মা ও ছেলেসহ সাত জেলার সড়কে প্রাণ গেল ১৩ জনের

রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯

কাগজ ডেস্ক : সড়ক দুর্ঘটনায় মা ও ছেলেসহ ৭ জেলায় ১৩ জন নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে বরিশালে ট্রাক-টেম্পো সংঘর্ষে মা-ছেলে, ঝিনাইদহে ট্রাকচাপায় ৩ নারী, সিলেটে দুই অটোরিকশার সংঘর্ষে ২ খালাতো বোন, হবিগঞ্জে ২ ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক-হেলপার, ময়মনসিংহের নান্দাইলে ইজিবাইকের চাপায় স্কুলছাত্রী ও রিকশা থেকে পড়ে এক ব্যক্তি, ফরিদপুরের ভাঙ্গায় ট্রাকের ধাক্কায় ইজিবাইকচালক এবং জামালপুরের মেলান্দহে টাক্ট্রর উল্টে চালক মারা যান। গতকাল শনিবার বিভিন্ন সময় এসব দুর্ঘটনা ঘটে। নিচে এ সম্পর্কে আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

বরিশাল : বরিশাল নগরীতে ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে টেম্পোযাত্রী মা ও ছেলে নিহত এবং ৪ জন আহত হয়েছেন। দুপুরে নগরীর সাগরদী সেতুসংলগ্ন কুয়েত প্লাজার সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- মা দেলোয়ারা বেগম (৬০) ও ছেলে শিপন (৩৫)। তাদের বাড়ি ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার শ্রীরামকাঠি গ্রামে। আহত আনিস (৪২), স্বপন (৫০), শিপন (৪৫) ও মোর্শেদা বেগমকে (৩০) বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রূপাতলী বাস টার্মিনাল থেকে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহী টেম্পোটি নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে যাচ্ছিল। এ

সময় বিপরীত দিক থেকে আসা অ্যাংকর সিমেন্ট কোম্পানির একটি ট্রাকের সঙ্গে টেম্পোটির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এ সময় দেলোয়ারা বেগম ঘটনাস্থলেই এবং হাসপাতালে নেয়ার পথে শিপনের মৃত্যু হয়।

ঝিনাইদহ : জেলার সদর উপজেলায় বালুবোঝাই ট্রাকচাপায় যাত্রীবাহী মাহেন্দ্রর ৩ নারী যাত্রী নিহত এবং ৭ জন আহত হয়েছেন। বেলা ১১টার দিকে ঝিনাইদহ-যশোর মহাসড়কে জেলার লাউদিয়া দরগা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতদের পরিচয় পাওয়া যায়নি।

ঝিনাইদহ ফায়ার সার্ভিসের দমকল বাহিনীর স্টেশন অফিসার দিলীপ কুমার জানান, ঝিনাইদহ শহর থেকে কালীগঞ্জ যাওয়ার পথে যাত্রীবাহী মাহেন্দ্রকে পেছন থেকে যশোরগামী বালুবোঝাই একটি ট্রাক চাপা দেয়। এতে মাহেন্দ্রটি উল্টে রাস্তার পাশে গর্তে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই মাহেন্দ্রর ২ নারী যাত্রী নিহত এবং আহত হন ৮ জন। আহতদের সদর ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। দুপুর ১টার দিকে সেখানে চিকিৎসাধীন থেকে আরো এক নারীর মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় রাস্তার পাশে দুটি দোকানও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

সিলেট : জেলার বিয়ানীবাজার উপজেলায় দুই অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে ২ জন নিহত এবং ৩ জন আহত হয়েছেন। দুপুরে উপজেলার চারখাই কামারগ্রাম এলাকায় বিয়ানীবাজার-সিলেট সড়কে এ ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- উপজেলার চারাবই মাইজপাড়া এলাকার তাহমিনা আক্তার (১৮) এবং তার খালাত বোন তিন্নি (৮)।

পুলিশ জানায়, বিয়ানীবাজার থেকে ছেড়ে আসা অটোরিকশার সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা আরেকটি অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই তাহমিনা আক্তার মারা যান। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে মারা যায় শিশু তিন্নি। আহতদের সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

হবিগঞ্জ : জেলার বাহুবল উপজেলায় ২ ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক ও হেলপার নিহত এবং গুরুতর আহত হয়েছেন অন্য এক ট্রাকের চালক। এ ঘটনায় মহাসড়কে ২ ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ ছিল। খবর পেয়ে শায়েস্তাগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের একটি দল ট্রাকের বডি কেটে নিহতদের লাশ উদ্ধার করে। ভোরে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের মৌচাক এলাকায় এ দুর্ঘটনাটি ঘটে। নিহতরা হলেন- চাঁপাইনবাগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার নাকরাজপুর গ্রামের রহমত আলীর ছেলে বাবু মিয়া (৩২) এবং একই গ্রামের হেলপার মোস্তফা আলীর ছেলে রহমত আলী (২৫)।

নান্দাইল (ময়মনসিংহ) : নান্দাইল উপজেলায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় স্কুলছাত্রসহ ২ জন নিহত হয়েছেন। উপজেলার নান্দাইল-হোসেনপুর সড়কে ও নান্দাইল বাজারে এ দুর্ঘটনা ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, সকালে নান্দাইল-হোসেনপুর সড়কে উপজেলার আচারগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র ফারদিন ইসলাম (৮) একটি ইজিবাইকের চাপায় গুরুতর আহত হয়। পরে আহত ফারদিনকে নান্দাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষণা করেন। ঘটনার পরপরই ইজিবাইক চালক পালিয়ে যায়। নিহত ছাত্র আচারগাঁও গ্রামের কৃষক ফাইজুল মিয়ার ছেলে। এ ঘটনায় উত্তেজিত ছাত্র-জনতা প্রায় ২ ঘণ্টা নান্দাইল-হোসেনপুর সড়ক অবরোধ করে বিচার দাবি করেন। পরে নান্দাইল মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে জনতাকে বুঝিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। নিহত ছাত্রের চাচা মো. শামছুল আলম মাস্টার বাদী হয়ে নান্দাইল মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

অপরদিকে নান্দাইলের ভাটি সাভার গ্রামের মো. দুলাল মিয়া (৫৬) নামে এক ব্যক্তি রিকশাযোগে বাড়ি থেকে নান্দাইল বাজারে আসার পথে রিকশা থেকে পড়ে মাথায় আঘাত পান। পরে তাকে হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় নিহতের ভাই সুজন বাদী হয়ে নান্দাইল মডেল থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেন।

ফরিদপুর : ফরিদপুর-বরিশাল মহাসড়কে ভাঙ্গা উপজেলার বিশ্বরোড চৌরাস্তা মোড়ে সকালে ট্রাকের ধাক্কায় ইজিবাইকচালক কুদ্দুস ফকির (৫০) নিহত হয়েছেন। তিনি উপজেলার তুজারপুর ইউনিয়নের চারাইলদাহ গ্রামের শুকুর ফকিরের ছেলে। দুর্ঘটনায় ইজিবাইকের দুই যাত্রী গুরুতর আহত হন। তাদের প্রথমে ভাঙ্গা ও পরে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, জান্দি বাজার থেকে যাত্রী নিয়ে ভাঙ্গা উপজেলা সদরে যাওয়ার পথে ইজিবাইকটিকে বিপরীতমুখী অজ্ঞাত ট্রাক তাদের ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যায়। এতে ইজিবাইকের চালক ঘটনাস্থলেই মারা যান। ঘাতক ট্রাকটিকে আটকের চেষ্টা চলছে।

জামালপুর : জেলার মেলান্দহ উপজেলায় টাক্ট্রর উল্টে চালক নিহত হয়েছেন। তার নাম মো. শাহীন (৩৫)। দুপুরে মাহমুদপুরের ইমামপুর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। শাহীন ইসলামপুরের সাপধরী ইউনিয়নের ফকিরপাড়া গ্রামের হবিবর রহমান হবুর ছেলে।

পুলিশ জানায়, ইসলামপুরের উলিয়া থেকে দুপুরে ধানের বস্তা বোঝাই টাক্ট্রর নিয়ে শাহীন মাহমুদপুর বাজারে যাচ্ছিলেন। পথে ইমামপুর এলাকায় টাক্ট্ররটি উল্টে যায়। ঘটনাস্থলে তিনি মারা যান।

শেষ পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj