স্বপ্ন পূরণের বড় প্ল্যাটফর্ম ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ প্রতিযোগিতা : জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী

শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯

২০১৮ সালে ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ নির্বাচিত হন জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী। চীনের সানাইয়া শহরে ৬৮তম ‘মিস ওয়ার্ল্ড’ প্রতিযোগিতায় দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্বও করেন তিনি। ‘মিস ওয়ার্ল্ড’-এ সেরা ৩০ নির্বাচিত হয়ে ফাইনালের মঞ্চেও উঠেছিলেন। এরপর থেকেই এ দেশের মিডিয়ায় ব্যস্ততা বাড়তে থাকে তার। ছোটপর্দায় অভিনয়ের পাশাপাশি বর্তমানে কাজ করছেন বড়পর্দাতেও। সমসাময়িক নানান প্রসঙ্গে ভোরের কাগজের সঙ্গে কথা বললেন তিনি। সাক্ষাৎকার- রাব্বানী রাব্বি

শুরু হয়েছে ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’। এবারের প্রতিযোগীদের উদ্দেশ্যে কিছু বলুন…

ঐশী : এবারের প্রতিযোগীদের জন্য আমার অনেক দোয়া ও শুভ কামনা। এখানে প্রত্যেকেই একটা স্বপ্ন নিয়ে আসেন, স্বপ্ন পূরণের বড় প্ল্যাটফর্মও এটা। এখান থেকে যারা বের হয়, তারা আমাদের দেশের প্রতিনিধিত্ব করে। সিনিয়র হিসেবে আমার অনুরোধ থাকবে, তারা যেন নিজেদের প্রস্তুত করে আসে। সব যে একদম হাতে ধরে শিখিয়ে দেবে, তা আশা করা একদমই ভুল। সবার আগে ‘সেলফ গ্রুমিং’ করতে হবে। সব বিষয়ে মোটামুটি একটা ধারণা নিয়ে আসতে হবে। তারপর এখান থেকে আরো কিছুটা হয়তো শিখতে পারবে। কনফিডেন্ট থাকতে হবে। স্মার্ট এবং সবার সঙ্গে কমিউনেকেট করার মতো মানুষ হতে হবে। দেশ ও মানুষের জন্য কিছু করার ইচ্ছে থাকতে হবে। মিস ওয়ার্ল্ডে যেসব দেখে বা খোঁজে প্রকৃতপক্ষে, সবার আগে একজন মনুষ্যত্ববোধ সম্পন্ন মানুষ। তারপর তার প্রথম ই¤েপ্রশন যেন ভালো ই¤েপ্রশন হয় এরকম কিছু গুণ থাকা দরকার। যেন একজন মিস বাংলাদেশকে বা ন্যাশনাল উইনারকে দেখে এক দেখায় ভালো লেগে যায়। এ ছাড়া অন্যান্য গুণ থাকাও প্রয়োজন।

বর্তমান ব্যস্ততা কী নিয়ে?

ঐশী : আপাতত পড়শোনা নিয়ে ব্যস্ত। পাশাপাশি সিনেমা দেখছি। এ ছাড়া মডেলিং ও বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গেও জড়িত আছে।

স¤প্রতি ‘মিশন এক্সট্রিম’ চলচ্চিত্রে কাজ শেষ করেছেন। সিনেমায় আপনার চরিত্র সম্পর্কে বলুন…

ঐশী : ‘মিশন এক্সট্রিম’ একটি পুলিশ অ্যাকশন থ্রিলারধর্মী সিনেমা। ‘ঢাকা অ্যাটাক’ এর একটা সিক্যুয়েল। আরিফিন শুভ ভাইয়ার বিপরীতে অভিনয় করেছি। এখন পর্যন্ত এই সিনেমার কাহিনী এবং চরিত্রগুলো সম্পর্কে কোনো কিছু প্রকাশ করা নিষেধ।

তাহলে তাওহীদ হিরন পরিচালিত ‘আদম’ সিনেমার ক্ষেত্রেও কি একই?

ঐশী : না। আদম সিনেমা আবু তাওহীদ হিরন ভাইয়ার পরিচালিত প্রথম সিনেমা। দীর্ঘ পাঁচ বছর এই সিনেমা নিয়ে তার একটা ভাবনা বা পরিকল্পনা ছিল।

অবশেষে এই সিনেমার কাজ শেষ হওয়াতে এই পরিকল্পনার বাস্তবায়ন করা সম্ভব হলো। এই সিনেমায় আমি নারীপ্রধান চরিত্রে আছি। সেখানে আমার নাম ‘সাজিয়া’। ৮০ দশকের একজন গ্রামের মেয়ে। চরিত্রটি অবশ্যই চ্যালেঞ্জের।

সিনেমা, নাটক, মডেলিং কোন মাধ্যমে কাজ করতে বেশি ভালো লাগে?

ঐশী : সিনেমা। বড়পর্দায় কাজ করতে ভালো লাগে। ছোটবেলায় যখন সিনেমা দেখেছি তখন থেকেই একটা ইচ্ছে ছিল স্ক্রিনে আমাকে দেখা যাক। ছোটবেলা থেকেই সিনেমায় কাজ করার একটা ইচ্ছে ছিল। সে অনুযায়ী নিজেকে তৈরি করেছি।

মেলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj