চট্টগ্রামে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল নির্মাণ করবে চসিক

বৃহস্পতিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯

চট্টগ্রাম অফিস : বন্দরনগরী চট্টগ্রামের বাটালিহিলে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরাল নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক)। পাশাপাশি বিকৃতি ও অপব্যবহার বন্ধ করতে নগরীতে নির্দিষ্ট ডিজাইনে বঙ্গবন্ধুর ছবি দিয়ে পোস্টার, ব্যানার, ফেস্টুন ছাপানোর জন্যও একটি নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে চসিকের পক্ষ থেকে। গতকাল বুধবার নগরীর টাইগারপাসে চসিকের অস্থায়ী কার্যালয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির এক সভায় সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন এ কথা জানান। তবে কত ফুট উচ্চতায় এবং এই ম্যুরালের শিল্পী কে হবেন তা এখনো ঠিক হয়নি।

সভায় মেয়র বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর পোস্টার ও ব্যানারে বঙ্গন্ধু ছাড়া আর কোনো ছবি থাকবে না। যদি ছবির সুযোগ রাখা হয়, তবে সন্ত্রাসীরাও ছবি দিয়ে পোস্টার বের করবে। এ ব্যাপারে কঠোর নজরদারি রাখতে হবে। আগামী মাসের মধ্যেই বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর কর্মসূচি চূড়ান্ত করা হবে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু রাজনৈতিক কর্মসূচিতে যোগদান ছাড়াও অনেক সামাজিক অনুষ্ঠানে অংশ নিতে চট্টগ্রামে এসেছিলেন।

অনেকের সঙ্গে তার আত্মার সম্পর্ক ছিল। এখানে জাতির পিতার অনেক স্মৃতি রয়েছে। হেঁটে কিংবা রিকশায় চড়ে অনেক জায়গায় গেছেন তিনি। আমরা সেসব স্থান কিভাবে সংরক্ষণ করা যায় তা নিয়ে চিন্তাভাবনা করছি।

প্রসঙ্গত, বর্তমান সরকার ২০২০ সালের ১৭ মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিবস থেকে ২০২১ সালের ২৬ মার্চ পর্যন্ত দেশব্যাপী মুজিববর্ষ পালনের যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারই অংশ হিসেবে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন অনুরূপ কর্মসূচি উদযাপনের উদ্যোগ নিয়েছে।

সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শামসুদ্দোহা, চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সদস্য (প্রশাসন ও পরিকল্পনা) মো. জাফর আলম, চসিকের সচিব আবু শাহেদ চৌধুরী, প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্নেল মহিউদ্দিন আহমেদ, প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ এ কে এম রেজাউল করিম, প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা সুমন বড়ুয়া ও থিয়েটার ইনস্টিটিউট চট্টগ্রামের পরিচালক, নাট্যজন আহমেদ ইকবাল হায়দার প্রমুখ।

বাটালিহিলে বাংলা ও ইংরেজিতে ‘ওয়েলকাম টু চট্টগ্রাম’ লেখার পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর সর্বোচ্চ ম্যুরাল স্থাপনের প্রস্তাব দেন চসিকের প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ এ কে এম রেজাউল করিম। পাহাড়ে স্থাপনা তৈরির ব্যাপারে প্রসঙ্গক্রমে মো. জাফর আলম বলেন, অনেকের ধারণা, পাহাড়ের ওপর কিছু করা যায় না। কিন্তু পাহাড়কে বৈজ্ঞানিকভাবে ব্যবহার করতে পারলে কোনো সমস্যা হওয়ার কথা নয়। পাহাড় রক্ষা করা দরকার, আর এ জন্য পাহাড়কে সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার মধ্যে আনতে হবে।

এই জনপদ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj