আদমদীঘি-আবাদপুকুর সড়কের বেহালদশা : সংস্কারের বছর না ঘুরতেই কার্পেটিং উঠে যানচলাচলে বিঘ্ন

সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯

মুনজুরুল ইসলাম মুনজু, আদমদীঘি (বগুড়া) থেকে : সংস্কারের বছর না ঘুরতেই আদমদীঘি-আবাদপুকুর সড়কের বেহাল অবস্থা। সাড়ে ৪ কিলোমিটার এই সড়কের বিভিন্ন জায়গায় কার্পেটিং উঠে গিয়ে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। আদমদীঘি বাজার থেকে পারইল পর্যন্ত সড়কটির বিভিন্ন স্থানে ভেঙে গিয়ে গর্ত ও কোথাও কোথাও দেবে গিয়ে যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন ঘটছে। আবাদপুকুর কালীগঞ্জ এলাকার একমাত্র এই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার যানবাহন চলাচল করছে ঝুঁকি নিয়ে। যে কোনো সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা।

জানা যায়, গত ২০১৮ সালের শেষে এ সড়কের সংস্কার কাজ শুরু করে মেসার্স এমএম বিল্ডার্স নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। আদমদীঘি থেকে আবাদপুকুর পর্যন্ত এই ১৫ কিলোমিটার সড়কের মধ্যে সাড়ে ৪ কিলোমিটার অংশ আদমদীঘি উপজেলার। আদমদীঘি উপজেলা প্রকৌশলী তথ্য সূত্রে জানা গেছে, এই সাড়ে ৪ কিলোমিটার সড়ক উন্নত ও টেকসই করার লক্ষ্যে এর নির্মাণ ব্যয় হয়েছে ১ কোটি ৮২ লাখ টাকা। এ ছাড়া এই সাড়ে ৪ কিলোমিটার ১২ ফিট প্রস্থের সড়কটি ১৮ ফিটে উন্নীত করার কথা থাকলে তা করা হয়নি। কোথাও কম কোথায় বেশি প্রশস্ত। নামমাত্র পিচ ব্যবহার করে এবং পুরনো বালি সুড়কি দিয়েই দায় সারাভাবে সংস্কার কাজ করেই বিদায় নিয়ে চলে যায় সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। এলাকাবাসীর অভিযোগ, সড়কের সংস্কার কাজ নিয়ে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ তৎকালীন উপজেলা প্রকৌশলীর কাছে মৌখিকভাবে দিলেও তিনি কর্ণপাত করেননি। বরং উল্টো স্থানীয়দের সঙ্গে অসদাচরণ করেন।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী সাজেদুর রহমান জানান, এই সাড়ে ৪ কিলোমিটার সড়কটি সংস্কার কাজ করা হয় ২০১৮ সালে। তৎকালীন উপজেলা প্রকৌশলী কীভাবে কাজটি বুঝে নিয়েছেন তা আমার জানা নেই। তিনি আরো জানান, সরেজমিন সড়কটি পরিদর্শন করা হয়েছে। সড়কের বিভিন্ন স্থানে ভেঙে গিয়ে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে এবং কোথাও কোথাও সড়ক দেবে গিয়ে যান চলাচলে বিঘ্ন ঘটছে। তা ছাড়া সড়কের বিভিন্ন জায়গায় দুই পার্শ্বে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় সড়কটি তাড়াতাড়ি নষ্ট হয়েছে। তবে এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবর অবহিত করা হয়েছে।

সারাদেশ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj