ক্যারিয়ারের শেষ টেস্ট খেলে ফেললেন নবি

মঙ্গলবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

খেলা প্রতিবেদক : ক্রিকেটে বেশ ভালোভাবেই এগোচ্ছে আফগানিস্তান। নিজেদের দিনে বিশে^র যে কোনো দলকেই হারানোর সামর্থ্য তাদের রয়েছে। ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে সাফল্য দেখিয়ে ইতোমধ্যে টেস্ট স্ট্যাটাসও পেয়েছে কাবুলিওয়ালারা। টেস্ট মর্যাদা পাওয়ার পর তারা দেখতে দেখতে ক্রিকেটের অভিজাত সংস্করণে ৩টি ম্যাচও খেলে ফেলেছে। বলা যায়, গত কয়েক বছর ধরে অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগোচ্ছে আফগান ক্রিকেট। আর ক্রিকেটে আফগানিস্তানকে ভালো একটি দলে পরিণত করতে যে কয়জন খেলোয়াড়ের অবদান সবচেয়ে বেশি তাদের মধ্যে অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নবি অন্যতম। আফগানিস্তান টেস্টে এখনো নবীন। তাই স্বাভাবিকভাবে মোহাম্মদ নবিও সাদা পোশাকে খুব বেশি ম্যাচ খেলার সুযোগ পাননি। সবার ধারণা ছিল নিজের টেস্ট ক্যারিয়ারকে দীর্ঘ করবেন ডানহাতি এই অলরাউন্ডার। কিন্তু সেটা হচ্ছে না। বাংলাদেশের বিপক্ষে গতকাল শেষ হওয়া চট্টগ্রাম টেস্ট দিয়েই সাদা পোশাকের ক্রিকেটকে বিদায় বলেছেন তিনি। অবশ্য ঘোষণাটা নবি আগেই দিয়ে রেখেছিলেন। চট্টগ্রাম টেস্ট শুরুর আগেই নবির অবসরের বিষয়টি গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে নিশ্চিত করেছিলেন আফগান ক্রিকেট দলের ম্যানেজার আবদুর রাহিমজাই। তবে টেস্ট থেকে অবসর নিলেও ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে খেলা আরো বেশ কয়েক বছর চালিয়ে যাবেন তিনি।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মোহাম্মদ নবির অভিষেক হয় ২০০৯ সালের ১৮ এপ্রিল স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে ম্যাচ দিয়ে। ক্যারিয়ারের প্রথম ওয়ানডেতেই ব্যাটিংয়ে ঝলক দেখান তিনি। ব্যাট হাতে খেলেন ৫৮ রানের অসাধারণ এক ইনিংস। আর ওই ম্যাচে বোলিংয়ে উইকেট না পেলেও ৮ ওভারে দেন মাত্র ৪১ রান। সেই যে শুরু, এরপর মোহাম্মদ নবিকে আর থামতে হয়নি। ব্যাটে-বলে দুর্দান্ত পারফরমেন্স দিয়ে এক পর্যায়ে নিজেকে পরিণত করেন আফগান জাতীয় দলের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সদস্যে। ২০১৩ সালের মার্চে তিনি ওয়ানডেতে আফগান জাতীয় দলের নেতৃত্ব পেয়েছিলেন। একই সময়ে টি-টোয়েন্টিতেও দলকে নেতৃত্ব দেয়ার দায়িত্ব পড়ে তার

কাঁধে। টানা দুই বছর তার নেতৃত্বেই ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সংস্করণে খেলে আফগানিস্তান। আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব ছাড়ার পরও মাঝেমাঝে নবিকে দলের নেতৃত্বে দেখা গেছে।

মোহাম্মদ নবির টি-টোয়েন্টি অভিষেক হয় ২০১০ সালের ফেব্রুয়ারিতে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে। তিনি এ পর্যন্ত ১২১টি ওয়ানডে ও ৬৭টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন। ওয়ানডেতে ব্যাট হাতে ২৭১৩ ও বোলিংয়ে ১২৮ উইকেট পেয়েছেন তিনি। ৫০ ওভারের ক্রিকেটে তার একটি সেঞ্চুরিও আছে। অন্যদিকে টি-টোয়েন্টিতে ব্যাট হাতে করেছেন ১১৩১ রান। আর বোলিংয়ে পেয়েছেন ১২৮ উইকেট।

আফগানিস্তান এখন পর্যন্ত ৩টি টেস্ট খেলেছে। যেখানে সবকটি ম্যাচই খেলেছেন নবি। আফগানরা তাদের টেস্ট ইতিহাসের প্রথম ম্যাচটি খেলে ভারতের বিপক্ষে। ওই ম্যাচে নবি ব্যাটিংয়ে ২৪ রান করার পাশাপাশি বোলিংয়ে ১ উইকেট নেন। নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসের দ্বিতীয় টেস্টেই জয় পায় কাবুলিওয়ালারা। ম্যাচটিতে তাদের প্রতিপক্ষ ছিল টেস্টের আরেক নবীন দল আয়ারল্যান্ড। ওই ম্যাচে ব্যাট হাতে ব্যর্থ হলেও বোলিংয়ে ঝলক দেখান মোহাম্মদ নবি। ৩ উইকেট নিয়ে দলের জয়ে রাখেন গুরুত্বপূর্ণ অবদান। আর বল হাতে নবির ঝলক অব্যাহত থাকে বাংলাদেশের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টেও। গতকাল শেষ হওয়া ম্যাচটিতে ৩ উইকেট নেন তিনি।

বয়স এখন ৩৪ বছর। তবে নবির ফিটনেস এখনো বেশ ভালো। চাইলে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টির পাশাপাশি টেস্ট খেলাও চালিয়ে নিতে পারতেন আরো বেশ কয়েক বছর। এরপরও কেন টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসরের সিদ্ধান্ত নিলেন নবি- তা নিয়ে ক্রিকেটপ্রেমীদের মনে জন্ম নিয়েছে নানা কৌত‚হল। গত ১ আগস্ট ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে শুরু হয়েছে আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ। প্রথমবারের মতো চালু হওয়া এই টুর্নামেন্টে অংশ নেবে ৯টি দল। র‌্যাঙ্কিংয়ের পেছনের দিকে থাকায় আফগানরা টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নিতে পারছে না। তাই আগামী কয়েক বছর খুব কমই টেস্ট খেলার সুযোগ পাবে তারা। মূলত এ বিষয়টি ভেবেই ওয়ানডে ও টি- টোয়েন্টিতে আরো বেশি মনোযোগ দেয়ার উদ্দেশ্যে টেস্ট ক্রিকেটকে বিদায় বলেছেন মোহাম্মদ নবি।

শেষ পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj