রামগঞ্জের ৪ যাত্রী ছাউনি বেদখল : উচ্ছেদের উদ্যোগ নেই

বৃহস্পতিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯

পাটোয়ারী হোসেন শরীফ, রামগঞ্জ (লক্ষীপুর) থেকে : রামগঞ্জ পৌরসভার কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, কেন্দ্রীয় স্মৃতিসৌধ উপজেলার ফতেহপুর ও পানপাড়া বাজার সড়কের পাশে চারটি যাত্রী ছাউনিই প্রভাবশালী মহল দখল করে নিয়েছে। দখলকৃত চারটি যাত্রী ছাউনির তিনটি জেলা পরিষদ ও একটি সড়ক ও জনপদ বিভাগ কর্তৃক নির্মিত হয়েছে। সরেজমিন দেখা গেছে, শহরের কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল থেকে ঢাকা, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, হাজিগঞ্জ, চাঁদপুরসহ বিভিন্ন জেলার মানুষজন প্রতিনিয়ত যাত্রীবাহী পরিবহন হিমালয়, হিমাচল, নীলাচল, আলবারাকা ও জননী পরিবহনসহ বিভিন্ন পরিবহনে যাতায়ত করে। কিন্তু শহরের কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের যাত্রী ছাউনিটি একটি প্রভাবশালী মহল জবর দখল করে গাড়ি মেরামতের বিভিন্ন সরঞ্জাম রেখে ওয়ার্কশপ তৈরি করে রেখেছে। এ ছাড়া রামগঞ্জের সোনাপুর কেন্দ্রীয় মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিসৌধ সংলগ্ন যাত্রী ছাউনি স্থানীয় একটি মহল দখল করে যাত্রীদের বসার পাকা বেঞ্চ ভেঙে ফেলে ভেতরে ইট বালুর স্ত‚প রেখে দখলে রেখেছে। শুধু তাই নয় এ যাত্রী ছাউনির ছালের টিনগুলো কেবা কারা খুলে নিয়ে যায়। উপজেলার ফতেহপুর সড়কের পাশে যাত্রী ছাউনি একটি রাজনৈতিক দলের স্থানীয় অফিস বানিয়ে দখলে রেখেছে। পানপাড়া বাজারের যাত্রী ছাউনি একটি মহল দখল করে ফার্নিচারের দোকান দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা করে আসছে।

এ বিষয়ে একাধিকবার বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হলেও জেলা পরিষদ ও সড়ক ও জনপদ বিভাগের কর্র্তৃপক্ষ দখলকৃত যাত্রী ছাউনিগুলো উদ্ধারের কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। এ ব্যাপারে পৌর, উপজেলা ও থানা প্রশাসনকে জানানোর পরও তারা যাত্রী ছাউনিগুলো দখলমুক্ত করতে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। প্রখর রোদে ও ঝড়-বৃষ্টিতে যাত্রীরা ছাউনির অভাবে চা দোকান, সড়কের পাশে ফুটপাতে যানবাহনের অপেক্ষায় প্রতিনিয়ত দাঁড়িয়ে থাকেন।

সারাদেশ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj