ট্রেন্ডমিল রেখে শার্ট ডিজাইন…

রবিবার, ২৭ অক্টোবর ২০১৯

আশরাফুল ইসলাম রানা

আদতে পরিচিত শার্টগুলোই রং, নকশা আর কাটের পরিবর্তনে পাচ্ছে নতুন নতুন চেহারা। গতানুগতিক সূ² কিছু পরিবর্তনেই একই চেহারার শার্টে লাগছে আধুনিকতার ছোঁয়া। বহির্বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে ম্যাচিং কালার আউটফিট, কন্ট্রাস্ট কালার আউটফিট শার্টের ক্যানভাসকে দিয়েছে নতুন ট্রেন্ডের সন্ধান! তাই বলা যায়, বৃষ্টি- গরমের এই মৌসুমে ডিজাইন মিল রেখে তৈরি এসব হাফ হাতা শার্টের কদরও বেশ বাড়তিই!

আন্তর্জাতিক ফ্যাশনের আঙিনায় বদলেছে সাবেকি চিন্তাভাবনা। ছেলেদের সব ধরনের পোশাকেই উঁকি মারছে বিচিত্র্যতা। এদিক দিয়ে গরমের মৌসুমে বাদ পড়েনি শার্টও! দৈনন্দিন জীবনযাত্রায় ছেলেদের জন্য সব সময়ই ফ্যাশনে ‘ইন’ ফুল ¯িøভ বা হাফ ¯িøভ শার্ট। আদতে পরিচিত শার্টগুলোই রং, নকশা আর কাটের পরিবর্তনে পাচ্ছে নতুন নতুন চেহারা। গতানুগতিক সূ² কিছু পরিবর্তনেই একই চেহারার শার্টে লাগছে আধুনিকতার ছোঁয়া।

বহির্বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে ম্যাচিং আউটফিট, ম্যাচিং কালার আউটফিট, কন্ট্রাস্ট কালার আউটফিট শার্টের ক্যানভাসকে দিয়েছে নতুন ট্রেন্ডের সন্ধান! তাই বলা যায়, বৃষ্টি গরমের এই মৌসুমে ডিজাইন মিল রেখে তৈরি এসব হাফ হাতা শার্টের কদরও বেশ বাড়তিই!

আধুনিকতার সঙ্গে ফ্যাশনের সরাসরি সম্পর্ক আছে। তাই ফ্যাশন পরিবর্তনের প্রভাব পড়ে পোশাকেও। আর সে কারণেই দশক বা শতাব্দীর বিভাজনে পোশাকে এসেছে বৈচিত্র্য। মূলত নিজেকে পরিপাট রাখার জন্য পছন্দসই ও সমকালীন ট্রেন্ড-নির্ভর পোশাক চাই। বলা যায়, পুরুষের ফরমাল শার্টের ড্রেসআপ অফিসিয়াল পোশাক হলেও এটি এখন দৈনন্দিন পোশাকের রূপ নিয়েছে।

বলা যায় শার্ট, ডিজাইনারদের জন্য এক সাদা ক্যানভাস। ছেলেদের ফ্যাশন বলুন আর ব্যক্তিত্বই বলুন সবকিছুই ফুটে ওঠে শার্টের মাধ্যমে। তবে সবসময় ফরমাল অভিব্যক্তির বাইরে ক্যাজুয়াল লুকও আপনাকে দিবে প্রশান্তি।

এক্ষেত্রে একই প্রিন্টের বা রঙের শার্ট, কালার ম্যাচিং আউটফিটের ক্ষেত্রে দেয় নতুনত্ব। ম্যাচিং প্রিন্টের পোশাক ক্যাজুয়ালি ক্যারি করা গেলেও ফরমালের জন্য ম্যাচিং কালার বেছে নেওয়া শ্রেয়। কোনো অনুষ্ঠানে উপস্থিতির বেলায় প্রেমিক যুগল ম্যাচিং কালার বেছে নেয় বেশি। তবে আজকাল হাই ফ্যাশন এবং স্ট্রিট স্টাইলে নিজস্ব আউটফিটে এনেছে নতুন মাত্রা।

ম্যাচিং কালার থেকে বেরিয়ে যোগ করেছে কালার কন্ট্রাস্ট আর নানান থিম যেমন- রেট্রো, রোম্যান্টিক, ক্ল্যাসিক কিউট স্পোর্টি শিক, করপোরেট।

রেট্রো স্টাইলের পোশাক যেমন- সত্তর, আশি, নব্বইয়ের দশকের পোশাক যা স্ট্রিট স্টাইলে জনপ্রিয়।

ম্যাচিংয়ের ক্ষেত্রে বেছে নিতে পারেন একই প্রিন্টের টি-শার্ট, যেমন সাদা-কালো বা নীলের কন্ট্রাস্ট একই রকম ফ্লোরাল প্রিন্টের শার্ট।কিংবা কোনো এক রঙকে প্রাধান্য দেওয়া সাথে প্রিন্টের মিল রেখে শার্টের ক্যানভাস রাঙানো। তাই বলা যায়, লাইফস্টাইলে ট্রেন্ডি থাকতে নতুন ডিজাইন বা কাটের ম্যাচিং ক্যাজুয়াল শার্ট ছাড়া আপনার ওয়ারড্রোব যেন বেমানান!

শার্ট তৈরির ইতিকথা

পুরুষ মানেই শার্ট প্যান্ট চাই-ই। কিন্তু মজার ব্যাপার সময়ের এ জনপ্রিয় শার্ট মধ্যযুগে শুধুই রাতে ঘুমানোর পোশাক হিসেবেই ব্যবহার করা হতো। তখনকার শার্টে কলার বা কাফ কিছুই ছিল না। শুধু সামনে বোতামের সাহায্যে গায়ের সঙ্গে আটকানো থাকত।

তবে শার্টে কলার কাফ যুক্ত হওয়ার পাশাপাশি এর আকার এবং ধরনে পরিবর্তন আসে আঠারো শতকের দিকে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পরে শার্টে ব্যাপক পরিবর্তন আসে। শার্টের সামনে পুরোটাজুড়ে বোতাম ব্যবহারের চল বাড়ে। তবে শার্টে ১৯৬০ সালের দিকে প্রথম বুক পকেটযুক্ত করার ফ্যাশন চালু হয়। যদিও এখন ¯িøম ও ট্রিম ফিট শার্টের প্যার্টানে বুক পকেট ব্যবহার না করার ট্রেন্ড এখন সমকালীন ফ্যাশন। তবে হাফ বা খাটো হাতার শার্টের প্রচলন শুরু হয় শার্ট আবিষ্কারেরও বিশ বছর পরে।

ফ্যাশন (ট্যাবলয়েড)'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj