জাহাঙ্গীরনগর বিশ^বিদ্যালয় : ভিসিপন্থি শিক্ষকদের মৌনমিছিল আন্দোলনকারীদের গণসংযোগ

মঙ্গলবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

জাবি প্রতিনিধি : জাহাঙ্গীরনগর বিশ^বিদ্যালয়ে চলমান আন্দোলনে ক্ষুব্ধ শিক্ষকদের একটি বড় অংশ। মূলত উপাচার্যপন্থি শিক্ষক ও কর্মকর্তারা এ আন্দোলনকে উন্নয়নবিরোধী এবং ষড়যন্ত্রমূলক আখ্যা দিয়ে এর প্রতিবাদে নানা কর্মসূচি পালন করছেন। এরই অংশ হিসেবে গতকাল সোমবার মৌনমিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছেন উপাচার্যপন্থি শিক্ষকরা। এর আগে একই দাবিতে গত ২ সেপ্টেম্বর মানববন্ধন করেছিলেন উপাচার্যপন্থি শিক্ষক ও কর্মকর্তারা।

গতকাল সোমবার বেলা ১১টায় ‘বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ’ ব্যানারে বিশ^বিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদ ভবন থেকে শিক্ষকদের মৌনমিছিলটি শুরু হয়ে পুরনো প্রশাসনিক ভবনে গিয়ে শেষ হয়। দেড় শতাধিক শিক্ষকের অংশগ্রহণে মৌনমিছিল শেষে বিশ^বিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে শিক্ষকদের একটি প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। পরিসংখ্যান বিভাগের অধ্যাপক আলমগীর কবিরের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত ওই সভায় ‘বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ’ এর সভাপতি অধ্যাপক মো. আব্দুল মান্নান চৌধুরী বলেন, একটি মহল উন্নয়ন বন্ধ করার জন্য চক্রান্ত করছে। আমি বিশ^াস করি তাদের চক্রান্ত সফল হবে না। কোনো আন্দোলন করে এই উন্নয়নকে বন্ধ করা যাবে না। শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক অজিত কুমার মজুমদার বলেন, বিশ^বিদ্যালয়ের উন্নয়নের স্বার্থে আলোচনা করে উদ্ভূত সমস্যার সমাধান করা যেতে পারে। তা না করে আন্দোলনের মাধ্যমে প্রতিহত করা কাম্য নয়। এ সময় তিনি সবাইকে আলোচনার জন্য আহ্বান জানান।

মৌনমিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশে ‘বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ’-এর সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক বশির আহমেদ, অধ্যাপক সোহেল আহমেদ, অধ্যাপক আলী আজম তালুকদার, অধ্যাপিকা রাশেদা আখতারসহ দেড় শতাধিক শিক্ষক নেন।

প্রসঙ্গত, বিশ^বিদ্যালয়ের অধিকতর উন্নয়নের জন্য বরাদ্দকৃত ১৪৪৫ কোটি ৩৬ লাখ টাকার উন্নয়ন প্রকল্পে আর্থিক কেলেঙ্কারির তদন্ত, মাস্টারপ্ল্যান পুনর্বিন্যাসসহ তিন দফা দাবিতে ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ব্যানারে মাসব্যাপী বিক্ষোভ, পথনাটক, মশাল মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করছে বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের একাংশ।

আন্দোলনকারীদের গণসংযোগ : এদিকে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে। গতকাল সোমবার আন্দোলনকারীরা বিশ^বিদ্যালয় ক্যাম্পাসে পূর্ব ঘোষিত গণসংযোগ করেন। রবীন্দ্রনাথ হল সংলগ্ন এলাকা থেকে নির্মাণাধীন হল অন্যত্র সরানো, মহাপরিকল্পনার পুনর্বিন্যাস এবং ভিসি ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে আনা দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তসহ আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে দিনভর গণসংযোগ চালিয়েছেন ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ব্যানারের শিক্ষার্থীরা।

অন্যদিকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে আগামী বৃহস্পতিবার আন্দোলনকারী শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সঙ্গে স্থগিত হওয়া আলোচনার আহ্বান জানানো হয়েছে।

দ্বিতীয় সংস্করন'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj