কঙ্গোয় সশস্ত্র হামলায় শিশুসহ ২৮ বাস্তুহারা নিহত

শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯

কাগজ ডেস্ক : মধ্য আফ্রিকার দেশ কঙ্গোর উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় ইতুরি প্রদেশে গত দুই দিনে একাধিক সশস্ত্র হামলায় শিশুসহ অন্তত ২৮ বাস্তুচ্যুত নিহত হয়েছেন। কঙ্গোতে নিয়োজিত জাতিসংঘ শান্তি মিশন ‘এমওএনইউএসসিও’ (মোনাস্কো) কর্তৃপক্ষ বৃহস্পতিবার এ তথ্য জানায়। গতকাল শুক্রবার রয়টার্সের খবরে বলা হয়, গত দুদিনে ইতুরির বিভিন্ন গ্রামের শরণার্থী শিবিরগুলোতে আশ্রিত মানুষজনকে লক্ষ্য করে সশস্ত্র হামলা চালায় দুষ্কৃতকারীরা। এ সময় মনুস্কোর একটি অস্থায়ী ক্যাম্পেও হামলা হয়। সম্প্রতি কৃষক ও যাযাবর গোত্রের মধ্যে হওয়া দাঙ্গায় এসব মানুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে আসেন।

হামলাগুলোতে প্রধানত হেমা গোত্রের যাযাবরদের লক্ষ্য করা হয়েছে। দীর্ঘ দিন ধরে রাজনৈতিক প্রতিনিধিত্ব ও পশুচারণভূমির ওপর নিজেদের অধিকার প্রতিষ্ঠা নিয়ে এ গোষ্ঠীর সঙ্গে লেন্দু কৃষক সম্প্রদায়ের সংঘাত চলছে। যদিও ঠিক কারা সর্ব শেষ হামলাগুলো চালিয়েছে তা স্পষ্ট নয়। চলতি বছরের জুন থেকে এখন পর্যন্ত কঙ্গোতে জাতিগত দাঙ্গায় অন্তত ২০০ মানুষ নিহত হয়েছেন। বাস্তুচ্যুত হয়েছেন অন্তত ৩ লাখ।

এর আগে ১৯৯৯ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত পূর্ব কঙ্গোয় হেমা ও লেন্দু গোত্রের মধ্যে চলা দীর্ঘস্থায়ী রক্তক্ষয়ী গৃহযুদ্ধে ৫০ হাজারের মতো মানুষ নিহত হন। এ ছাড়া এর ফলে ক্ষুধা ও রোগে ভুগে মারা যান আরো লাখ লাখ মানুষ। ২০১৭ সাল থেকে আবারো দুই গোত্রের মধ্যে ছোটখাটো সংঘাত ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে। এসবের বলি হয়ে এখন পর্যন্ত শত শত মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। এ ছাড়া ঘরবাড়ি ছাড়তে হয়েছে হাজার হাজার মানুষকে। চলতি বছরের জানুয়ারিতে নির্বাচিত দেশটির প্রেসিডেন্ট ফেলিক্স তাসিসেকেদি অবশ্য এখানকার অস্থিরতা নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করছেন।

দূরের জানালা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj