চট্টগ্রামে আফগানদের ঐতিহাসিক জয়

মঙ্গলবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

খেলা প্রতিবেদক : চতুর্থ দিন শেষেই চট্টগ্রাম টেস্টের নিয়ন্ত্রণ পুরোপুরি নিজেদের হাতে নিয়ে ফেলেছিল আফগানিস্তান। ম্যাচ জিততে শেষ দিনে টাইগারদের প্রয়োজন ছিল ২৬২ রান। আর আফগানদের মাত্র ৪ উইকেট। মাত্র ৪ উইকেট হাতে রেখে রশিদ খান, মোহাম্মদ নবি ও জহির খানদের মতো বিশ্বমানের স্পিনারদের বিপক্ষে শেষ দিনে ২৬২ রান তাড়া করে ম্যাচ জেতা বিশ্বের যে কোনো দলের পক্ষেই অসম্ভব। তাই পঞ্চম দিনে টাইগাররা তাকিয়ে ছিল বৃষ্টির দিকে। বেরসিক বৃষ্টিও কখনো কখনো আশীর্বাদ হয়ে দেখা দেয়। গতকাল ম্যাচের পঞ্চম দিনের অধিকাংশ সময় ভেস্তে গেছে বৃষ্টিতে, যা টাইগারদের জন্য আশীর্বাদই বটে। তবে শেষ রক্ষা হয়নি। বৃষ্টি থামার পর শেষ বিকেলে ম্যাচ যখন মাঠে গড়ায় তখন দিনের খেলার বাকি ছিল আর মাত্র ১৯ ওভার। ফলে চট্টগ্রাম টেস্ট ড্র করার দারুণ এক সুযোগ তৈরি হয় রাসেল ডমিঙ্গোর শিষ্যদের সামনে। কিন্তু স্বাগতিকরা অবশিষ্ট ৪ উইকেট হারায় দিনের ৪ ওভার বাকি থাকতে। ফলে ২২৪ রানের ঐতিহাসিক এক জয় পায় রশিদ খানের নেতৃত্বাধীন আফগানিস্তান। ব্যাটে-বলে দারুণ পারফরমেন্সের জন্য আফগান দলপতির হাতেই উঠে ম্যাচসেরার পুরস্কার।

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ে নামে আফগানিস্তান। প্রথম ইনিংসে আফগানরা করে ৩৪২ রান। জবাবে বাংলাদেশ ২০৫ রানে অলআউট হয়। এরপর নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ২৬০ রান করে রশিদ খানের দল। ফলে বাংলাদেশের সামনে ৩৯৮ রানের জয়ের লক্ষ্যমাত্রা দাঁড়ায়। এ লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ৬ উইকেটে ১৩৬ রান তুলে চতুর্থ দিন শেষ করেন স্বাগতিকরা। পঞ্চম দিনের প্রথম সেশনের পুরোটা সময় ভেস্তে যায় বৃষ্টিতে। দুপুর ১টার দিকে ম্যাচ মাঠে গড়ালেও ১৩ বলের বেশি স্থায়ী হয়নি। কারণ আবার মুষলধারে বৃষ্টি নামে। বিকেল ৪টা ২০ মিনিটে ফের মাঠে গড়ায় খেলা।

মাত্র ১৯ ওভার ধৈর্যের পরীক্ষা দিতে পারলেই হার এড়ানো সম্ভব হতো। কিন্তু টাইগার দলপতি সাকিব সাজঘরে ফেরেন আফগান

চায়নাম্যান স্পিনার জহির খানের প্রথম বলেই। জহিরের অফ স্টাম্পের বাইরের বল সাকিবের ব্যাট স্পর্শ করে উইকেটরক্ষক আফসার জাজাইয়ের তালুবন্দি হয়। ফলে ম্যাচ ড্র করা কঠিন হয়ে ওঠে টাইগারদের পক্ষে। আউট হওয়ার আগে বাংলাদেশ অধিনায়ক খেলেন ৪৪ রানের ইনিংস, যা দ্বিতীয় ইনিংসে টাইগারদের দলীয় সর্বোচ্চ। এরপর মেহেদী হাসান মিরাজকে নিয়ে কিছুক্ষণ ক্রিজে টিকে থাকার লড়াই চালান সৌম্য সরকার। ২৮ বলে ১২ রান করে আউট হন মিরাজ। তার বিদায়ের পর মাত্র ৬ বল খেলেই আম্পায়ারের ভুল সিদ্ধান্তের বলি হন তাইজুল। শেষ উইকেটে নাঈম হাসান ও সৌম্য কিছুটা প্রতিরোধ গড়েছিলেন। তবে রশিদের বলে সৌম্য ইব্রাহিম জাদরানের হাতে ক্যাচ দিলে জয় নিশ্চিত হয় আফগানদের। রশিদ খান একাই নেন ৬ উইকেট।

এটি নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসে আফগানিস্তানের দ্বিতীয় জয়। এ পর্যন্ত খেলা ৩ টেস্টের দুটিতেই জিতল তারা। টাইগারদের আগে আফগানরা হারিয়েছে আয়ারল্যান্ডকে, আর হেরেছে ভারতের বিপক্ষে। বাংলাদেশের বিপক্ষে জয়ের মধ্য দিয়ে অজিদের একটি কীর্তিতে ভাগ বসাল কাবুলিওয়ালারা। অস্ট্রেলিয়ার পর দ্বিতীয় দল হিসেবে নিজেদের প্রথম তিন টেস্টের দুটিতেই জয়ের স্বাদ পেলেন রশিদ-নবিরা।

শেষ পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj