ক্যাবল কার নির্মাণ প্রকল্প : চুয়েটের সঙ্গে বেজার প্রতিনিধিদের সভা

বৃহস্পতিবার, ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯

চট্টগ্রাম অফিস : ‘নাফ ট্যুরিজম পার্কে ক্যাবল কার নির্মাণ’ প্রকল্পে কারিগরি সহায়তা নিয়ে চুয়েটের সঙ্গে বেজার প্রতিনিধিদের মতবিনিময় সভা করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের কনফারেন্স হলে গতকাল বুধবার অধ্যাপক ড. মো. হযরত আলীর সভাপতিত্বে সভা করা হয়।

কক্সবাজারের জালিয়ার দ্বীপে নির্মাণাধীন নাফ ট্যুরিজম পার্কে ক্যাবল কার স্থাপন প্রকল্পের পরামর্শক হিসেবে চুয়েটের একটি বিশেষজ্ঞ টিমকে চলতি বছর ২১ মার্চ নিয়োগ দেয় বেজা। চুক্তির আওতায় ক্যাবল কার স্থাপনে সম্ভাব্যতা যাচাই, পরিবেশগত ও সামাজিক প্রভাব সমীক্ষা চালাবে চুয়েট।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের কনফারেন্স হলে মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন চুয়েটের ভিসি অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম, বেজার ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি প্রতিনিধিদল ও চুয়েটের কয়েকজন বিশেষজ্ঞ।

জাপার কাউন্সিল

২১ ডিসেম্বর

কাগজ প্রতিবেদক : জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের বলেছেন, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কাউন্সিল আগামী ২১ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। তাই অক্টোবর মাসের মধ্যেই জাতীয় ছাত্র সমাজের পূর্ণাঙ্গ কমিটি দিতে হবে। গতকাল বুধবার রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে জাপার অঙ্গ সংগঠন জাতীয় ছাত্র সমাজের কেন্দ্রীয় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব ফয়সাল দিদার দিপুর সঞ্চালনায় এতে সভাপতিত্ব করেন ছাত্র সমাজের আহ্বায়ক জামাল উদ্দিন। বিশেষ অতিথি ছিলেন পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা। বক্তব্য রাখেন জাতীয় ছাত্র সমাজের সাবেক ও বর্তমান নেতারা।

জিএম কাদের বলেন, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ছাত্র রাজনীতি বন্ধ করেছিলেন। কারণ তিনি চাননি ছাত্রদের ব্যবহার করে লাঠিয়াল বাহিনী বানাতে। তিনি বলেন, ব্যক্তিস্বার্থে রাজনীতি করো না। রাজনীতি হতে হবে জনসেবার জন্য। রাজনীতি করতে টাকা লাগে কিন্তু টাকার জন্য রাজনীতিকে ব্যবসায় রূপান্তর করা যাবে না। ছাত্র রাজনীতি হবে শিক্ষা, শান্তি ও প্রগতির জন্য।

জাতীয় পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, মাঝে কিছু সমস্যার কারণে আপনারা দ্বিধাদ্ব›েদ্ব ছিলেন। সেই সংকট কেটে গেছে। জাপা এখন মুক্ত হয়েছে। সিনিয়র নেতাদের উদ্দেশে রাঙ্গা বলেন, প্রেসিডিয়াম সদস্যরা ঢাকায় বসে তামাশা করবেন, গোলযোগ করার চেষ্টা করবেন এমনটি করার সুযোগ দেয়া হবে না। এলাকায় যেতে হবে, পার্টিকে সংগঠিত করতে হবে। যে সব নেতার সন্তানরা অন্য পার্টি করেন তাদের ভবিষ্যতে কোনো নির্বাচনে মনোনয়ন দেয়া হবে না। যদি আমি মহাসচিব থাকি তাহলে তারা মনোনয়ন পাবেন না। আমি পার্টি ঠিক করতে এসেছি। যদি না পারি নিজে ছেড়ে চলে যাব।

এই জনপদ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj