গৃহশিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ : পটুয়াখালীতে ছাত্রীকে আটকে রেখে ২০ দিন ধরে ধর্ষণ

মঙ্গলবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

কাগজ ডেস্ক : পটুয়াখালীতে স্কুলছাত্রীকে তুলে নিয়ে আটকে রেখে ২০ দিন ধরে ধর্ষণ করেছে গৃহশিক্ষক। খবর পেয়ে অভিযান চালিয়ে ধর্ষণে সহায়তাকারী এক নারীকে গ্রেপ্তার করেছে র?্যাব। সেই সঙ্গে স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার করা হয়। অভিযানের বিষয়টি টের পেয়ে গৃহশিক্ষক পালিয়ে যায়। লক্ষীপুরের রায়পুরে মামার বাড়িতে যাওয়ার পথে ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীকে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে পরিত্যক্ত বাড়িতে আটকে রেখে রাতভর গণধর্ষণের ঘটনায় মূল হোতাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বগুড়ার আদমদীঘিতে এক নারীকে এক দল বখাটে ভ্যান থেকে নামিয়ে গণধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গাছে। ধর্ষিতা ওই নারীকে মুমূর্ষু অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় ১ জনকে আটক করেছে পুলিশ। মাদারীপুরে চতুর্থ শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। পুলিশ ওই শিক্ষার্থীকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। নাটোরের গুরুদাসপুরে শিশুকে বলাৎকারের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় আসামিকে আটক করা হয়েছে। চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় স্কুলছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে ৩ কিশোরকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সিলেটে ধর্ষণ মামলার এক আসামি ধরতে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন ৪ পুলিশ সদস্যসহ ৫ জন। নিচে এ সম্পর্কে আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

পটুয়াখালী : স্কুলছাত্রীকে তুলে নিয়ে আটকে রেখে ২০ দিন ধরে ধর্ষণ করেছে গৃহশিক্ষক। খবর পেয়ে অভিযান চালিয়ে ধর্ষণে সহায়তাকারী

আকলিমা বেগমকে (৪৫) গ্রেপ্তার করেছে র?্যাব। সেই সঙ্গে স্কুলছাত্রীকে (১৩) উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল সোমবার সকাল ১০টার দিকে পটুয়াখালী শহরের সবুজবাগ এলাকায় অভিযান চালিয়ে স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার ও ধর্ষকের সহযোগী আকলিমা বেগমকে গ্রেপ্তার করা হয়। তবে অভিযানের বিষয়টি টের পেয়ে গৃহশিক্ষক মাসুদ পালিয়ে যায়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে পটুয়াখালী র?্যাব-৮ এর ভারপ্রাপ্ত কোম্পানি কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রইছ উদ্দিন বলেন, ২০ আগস্ট সকালে বিদ্যালয়ের উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয় আবদুল হাই বিদ্যানিকেতনের অষ্টম শ্রেণির ওই শিক্ষার্থী। পথিমধ্যে স্কুলছাত্রীকে অপহরণ করে নিয়ে যায় গৃহশিক্ষক মো. মাসুদ রানা শুভ (২৬) ও তার সহযোগী আকলিমা বেগম। অনেক খোঁজাখুঁজির পরও স্কুলছাত্রীকে না পেয়ে ২১ আগস্ট পটুয়াখালী সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দেন ছাত্রীর মা। সেই সঙ্গে মেয়েকে উদ্ধারে র‌্যাবের সহযোগিতা চান তিনি। সোমবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শহরের সবুজবাগের মনু ফকিরের বাড়ির ভাড়াটিয়া আকলিমা বেগমের বাসায় অভিযান চালিয়ে ছাত্রীকে উদ্ধার করে র?্যাব। সেই সঙ্গে আকলিমা বেগমকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় ধর্ষক মাসুদ রানা কৌশলে পালিয়ে যায়। পরে আকলিমা বেগমকে সদর থানায় হস্তান্তর করা হয়। পাশাপাশি স্কুলছাত্রীকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

লক্ষীপুর : জেলার রায়পুরে মামার বাড়িতে যাওয়ার পথে ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীকে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে পরিত্যক্ত বাড়িতে আটকে রেখে রাতভর গণধর্ষণের ঘটনায় মূল হোতা রাজীব হোসেনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। রবিবার রাতে অভিযান চালিয়ে উপজেলার ঝাউডগী গ্রাম থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এর আগে ওই রাতেই নির্যাতিত ওই ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে ৩ জনের বিরুদ্ধে এ মামলা দায়ের করেন। গ্রেপ্তারকৃত রাজীব হোসেন ওই মামলার প্রধান আসামি। সে উপজেলার চর জাঙ্গালিয়া ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের আলমগীর হোসেনের ছেলে। মামলার অন্য আসামিরা হলো- একই এলাকার রাকিব ও হৃদয়। এদিকে গতকাল সোমবার সকালে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ওই ছাত্রীকে লক্ষীপুর সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার সন্ধ্যায় ওই ছাত্রী তার মামার বাড়িতে যাচ্ছিল। পথে মেঘনা বাজার এলাকা থেকে তাকে তুলে নিয়ে যায় চর জাঙ্গালিয়া এলাকার বখাটে যুবক রাজীব, রাকিব ও হৃদয়। তারা পার্শ্ববর্তী একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে আটকে রেখে ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করে। একপর্যায়ে ছাত্রীটি অচেতন হয়ে পড়লে ধর্ষকরা তার হাত-পা বেঁধে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। পরে শনিবার রাতে স্থানীয়রা ওই বাড়িতে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় তাকে দেখতে পান। পরিচয় নিশ্চিত হয়ে ওই ছাত্রীর অভিভাবকদের খবর দেয়া হলে পরিবারের সদস্যরা গিয়ে তাকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করেন।

আদমদীঘি (বগুড়া) : উপজেলার সান্তাহার পৌর শহরের তিয়রপাড়া এলাকায় রবিবার রাতে এক নারীকে এক দল বখাটে ভ্যান থেকে নামিয়ে গণধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ধর্ষিতা ওই নারীকে মুমূর্ষু অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ ১ জনকে আটক করেছে।

ধর্ষিতার চাচা জানান, স্বামী পরিত্যক্তা মেয়েটি পান-সিগারেটসহ বিভিন্ন পণ্যের দোকান দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতেন। রবিবার সন্ধ্যায় দোকান বন্ধ করে চাচাতো ভাই সুজনকে নিয়ে কাশিমালা গ্রামে তার অসুস্থ ফুফুকে দেখতে যাচ্ছিলেন। তাদের বহন করা ভ্যান তিয়রপাড়া পৌঁছামাত্র ১২-১৪ জন বখাটে ভ্যান আটকে সুজন এবং ভ্যানচালক রকির টাকা ও মোবাইল ছিনিয়ে নেয়। এরপর মারপিট শুরু করলে তারা পালিয়ে যায়। পরে বখাটেরা ওই নারীকে ভ্যান থেকে টেনেহিঁচড়ে খাল পাড়ের নির্জন স্থানে নিয়ে ধর্ষণ করে। খবর পেয়ে রাত সাড়ে ১২টার দিকে স্বজনরা অসুস্থ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করেন। বর্তমানে তিনি নওগাঁ আধুনিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

মাদারীপুর : মাদারীপুর পৌরসভার হরিকুমারিয়া স্টাফ কোয়ার্টারের পেছনে চতুর্থ শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে (১০) ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে রনি (২০) নামে এক বখাটের বিরুদ্ধে। গুরুতর অবস্থায় সদর মডেল থানা পুলিশ ওই শিক্ষার্থীকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনায় গতকাল সোমবার সকালে সদর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে। বখাটে রনি মাদারীপুর শ্রমিক ইউনিয়নের পিয়ন হারুন খালাসির ছেলে।

পুলিশ ও নির্যাতিতার পরিবার সূত্রে জানা যায়, রবিবার রাত ৮টার দিকে মাদারীপুরের তরমুগরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থীকে অন্য এক মেয়েকে দিয়ে ডেকে বাড়ির ছাদে নিয়ে যায় পুরান বাসস্ট্যান্ড এলাকার বখাটে রনি। সেখানে নিয়ে ওড়না দিয়ে মুখ ও হাত বেঁধে ওই শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করে। এ সময় ছাত্রীটির পরিবারের লোকজন তাকে খুঁজতে বাড়ির ছাদে উঠলে দৌড়ে পালিয়ে যায় রনি। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ছাত্রীটিকে উদ্ধার করে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনায় সোমবার সকালে সদর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে ছাত্রীর পরিবার।

গুরুদাসপুর (নাটোর) : উপজেলায় এক শিশুকে বলাৎকারের ঘটনা ঘটেছে। গত রবিবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের জুমাইনগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, সকালে একই এলাকার মো. শহিদ আলীর ছেলে রতন আলী শিশুটিকে তেঁতুল খাওয়ার কথা বলে পাশের বাঁশবাগানের পাশে দেবদারু বাগানে নিয়ে গিয়ে বলাৎকার করে। এরপর শিশুটির চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে তৎক্ষণাৎ গুরুদাসপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। এ ঘটনায় শিশুটির বাবা বাদী হয়ে ওই দিনই গুরুদাসপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

গুরুদাসপুর থানার ওসি মো. মোজাহারুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মামলা দায়ের করা হয়েছে এবং আসামিকে আটক করে নাটোর জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

সাতকানিয়া (চট্টগ্রাম) : উপজেলায় স্কুলছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে ৩ কিশোরকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গত রবিবার সন্ধ্যায় উপজেলার রাস্তার মাথা এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- লোহাগাড়ার পদুয়ার ধলিবিলার বদরপাড়া এলাকার আব্দুল আলমের ছেলে মো. সোহেল ইসলাম (১৯), একই ইউনিয়নের মালিপাড়ার মাসুম সওদাগরের ছেলে ইয়াছিন রিফাত সাগর (১৭) এবং মাস্টারপাড়ার জাহাঙ্গীর সওদাগরের বাড়ির নুর হোসেনের ছেলে মো. তুহিন (১৬)।

জানা যায়, সপ্তম শ্রেণির ওই ছাত্রী স্কুলে যাতায়াতের সময় গত কিছু দিন ধরে সোহেল তার বন্ধুদের নিয়ে তাকে বিভিন্নভাবে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। কয়েক দিন আগে ছাত্রীকে স্কুলে যাওয়ার পথে সোহেল প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে মোবাইল নম্বর লিখে দেয়। বিষয়টি ছাত্রী তার পরিবারকে জানায়। রবিবার বিকেলে স্কুল ছুটির পর প্রাইভেট শেষে ছাত্রী বাড়ি ফেরার পথে সাতকানিয়া রাস্তার মাথা এলাকায় সোহেল তার বন্ধুদের নিয়ে পথরোধ করে যৌন হয়রানি করে। ঘটনার খবর পেয়ে ওই ছাত্রীর অভিভাবক ও স্থানীয় লোকজন সোহেলসহ ৩ কিশোরকে ধরে সাতকানিয়া থানায় হস্তান্তর করেন।

সাতকানিয়া থানার ওসি সফিউল কবীর বলেন, বেশ কিছু দিন ধরে ওই ছাত্রী স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে সোহেল তার বন্ধুদের নিয়ে উত্ত্যক্ত করত। রবিবার বিকেলে ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করার খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। স্থানীয়দের সহযোগিতায় রাস্তার মাথা এলাকা থেকে ঘটনায় জড়িত ওই ৩ কিশোরকে আটক করা হয়। ছাত্রীর ভাই বাদী হয়ে থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ধারায় ৩ কিশোরের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। সোমবার তাদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

সিলেট : জেলার ওসমানীনগরে ধর্ষণ মামলার এক আসামি ধরতে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছে পুলিশ। ঘটনায় আহত হয়েছেন চার পুলিশ সদস্যসহ ৫ জন। আহতদের মধ্যে ধর্ষণ মামলার আসামি খোকন মিয়াও (২৮) রয়েছে। গত রবিবার রাত দেড়টার দিকে ওসমানীনগর উপজেলার বড় ইউসুফপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ জানায়, ধর্ষণ মামলার আসামি বাগেরহাটের ধননগর এলাকার জাহাঙ্গীর আলীর ছেলে খোকন মিয়া ওসমানীনগরের বড় ইউসুফপুর গ্রামে এক প্রবাসীর বাড়িতে থাকত। তার বাবা জাহাঙ্গীর আলী প্রবাসীর বাড়ির কেয়ারটেকার। গত রবিবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে তাকে আটকের জন্য অভিযান চালায় ওসমানীনগর থানা পুলিশ।

খোকনকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে আসার সময় তার বাবা ও কয়েকজন লোক পুলিশের ওপর হামলা করলে চার পুলিশ সদস্য আহত হন। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে শর্টগানের গুলি ছুড়লে আহত হয় আসামি খোকন মিয়া।

ওসমানীনগর থানার ওসি এস এম আল মামুন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আহত আসামিকে উদ্ধার করে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শেষ পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj