দুই বাংলা এক সুবোধ : আবৃত্তি সন্ধ্যায় মুগ্ধতা ছড়ালেন শিমু ও রুমকি

রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯

চট্টগ্রাম অফিস : ওপার বাংলার কিংবদন্তি কবি সুবোধ সরকারের কবিতা নিয়ে আবৃত্তি করেন এপার বাংলার খ্যাতিমান বাচিক শিল্পী আয়েশা হক শিমু ও ওপার বাংলার জনপ্রিয় আবৃত্তি শিল্পী রুমকি গাঙ্গুলি। তাদের অনবদ্য পরিবেশনায় কবিতাপ্রেমীরা যেমন মুগ্ধ হয়েছেন ঠিক তেমনি আস্বাদন করলেন কাব্যসাহিত্যের রস। প্রেম-দ্রোহ আর দেশাত্মবোধের কবিতা আবৃত্তিতে হলভর্তি দর্শক শুধু ছন্দের দোলায়ই আচ্ছাদিত হননি, হয়েছেন আনন্দিত ও উচ্ছ¡সিত।

চট্টগ্রাম জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে শুক্রবার সন্ধ্যা পৌনে ৬টায় অনুষ্ঠিত এ কাব্যসন্ধ্যাটি ছিল নান্দনিকতায় পরিপূর্ণ। চট্টগ্রাম একাডেমির আয়োজনে পুরো অনুষ্ঠানে কানায় কানায় পূর্র্ণ ছিল মিলনায়তন। আয়েশা হক শিমু ও রুমকি গাঙ্গুলি মন্ত্রমুগ্ধের মতো আবিষ্ট করে রাখেন শ্রোতাদের। শিমু পরিবেশন করেন বাংলা, শাড়ি, ছোট ষড়যন্ত্র, কলেজের এক ছাত্রী রবীন্দ্রনাথকে, অশ্বকাহিনী, সেই সাংঘাতিক লোকটা, বরিস পাস্তোরোনাদের বাড়ি থেকে বলছি, রূপম ও সীতা। রুমকি গাঙ্গুলি পরিবেশন করেন খোলা চিঠি দুর্গাকে, ময়ূরপঙ্খী, বৈশাখী, রজনীগন্ধা কফিন, কৃষ্ণকলি মাহাতো, দুব্বো ও কবি রাশেদ রউফের কবিতা মুক্তিযুদ্ধ।

সূচনা বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা ও বাংলা একাডেমি পুরস্কারপ্রাপ্ত শিশুসাহিত্যিক রাশেদ রউফ। কবি সুবোধ সরকারের শুভেচ্ছা বাণী পাঠ করেন দীপাঞ্জন ঘোষ। বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম একাডেমির পরিচালক অধ্যক্ষ রীতা দত্ত, কবি কামরুল হাসান বাদল, একাডেমির মহাপরিচালক শিশুসাহিত্যিক অরুণ শীল। অধ্যক্ষ রীতা দত্ত বলেন, অসাধারণ কবির অসাধারণ কবিতা আমরা শুনলাম। দুই শিল্পীর পরিবেশনায় একেকটি কবিতার প্রেক্ষাপট একেক রকম করে আমাদের চোখের ভেসে উঠেছে।

তিনি বলেন, সংস্কৃতিজগতে বাংলাদেশ ও ভারতের দারুণ মেলবন্ধন রয়েছে। কেননা আমরা একই সংস্কৃতির উত্তরাধিকারী। সুবোধ সরকারের কবিতা নিয়ে এ আয়োজন সত্যিই স¤প্রীতির বন্ধনে আমাদের জড়িয়ে রাখবে। অনুপ্রেরণা জোগাবে অসা¤প্রদায়িক সংস্কৃতিচর্চার।

শেষ পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj