মারকুটে সানজিদা

মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯

আসন্ন ২০২০ নারী টি-টোয়েন্টি বিশ^কাপের বাছাইপর্বের ফাইনালের ম্যাচে থাইল্যান্ডের মুখোমুখি হয় বাংলাদেশের মেয়েরা। স্কটল্যান্ডের ডানবির ফোর্টহিল স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচটিতে থাইল্যান্ডের মেয়েদের ৭০ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়ে আইসিসি নারী টি-টোয়েন্টি বিশ^কাপ বাছাইয়ে টাইগ্রেসরা অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয়। ফাইনালে বাংলাদেশের পক্ষে অপরাজিত ৭১ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলেন ওপেনার সানজিদা ইসলাম। ম্যাচ জেতানো এই ইনিংসের কারণে ফাইনালের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কারও উঠে তার হাতে। শুধু ফাইনালেই নয়, আসরের প্রায় সবকটি ম্যাচেই হেসেছে সানজিদার ব্যাট। বিশ^কাপ বাছাইয়ের ৫ ম্যাচে তিনি করেছেন ১৫৬ রান। গড় ৫২। আর স্ট্রাইকরেট ৯০.৭০। নারীদের ক্রিকেটে এমন স্ট্রাইকরেট খুব একটা দেখা যায় না। সে হিসাবে এই ২৩ বছর বয়সী টাইগ্রেস ওপেনারকে হার্ডহিটার বলেই অ্যাখ্যা দেয়া যায়।

নারী টি-টোয়েন্টি বিশ^কাপের বাছাইপর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে যুক্তরাষ্ট্রের মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ। ওই ম্যাচে আগে ব্যাটিং করে যুক্তরাষ্ট্রের মেয়েরা অলআউট হয় মাত্র ৪৬ রানে। এই লক্ষ্য ৮ উইকেট হাতে রেখেই তাড়া করে ম্যাচ জিতে নেয় টাইগ্রেসরা। ওপেনার সানজিদা একাই করেন ৩০ রান। নিজেদের পরের ম্যাচে পাপুয়া নিউগিনিকে ৬ উইকেট হারায় সালমা খাতুনের দল। ম্যাচটিতে সানজিদার ব্যাট থেকে আসে ১৯ রান। তৃতীয় ম্যাচে অবশ্য সানজিদার ব্যাট হাসেনি। স্কটিশ নারীদের বিপক্ষে তিনি আউট হন মাত্র ৪ রানে।

কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ঠিকই জ¦লে উঠেন সানজিদা। সেমিফাইনালে টাইগ্রেসরা প্রতিপক্ষ হিসেবে পায় আয়ারল্যান্ডকে। ফাইনালে উঠার লড়াইয়ে আগে ব্যাটিং করতে নামা আইরিশ নারীদের ইনিংস গুটিয়ে যায় ৮৫ রানে। জবাব দিতে নেমে সানজিদার অপরাজিত ৩২ রানের ইনিংসে ভর করে ৪ উইকেট হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল। সানজিদা হন ম্যাচসেরা।

ওপেনার সানজিদা ইসলামের জন্ম ১৯৯৬ সালের ১ এপ্রিল রংপুরে। ২০১২ সালের ২৮ আগস্ট আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয় তার। আর ২০১৪ সালে হয় ওয়ানডে অভিষেক। এ পর্যন্ত জাতীয় দলের হয়ে ১৪টি ওয়ানডে ও ৪৭টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন তিনি। ওয়ানডেতে ডানহাতি এই ওপেনার করেছেন ১৫৪ রান। আর টি-টোয়েন্টিতে ৪২৮ রান করেছেন তিনি।

:: এসএম সায়েম

গ্যালারি'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj