সময়ে হয়ে উঠছে না। কিন্তু কেন এই সমস্যা হচ্ছে? কারণ আপনি সঠিকভাবে ক্যালেন্ডার মেনে চলছেন না!হাতে যথেষ্ট সময় নেই : যখনই হাতে কোনো কাজ আসে তখনই বলেন হাতে সময় নেই। প্রচুর ব্যস্ত থাকেন। কিন্তু দিনশেষে সে ব্যস্ততার ফলাফলও মেলে না। কাজও ঠিকঠাক শেষ হয় না। শেষ মুহূর্তে এসে কাজের শিডিউল এলোমেলো হয়ে যাওয়া, সময়মত কাজ জমা দিতে না পারা এমন অনেক সমস্যা দেখা দেয়। এই বিষয়টি নিয়ে লেখক জ্যাকসন ব্রাউন জুনিয়রের একটি মন্তব্য আছে। তিনি বলেন, ‘কাজকে না করতে নেই। কখনো বলা যাবে না হাতে সময় নেই। আপনি ঠিক ততটাই সময় পান যতটা পেয়েছিলেন হেলেন কিলার, মাইকেল এঞ্জেলো, মাদার তেরেসা, লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চি, থমাস জেফারসন, আলবার্ট আইনস্টাইন। তাহলে তারা যদি নিজেদের কাজ নিয়ে এতটা বিখ্যাত হয়ে উঠতে পারেন আপনি কেন পারবেন না?’ কাজ নিয়ে অভিযোগ করার বদলে সময়কেই কাজে লাগিয়ে দেখুন। অন্যদের চাইতে আপনি কিন্তু সময় কম পাচ্ছেন না। সময়ের হিসাবটা একটু মিলাতে বসুন।

সময় নিয়ে সচেতন নন : কিছু মানুষ আছেন তারা সব কাজেই দেরি করেন। অফিস যেতে দেরি, কাজ করতে দেরি, কাজ জমা দিতে দেরি, মিটিংয়ে দেরি। এই ব্যাপারগুলো তারা খুব একটা আমলে নেন না। তাদের ধারণা কাজ তো হচ্ছেই, সে দেরি করে হলেও। এটা খুব ভুল একটা ধারণা। যে কোনো প্রতিষ্ঠানেই আপনি কাজ করতে যান না কেন সবার আগে সচেতন হতে হবে সময় নিয়ে। কারণ সময়মত সব কাজ করলে যেমন প্রশংসা মিলবে তেমনই কাজেও অগ্রগতি হবে।

শেষ কবে ক্যালেন্ডার দেখেছেন : হ্যাঁ কাজ সঠিকভাবে সম্পন্ন না হওয়ার এটাও একটা কারণ। আপনার মনেই নেই শেষ কবে আপনি ক্যালেন্ডার দেখেছিলেন। তাই রোজ সকালে ঘুম থেকে উঠে আগে ক্যালেন্ডারটা ভালো করে দেখে নেবেন। কী একটু অবাক লাগছে শুনতে? লাগুক! কোনো ক্ষতি নেই এতে! যে কোনো প্রস্তুতিই সব সময় আত্মবিশ্বাস বাড়ায়। ধরুন, সকালে আপনার ক্লায়েন্টের সঙ্গে যে মিটিংটা ছিল সেটা বদলে অন্য একটা মিটিং ঠিক হয়েছে। কিন্তু অনেক কাজের ভিড়ে সেটি আপনি ভুলেই গেছেন। ফলাফল, কাজে এলোমেলো অবস্থা। কিন্তু এই তথ্যটি যদি ঘুমানোর আগে আপনি ক্যালেন্ডারে মার্ক করে রেখে সকালে উঠে দেখেন তাহলে কিন্তু আর খুব বেশি ভাবতে হয় না। একদম প্রস্তুত হয়েই আপনি যথা সময়ে মিটিংয়ে চলে যেতে পারছেন।

কোনো অনুরোধ ফেলতে পারেন না : অফিস শেষে কোনো দাওয়াতের জন্য বেশ আগে থেকেই শিডিউল রেডি করা আপনার। আর ঠিক যাওয়ার মুহূর্তেই হাতে কাজ চলে আসল। কী করবেন তখন? হ্যাঁ কাজ অবশ্যই জরুরি তবে আগে থেকে ঠিক করে রাখা দাওয়াতটাও গুরুত্বপূর্ণ। কলিগ বা ম্যানেজার যিনিই হোক তাকে বুঝিয়ে বলুন এ বিষয়ে। তাকে জানান দাওয়াত আপনি আগে থেকে শিডিউল করে রেখেছিলেন এবং আপনি আপনার বাকি সব কাজ সঠিকভাবে সম্পন্ন করেই বের হচ্ছেন। পরদিন এসে কাজটি আপনি করে দেবেন বলেও নিশ্চিত করুন।

ফ্যাশন (ট্যাবলয়েড)'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj