শেষলগ্নে চুক্তিসহ ব্রেক্সিট আদৌ কি সম্ভব

শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯

কাগজ ডেস্ক : ব্রেক্সিট নিয়ে আশার আলো ফুটেছে ফের। দীর্ঘ টানাপড়েন আর অনিশ্চয়তার পর চুক্তির বিষয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে একটি সমঝোতায় পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছে যুক্তরাজ্য। গত বৃহস্পতিবার ব্রাসেলসে ইউরোপীয় নেতাদের এক বৈঠকের আগে দুই পক্ষের প্রতিনিধিরা চুক্তির বিষয়ে সমঝোতায় পৌঁছান। বিবিসি জানিয়েছে, দুই পক্ষের প্রতিনিধিরা এখন ওই চুক্তির আইনি দিকগুলো নিয়ে কাজ করছেন। তবে চূড়ান্ত চুক্তি হওয়ার আগে তাতে ব্রিটিশ পার্লামেন্ট ও ইউরোপীয় পার্লামেন্টের অনুমোদন নিতে হবে। ইইউ পার্লামেন্টে বিল পাস হওয়ার সবুজ ইঙ্গিত পাওয়া গেলেও তেমন আশার বাণী শোনাতে পারছেন না ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। ইইউর সঙ্গে সমঝোতা নিয়ে জনসন যদিও এক টুইটে ঘোষণা দিয়ে বলেছেন, দারুণ সমঝোতায় আমরা পৌঁছেছি। পরিস্থিতির ওপর নিয়ন্ত্রণও ফিরেছে আবার। অন্যদিকে ব্রিটিশ পার্লামেন্টে বিল পাস হওয়ার ব্যাপারে সংশয় কাটেনি এখনো। বিরোধী লেবার দলীয় নেতা জেরেমি করবিন মুখ ফুটে বলেও দিয়েছেন, এই চুক্তিটি আগের চুক্তির চাইতে আরো খারাপ! তবুও আগামী ৩১ অক্টোবরে প্রক্রিয়ামাফিক ব্রেক্সিট শেষ করার পথ সুগম করতে আজ শনিবার ব্রিটিশ পার্লামেন্টের বিশেষ অধিবেশনে চুক্তির বিষয়ে অনুমোদন পাওয়ার আশা করছেন জনসন। ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট জ্যঁ ক্লদ জাঙ্কার এর আগে এক চিঠিতে বলেন, ইইউর ২৭ সদস্যরাষ্ট্রকে চুক্তিতে অনুমোদন দেয়ার সুপারিশ করবেন তিনি।

তিনি বলেন, ব্রেক্সিট প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার শেষ সময় এখনই। এদিকে তবে উত্তর আয়ারল্যান্ডের ডেমোক্রেটিক ইউনিয়নিস্ট পার্টি (ডিইউপি) নতুন ব্রেক্সিট চুক্তি সমর্থন করবে না বলে ইতোমধ্যেই জানিয়েছেন বিবিসির রাজনীতি বিষয়ক প্রধান সংবাদদাতা ভিকি ইয়াং। তিনি বলেন, ঊর্ধ্বতন ডিইউপি এমপিরা ব্রিটিশ পার্লামেন্টের নি¤œকক্ষ হাউস অব কমন্সে চুক্তি নিয়ে আলোচনার জন্য বৈঠক করেছেন। কিন্তু এর পক্ষে তারা ভোট দেবেন না। বিরোধীদলীয় নেতা করবিন বলেছেন, আগের প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে যে ব্রেক্সিট চুক্তি করেছিলেন নতুন চুক্তি তার চেয়েও বেশি খারাপ। ফলে এমপিদের এটি প্রত্যাখ্যান করা উচিত। তবে ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট জাঙ্কার বলছেন নতুন চুক্তি সুষ্ঠু এবং ভারসাম্যপূর্ণ। এর আগে আয়ারল্যান্ড ও ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে আলোচনার পর ব্রেক্সিট সংক্রান্ত বোঝাপড়ার আশা কিছুটা বেড়ে যায়। চুক্তিসহ ব্রেক্সিট কার্যকর করতে ক‚টনৈতিক তৎপরতাও বাড়ে। যখন প্রায় সবাই কার্যত হাল ছেড়ে দিয়েছে, তখনও চুক্তির মাধ্যমে ব্রেক্সিট কার্যকর করার সম্ভাবনার উল্লেখ করেন আয়ারল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী লিও ভারাদকর। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের সঙ্গে আলোচনার পর তিনি এমন আশা প্রকাশ করেন। তার মতে, ব্রিটেন ও আয়ারল্যান্ড ৩১ অক্টোবরের মধ্যে বোঝাপড়া চূড়ান্ত করতে বদ্ধপরিকর। তবে বিতর্কিত বিষয়গুলোতে কিছু আপসের ইঙ্গিত দিলেও সম্ভাব্য সমঝোতার রূপরেখা সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু জানাননি আয়ারল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী। ইউরোপীয় ইউনিয়নের কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনায় তিনি বিষয়গুলো তুলে ধরবেন বলে জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, বর্তমান জটিলতা কাটাতে আয়ারল্যান্ডের সম্মতি ছাড়া ব্রিটেন ও ইইউর মধ্যে কোনোরকম বোঝাপড়া সম্ভব নয়। ব্রিটেনের ব্রেক্সিটের ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রী স্টিফেন বার্কলে ব্রাসেলসে ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রধান মধ্যস্থতাকারী মিশেল বার্নিয়ের সঙ্গে আলোচনা করবেন। আগামী সপ্তাহে ইইউ শীর্ষ সম্মেলনের আগে ব্রেক্সিট চুক্তি চূড়ান্ত করার জন্য সবপক্ষের ওপর চাপ বাড়ছে। এর আগে ব্রিটেন যেসব প্রস্তাব পেশ করে, তার ভিত্তিতে কোনো সমঝোতা সম্ভব নয় বলে জানিয়ে দেয় ইইউ। তবে আইরিশ সীমান্ত সংক্রান্ত অমীমাংসিত বিষয়গুলোর নিষ্পত্তি করতে এখনো আলোচনা চলছে। প্রস্তাবিত ‘ব্যাকস্টপ’ ব্যবস্থার প্রকৃত ও গ্রহণযোগ্য বিকল্প ছাড়া ইইউ কোনো চুক্তিতে আগ্রহী নয়। প্রায় ৩ বছর ধরে যা সম্ভব হয়নি, মাত্র দুই সপ্তাহের মধ্যে তা কীভাবে সম্ভব হবে তা নিয়ে সংশয় থেকেই যাচ্ছে। ব্রিটেন ও আয়ারল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে গত ১০ অক্টেবরের আলোচনায় কোন পক্ষ ছাড় দিয়েছে, সেই প্রশ্নের জবাব এড়িয়ে গিয়ে লিও ভারাদকর বলেন, এ ক্ষেত্রে ছাড় বা হারজিতের বিষয় বড় কথা নয়।

জনসন নিজে এই আলোচনা সম্পর্কে নীরব থাকায় বিষয়টি নিয়ে কৌত‚হল বাড়ছে। উত্তর আয়ারল্যান্ডের দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্রিটিশ মন্ত্রী জুলিয়ান স্মিথ এ নিয়ে বলেন, সম্ভাব্য বোঝাপড়া বানচাল করতে সেই প্রদেশের কোনো রাজনৈতিক দলের হাতে ভেটো শক্তি থাকবে না। শেষ পর্যন্ত বরিস জনসন ইইউর সঙ্গে রফা করতে পারলেও ব্রিটেনের সংসদ সেই চুক্তি অনুমোদন করবে কিনা, তা নিয়ে সংশয় থেকেই যাচ্ছে। জনসনের পূর্বসূরি তেরেসা মে তিন-তিন বার চেষ্টা চালিয়েও যে সংসদের অনুমোদন আদায় করতে পারেননি, তার এতো সহজ সমাধান করা গেলে, নিঃসন্দেহে সেটি হবে বরিস জনসনের কৃতিত্ব এবং অবাক হওয়ার মতোই একটি ঘটনা।

দূরের জানালা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj