আগামী বছর যে ১০ শহরে আপনার যাওয়া উচিত

শনিবার, ২৬ অক্টোবর ২০১৯

কাগজ ডেস্ক : জার্মানির বন শহর স্থান করে নিয়েছে সেই তালিকায়। ট্রাভেল গাইড ‘লোনলি প্ল্যানেট’ ২০২০ সালে ভ্রমণ করা উচিত এমন ১০ শহরের তালিকা প্রকাশ করেছে। চলুন দেখে নিই কোন কোন শহর রয়েছে সেখানে

সালৎসবুর্গ, অস্ট্রিয়া

যদিও ভিয়েনা আর মিউনিখের জনপ্রিয়তা অনেক সময় সালৎসবুর্গকে আড়াল করে ফেলে, ট্রাভেল গাইড ‘লোনলি প্ল্যানেট’ শহরটিকে ‘হৃদয় চুরি করা এক আলপাইন শহর’ হিসেবে আখ্যা দিয়েছে। আগামী বছর সেখানে যাওয়ার কারণ হতে পারে সালৎসবুর্গ উৎসবের শতবর্ষ পূর্তি। শহরটির ঐতিহাসিক কেন্দ্রে এই উপলক্ষে নানা প্রদর্শনী এবং অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে।

ওয়াশিংটন ডিসি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

আগামী বছর ওয়াশিংটনে ‘উনিশতম সংশোধনীর’, যা নারীকে ভোটাধিকার দিয়েছিল, শততমবার্ষিকী পালন করবে। এই উপলক্ষে অনেক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে সেখানে। পাশাপাশি শহরটির পুনরুজ্জীবিত ‘ওয়াটারফ্রন্ট’ আর বৈচিত্র্যময় খাবারের আয়োজনও পর্যটকদের মুগ্ধ করবে।

কায়রো, মিসর

কায়রোর ‘গ্রান্ড ইজিপশিয়ান মিউজিয়াম’ আগামী বছর পর্যটকদের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হবে। সেখানে স্থায়ীভাবে রাজা তুতানখামুনের সমাধিস্থ ধন-সম্পদ প্রদর্শন করা হবে। মিসরের অন্যান্য শহর থেকে এই শহর এবং সংলগ্ন পিরামিডগুলো ভ্রমণ করাও সহজ হবে, কেননা সেখানে নতুন একটি অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দরও চালু করা হচ্ছে।

গ্যালওয়ে, আয়ারল্যান্ড

লোনলি প্ল্যানেটের ভাষায় ‘উজ্জ্বলভাবে বোহেমিয়ান’ শহর গ্যালওয়ে চমৎকার সব পানশালার জন্য বিখ্যাত। যারা আয়ারল্যান্ডে ঘুরতে যান, তাদের কাছে সবসময়ই এক বিশেষ আকর্ষণ এই শহর। ২০২০ সালে এই শহর হবে ইউরোপের একটি সাংস্কৃতিক রাজধানী। ফলে সারা বছরই সেখানে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক উৎসবের আয়োজন করা হবে।

বন, জার্মানি

রাজধানীর মর্যাদা হারানোর পর বন অনেক মানুষের ভ্রমণের তালিকা থেকে হারিয়ে গেছে। তবে আগামী বছর শহরটির প্রতি মানুষের আগ্রহ আবারো বাড়বে। বনে জন্ম নেয়া সুরস্রষ্টা লুডভিগ ফান বেটোফেনের ২৫০তম জন্মবার্ষিকী বড় করে পালন করার উদ্যোগ নিয়েছে শহর কর্তৃপক্ষ। তবে বেটোফোনের বাড়ি ঘুরে দেখা ছাড়াও রাইন নদীর পাড় ধরে ঘুরে বেড়াতেও পছন্দ করেন অনেক পর্যটক।

লা পাস, বলিভিয়া

বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্যাবল কার নেটওয়ার্ক তৈরি করে ইতোমধ্যে আলোচনায় চলে এসেছে বলিভিয়ার লা পাস। দেশটির সরকারি রাজধানী শহরটিতে পর্যটকের ভিড় ক্রমশ বাড়ছে।

কোচি, ভারত

ভারতের দক্ষিণাঞ্চলের নিরিবিলি এই শহরে নতুন এবং পুরাতনের চমৎকার সংমিশ্রণ ঘটেছে। কোচি যেমন পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তি ব্যবহারে অনেক এগিয়ে গেছে, তেমনি অতীতের স্বকীয়তাও ধরে রেখেছে। এক সময় আরব সাগরের রানি হিসেবে পরিচিত এই শহর মসলার জন্য বেশ গুরুত্বপূর্ণ ছিল এবং ব্রিটিশ, ডাচ ও পর্তুগিজরা নানা সময় শহরটি দখলে রেখেছিল।

ভ্যানকুভার, কানাডা

সমুদ্র এবং পাহাড়ের মাঝখানে থাকা ভ্যানকুভ্যার শহরও বেশ পরিবেশবান্ধব। গ্রিনপিসের জন্মস্থানে সাইকেল চালানো এবং হাঁটার জন্য রয়েছে বিস্তৃত সড়ক নেটওয়ার্ক।

দুবাই, সংযুক্ত আরব আমিরাত

২০২০ সালে দুবাইয়ে বেশি কয়েকটি বড় প্রকল্প উদ্বোধন করা হবে। এর মধ্যে সবার উপরে রয়েছে ৬ মাসব্যাপী এক বিশ্ব বাণিজ্যমেলা, যেখানে বিশ্বের ১৯০টি দেশ স্থায়িত্ব এবং গতিশীলতার নানা মডেল উপস্থাপন করবে। আর সেখান থেকে মাত্র দুই মাইল দূরে সমুদ্র উপক‚লে এক কৃত্রিম দ্বীপে ইউরোপীয় থিমে তৈরি ফ্যান্টাসি রিসর্টও পর্যটকদের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হবে।

ডেনভার, কলোরাডো, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

তরুণ এবং উঠতি শহর ডেনভার সংস্কৃতিপ্রেমীদের জন্য এক আদর্শ স্থান। শহরটির প্রতি পর্যটকদের আকর্ষণ ক্রমশ বাড়ছে।

দূরের জানালা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj