সামনের দিকে এগিয়ে যেতে চাই

শনিবার, ২ নভেম্বর ২০১৯

গৃহিণীদের প্রথম রিয়েলিটি শো ‘সিলন সুপার সিঙ্গার’। সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হওয়া এই প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন খুলনার দীপ্তি সরকার। ভোরের কাগজের মুখোমুখি হয়েছিলেন তিনি। সঙ্গে ছিলেন রাব্বানী রাব্বি

গানের প্রতি টান

টিভিতে একটা বিজ্ঞাপন দেখে প্রথম জানতে পারি ‘সিলন সুপার সিঙ্গার’ সম্মন্ধে। গান গাইব ছোটবেলায় এ রকম একটা ইচ্ছে ছিল, সেই ইচ্ছে থেকেই রেজিস্ট্রেশন করি। রেজিস্ট্রেশন করার পর অডিশনের জন্য ডাক পাই। এভাবেই এই প্ল্যাটফর্মের সঙ্গে যুক্ত হই।

পরিবারে খুদে শিল্পী

ছোটবেলাই যখন গান করতাম তখন সেই অর্থে স্টেজ পারফরমেন্স করার সুযোগ খুব বেশি পাইনি। কিন্তু আমার বয়স যখন চার বা সাড়ে চার বছর হবে, তখন থেকেই হারমোনিয়াম শিখতে শুরু করি। আমাদের ধর্মীয় উৎসবগুলোতে গানের যেসব আয়োজন থাকত, সেই সব প্রোগ্রামে গান গাইতাম। বড় মামার সঙ্গে প্রথম গান গেয়েছিলাম এক পূজার প্রোগ্রামে। বড় মামা হারমোনিয়াম বাজিয়েছিলেন, আমি গান গেয়েছিলাম। তা ছিল আমার জীবনে প্রথম দর্শকের সামনে গান গাওয়া। মজার বিষয়, ওই দিন থেকে পরিবারের সবাই আমাকে ‘ক্ষুদে শিল্পী’ বলে ডাকতে শুরু করল।

হারমোনিয়ামে হাতেখড়ি

গানের প্রতি আমার এমন আগ্রহ দেখে বড় মামা সবসময় আমাকে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন। তিনি আমার সঙ্গীতগুরু। তার কাছেই হারমোনিয়াম শেখার হাতেখড়ি। ছোটবেলায় ইচ্ছে ছিল শিল্পী হবো, গান করব। কিন্তু সেই পথচলাটা এক পর্যায়ে আমার আর হয়ে উঠেনি। তবে সুযোগ পেলেই হারমোনিয়াম নিয়ে বসতাম, রেওয়াজ করতাম, এখনো করি। যেহেতু আবার শুরু করেছি, আমি চাইছি এই পথচলাটাকে আরো সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাব। দেখা যাক কী হয়!

আধুনিক গান

যেহেতু আমরা হিন্দু পরিবার, সেই হিসেবে ছোটবেলায় ধর্মীয় গানগুলো বেশি শোনা হতো। শ্যামা সঙ্গীত শুনতাম। তারপর লতা মঙ্গেশকর, আশা ভোঁসলে, সাবিনা ইয়াসমিন, রুনা লায়লা, শাহনাজ রহমতুল্লাহ; তাদের গান শুনে বড় হয়েছি। আধুনিক গানের প্রতিই আমার ঝোঁক বেশি।

সিলন সুপার সিঙ্গার

গ্র্যান্ড ফিনালে শেষ পর্যন্ত আমরা টপ ফাইভ বা তার আগে এগারো জন ছিলাম। এই পর্যায়ে এসে সবারই হয়তো কমবেশি ইচ্ছে হয় যে, আমি বিজয়ী হবো বা চ্যাম্পিয়ন হবো। কিন্তু আমি যে ‘সিলন সুপার সিঙ্গার’ হবো তা কখনো ভাবিনি। শুরু থেকেই ভাবতাম, আমাকে সেরা হতেই হবে এমন কোনো কথা নেই। শেষে টপ টেনে আসার পর মনোযোগ ছিল, আমি কতটুকু ভালো গেয়ে দর্শকদের মনে জায়গা করে নিতে পারি। আমাকে যে চ্যাম্পিয়নশিপ পেতেই হবে তেমন ভাবনা ছিল না। তবে আমি চ্যাম্পিয়ন হয়েছি তা আমার ভাগ্য, আর দর্শকদের সবার আশীর্বাদেই তা সম্ভব হয়েছে।

মেলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj