সংসদে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী : ১৭ লাখ ৫২ হাজার একর জমিতে পাট উৎপাদন হয়েছে

মঙ্গলবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

কাগজ প্রতিবেদক : চলতি মৌসুমে সারাদেশে ১৭ লাখ ৫২ হাজার একর জমিতে পাট উৎপাদন হয়েছে বলে সংসদকে জানিয়েছেন বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী। গতকাল সোমবার সংসদ সদস্য এনামুল হকের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি সংসদকে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, কৃষক যাতে পাটের সঠিক মূল্য পায়, সে জন্য বিজেএমসি কর্তৃক পাটের উপযুক্ত মূল্য নির্ধারণ করে পাট উৎপাদনকারীদের কাছ থেকে সরাসরি পাট কেনা হচ্ছে। এতে করে চাষিরা ন্যায্যমূল্য পাচ্ছেন। ২০১৯-২০ অর্থবছরে মিলঘাট ছাড়াও ৪৮টি ক্রয়কেন্দ্রের মাধ্যমে পাট কেনার কার্যক্রম চলমান আছে। এ ছাড়া পাট কেনার জন্য ১ হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠনের প্রস্তাবনা রয়েছে।

ফরিদুল হক খানের এক প্রশ্নের জবাবে পাট খাতের বিদ্যমান সমস্যা তুলে ধরে তিনি বলেন, উন্নত জাতের পাট বীজের অভাব ও আমদানি নির্ভরতা, পাট পচনের জন্য পানির স্বল্পতা, দেশব্যাপী পাট অধিদপ্তরের দপ্তর, জনবল ও যানবাহন না থাকা, আন্তর্জাতিক বাজার সংকোচন, উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি, রপ্তানির ওপর ভারত কর্তৃক এন্টি ডাম্পিং শুল্ক আরোপ ও পর্যাপ্ত বিদেশি বিনিয়োগের অভাব রয়েছে।

এসব সমস্যা নিরসনে সরকার স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নিয়েছে। এসব পরিকল্পনার মধ্যে ‘পণ্যে পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক ব্যবহার আইন-২০১০’ এর আওতায় নির্ধারিত ধান, গম, ভুট্টা, সার, চিনি, মরিচ, পেঁয়াজ, আলু, আটাসহ ১৯টি পণ্যের মোড়কীকরণে ব্যাগ তৈরি, বিশে^র প্রধান প্রধান পাটপণ্যের বাজারগুলোর আন্তর্জাতিক মেলায় অংশ নিয়ে রপ্তানি বাড়ানোর সর্বাত্মক চেষ্টাসহ নতুন নতুন পণ্যের উদ্ভাবনে গবেষণা অব্যাহত রয়েছে।

দ্বিতীয় সংস্করন'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj