তারুণ্যের উপস্থিতি শিশু সাহিত্যকে বর্ণাঢ্য করছে

শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯

ছড়াকার ও শিশুসাহিত্যিক হিসেবে খ্যাতি কুড়িয়েছেন আনজীর লিটন। ২০১৬ সালের ২০ নভেম্বর হতে বাংলাদেশ শিশু একাডেমির পরিচালক পদে দায়িত্ব পালন করছেন। দেশের শিশু সাহিত্যের চর্চা এবং শিশু একাডেমির কার্যক্রমের নানা প্রসঙ্গ নিয়ে ভোরের কাগজের মুখোমুখি হয়েছিলেন তিনি। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন শাকিল মাহমুদ

শিশুদের মননশীলতা ও সৃজনশীলতার বিকাশে শিশু একাডেমি কি ধরনের কাজ করছে?

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে সোনার বাংলা গড়ার অন্যতম শক্তি আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম; যারা আজ শিশু। শিশুদের জন্যই শিশু একাডেমি। মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অসাম্প্রদায়িক সমাজ বিনির্মাণ এবং গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন রূপরেখা বাস্তবায়নে শিশুদের অধিকার এবং শারীরিক-মানসিক ও সৃজনশীল প্রতিভা বিকাশের লক্ষ্যে এগিয়ে চলছে বাংলাদেশ শিশু একাডেমি।

তৃণমূল পর্যায় থেকে জাতীয় পর্যায়ে শিশুদের প্রতিভা অন্বেষণে শিশু একাডেমির মাধ্যমে মননশীলতা ও সৃজনশীলতার বিকাশ ঘটছে। বই প্রকাশ করা হচ্ছে। ছবি আঁকার আয়োজন করা হচ্ছে। নাচ, গান, অভিনয়, আবৃত্তি শেখানো হচ্ছে।

শিশুদের সৃজনশীলতা বিকাশ ও শিশু অধিকার সুরক্ষায় সমাজের নানা স্তরের শিশুদের সমান সুযোগ নিশ্চিত করছে শিশু একাডেমি। যুক্ত থাকছে বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন ও সুবিধাবঞ্চিত শিশুরাও।

শিশুদের সঙ্গে কাজ করতে কেমন লাগে? কাজের অভিজ্ঞতা যদি শেয়ার করেন…

শিশুরা পবিত্র। ওদের অনুভূতি এক। স্বপ্ন এক। দৃষ্টি এক। ওদের সঙ্গে মিলে মিশে কাজ করার মধ্য দিয়ে আমার অন্তরে একটা পবিত্র অনুভূতি ছুঁয়ে যায়।

দেশজুড়ে কয়টা জেলা, উপজেলায় শিশু একাডেমির শাখা আছে?

৬৪ জেলা ও ৬টি উপজেলায় বাংলাদেশ শিশু একাডেমির শাখা রয়েছে। এ ছাড়া ঢাকার উত্তরা, সাভার, গাজীপুরের কালীগঞ্জ, ত্রিশাল এবং মোহনগঞ্জ উপজেলায় চলছে প্রশিক্ষণ কার্যক্রম।

শিশু একাডেমির আগামী দিনের পরিকল্পনা কী?

শিশুদের সৃজনশীল বিকাশ ও অধিকার সুরক্ষায় নিশ্চিত অবস্থান তৈরি করার লক্ষ্য নানামুখী কর্মসূচি বাস্তবায়নে কাজ করছে শিশু একাডেমি। সৃজনশীলতা ও মননশীলতার বিকাশের জন্য সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড পরিচালিত হচ্ছে।

লেখক হিসেবে আপনার বর্তমান ব্যস্ততার খবর জানতে চাই?

নতুন বই প্রকাশের জন্য লিখছি, পাণ্ডুলিপি তৈরি করছি। লেখালেখির ব্যস্ততা তো সব সময়ের।

আমাদের দেশের শিশু সাহিত্য নিয়ে আপনার মূল্যায়ন শুনতে চাই?

একদল তারুণ্যের উপস্থিতি বর্তমান শিশু সাহিত্যকে বর্ণাঢ্য করছে, এসেছে বহুমাত্রিকতা। এটি অব্যাহত রাখতে শিশু সাহিত্যিকদের আরো আন্তরিক হতে হবে।

শিশুদের সুস্থ বিকাশের জন্য ব্যক্তিগতভাবে কোন বিষয়গুলোকে জোর দিতে চান?

মহান মুক্তিযুদ্ধ, ভাষা আন্দোলন, নৈসর্গিক সৌন্দর্য, প্রাণ-প্রকৃতি, ঋতুবৈচিত্র্য, বাংলার মেলা, বাংলার উৎসব, ইতিহাস-ঐতিহ্য ও মানুষের জীবনধারার সঙ্গে শিশুদের মনস্তাত্তি¡ক বিষয়-আশয়ের প্রতি আমি জোর দিতে চাই।

মেলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj