বিয়ের অনুষ্ঠানে প্রযুক্তি

রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯

প্রযুক্তি দৈনন্দিন জীবনকে করে তুলেছে সহজ। উন্নত করেছে জীবনযাত্রা। সেই ধারাবাহিকতায় প্রযুক্তি ব্যবহারে জীবনের বিশেষ মুহূর্তের অন্যতম অধ্যায় ‘বিয়ে’ হয়ে থাকবে স্মরনীয়। বিয়েতে আবার কি কি প্রযুক্তি ব্যবহার হবে শুনতেই হয়তো অবাক হচ্ছেন। ভাল মন্দ বা কৌতুহল যাই লাগুক, চলুন জেনে নেই কি কি প্রযুক্তি ব্যবহার করে বিয়ে বা বিয়ের দিনগুলো আরো স্মরনী করা রাখা যায়। লিখেছেন নাজমুল হক ইমন

ফেসবুক লাইভ : বিয়েতে আপনার প্রিয় বন্ধুটি আসতে পারেনি বা কখনো কোনো ব্যক্তিকে কথা দিয়েছিলেন তাকে সাক্ষী রেখে বিয়ে করবেন কিন্তু হয়তো আপনার ভুলমনা বা তার কাজের ব্যস্ততায় আসতে পারলেন না আপনার বিয়েতে। তাদের জন্য এবং নিজের বিয়ে সরাসরি অন্যদের দেখা আপনি ফেসবুক লাইভ দিতে পারেন। যারা ফেসবুক ব্যবহার করেন তাদের জন্য লাইভে যাওয়া খুব সহজ সঙ্গে ফেসবুকের নতুন ফিচার অডিও লাইভও যুক্ত করতে পারেন।

অ্যাকশন ক্যামেরা : অ্যাকশন ক্যামেরার কেরামতি দেখতে পারবেন আপনি পরে। তার আগে যা করতে হবে আপনাকে। বিয়ের দিন এমন কোনো জায়গাতে লুকিয়ে রাখুন অ্যাকশন ক্যামেরা; যেই জায়গাতে সবাইকে আসতেই হবে। অ্যাকশন ক্যামেরায় দৃশ্য ধারণ হতেই থাকবে। কেউ না জানার কারণে সেই দৃশ্যগুলো হবে চমকপ্রদ।

৩৬০ ডিগ্রী ক্যামেরা : সাধারণত আমরা এক সাইড ছবি তুলে অভ্যস্ত। কিন্তু বিয়ের ফটোগ্রাফিতে যদি স্পেশাল ৩৬০ডিগ্রী ক্যামেরা দিয়ে ফটোগ্রাফি করা হয় তবে বেশ এক্সসাইটিং কোনো ব্যাপার হবে। সাধারণত এমন ছবি তোলার রীতি আমাদের কমই আছে। আর এখন ৩৬০ ডিগ্রী ক্যামেরা সবখানেই পাওয়া যায়।

ড্রোন : বিয়েতে করতে পারেন ড্রোন ব্যবহার। ড্রোনের মাধ্যমে যেমন ছবি তোলা যায় তেমন ভিডিওয়ের কাজও সাড়া যায়। যদি উম্মুক্ত কোনো ময়দানে বা কোনো রিসোর্টে বিয়ের আয়োজন হয় তবে পুরো অংশ উপর থেকে ছবি বা ভিডিও করার একমাত্র মাধ্যম হলো ড্রোন। বিয়েতে ড্রোন ব্যবহার একদিকে যেমন নতুন ট্রেন্ড অন্যদিকে আধুনিক প্রযুক্তিরও ব্যবহার।

ড্রাইভারবিহীন গাড়ি : আমাদের দেশে এখনও নেই তবে দেশের বাহিরে বেশ কিছু কোম্পানি নিয়ে এসেছে চালকবিহীন গাড়ি। আপনির বিয়ের গাড়িটি যদি হয় চালকবিহীন তবে কেমন লাগবে একবার ভেবে দেখেছেন। গাড়িতে শুধু বর ও বৌ আর কেউ নেই কিন্তু গাড়ি চলছে নিদিষ্ট গন্তব্যে ব্যাপারটি ভাবতেই কেমন জানি লাগে। তবে, আপনি চাইলে গাড়ি নিজেই চালিয়ে বউকে নিয়ে দিতে পারেন সুন্দর এক ট্রিপ।

সেলফি স্টিক : বিয়ের আয়োজনে রাখুন নিদিষ্ট সেলফি স্টিক। যেখানে সবাই সেলফি তুলবে। কেউ তাইলে গ্রুপফিও তুলতে পারে। কিন্তু বিয়ের দিনে হাতে করে সেলফি স্টিক টানাটানি কেমন লাগে। তাই যদি বিয়ের মঞ্চেই ব্যবস্থা থাকে এই প্রযুক্তি পণ্যের তবে আনন্দটা আরোও বেড়ে যায়।

স্মার্টফোন চার্জিং স্টেশন : গুরুত্বপূর্ণ একটি ব্যাপার এটি। বিয়েতে আসার সবার কাছেই কম বেশি গ্যাজেট গিয়ার থাকে। তাই বিয়ে বাড়িতে তৈরি করে ফেলুন স্মার্টফোন চার্জি স্টেশন। যেখানে যে কেউ যেকোনো সময় নিজের মোবাইল বা ডিভাইসে চার্জ দিতে পারবে। কারণ বিশেষ মুহুর্তের ছবি বা ভিডিও করতে গিয়ে দেখলেন চার্জ নেই কিংবা যাকে খুঁজে বেড়াচ্ছে তিনি ফোন বন্ধ করে আছেন ডিভাইসে চার্জ নেই বলে তাই সমস্যা সমাধান এই স্মার্টফোন চার্জিং স্টেশনে।

জিআইএফ ফটোবুথ : তিন চারটি ছবি বিভিন্নভাবে তুলুন একই ফ্রেমের মধ্যে তারপর সে ছবিগুলো দিয়ে আপনি নিজেই তৈরি করতে পারবেন জিআইএফ ফরমেটে ছবি। সেগুলো ফেসবুক বা স্যোশাল কোনো সাইটে দিতে পারবেন।

ইন্সট্যান্ট ফটো ডেলিভারি বুথ : তার গিফট নিয়ে আসবে তাদের জন্য তৈরি করে ফেলুন একটি ইন্সট্যান্ট ফটো ডেলিভারি বুথ। গিফট নিয়ে আসা অতিথিরা ছবি তুললে সঙ্গে সঙ্গে সেই ছবি প্রিন্ট দিয়ে তাকে দেবার ব্যবস্থা করুন। দেখবেন তিনি আরো বেশি খুশি হবে।

থ্রিডি প্রিন্টিং : আমাদের দেশে এর প্রচলন কম কিন্তু অন্য দেশে কম বেশি আছে। থ্রিডি প্রিন্ট দিয়ে আপনি বিয়ের বেশ কিছু কাজ সাড়তে পারবেন। বিয়ের বিশেষ কেক ডিজাইন, লিফ ব্রাসলেটসহ আরো বেশ কিছু ডিজাইনের কাজ আপনি করতে পারবেন থ্রিডি প্রিন্টারে। সূত্র : ইয়াহু ও ইন্টারনেট।

ফ্যাশন (ট্যাবলয়েড)'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj