বিয়ানকা চ্যাম্পিয়ন

সোমবার, ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

খেলা ডেস্ক : পারলেন না সেরেনা। টানা দুইবার ইউএস ওপেনের ফাইনালে উঠেও দুবারই খালি হাতে ফিরতে হলো তাকে। গতকাল ১৯ বছর বয়সী কানাডিয়ান তরুণী বিয়ানকা আন্দ্রেসকুর বিপক্ষে ৬-৩, ৭-৫ সেটে হেরে যাওয়ায় রেকর্ড ২৪ বারের মতো গ্রান্ড¯øামের শিরোপা জেতা হলো না তার। ২০১৮ সালের ইউএস ওপেনের ফাইনালে ২০ বছর বয়সী জাপানিজ টেনিসার নাওমি ওসাকার বিপক্ষে হারেন সেরেনা উইলিয়ামস। এখন প্রশ্ন টেনিস কোর্টের অপ্রতিরোধ্য রানী কি দিনে দিনে বয়সের কাছে হার মানছেন?। বয়সটাও কিন্তু তার কম হয়নি। ৩৭ পেরিয়ে ৩৮ এর দিকে গড়িয়েছে।

সেরেনার বয়সের দিকটি আরো সামনে আসে যখন তার গত দুই বছরের পারফরমেন্সের চিত্র দেখা যায়। ২০১৮-২০১৯ সাল পর্যন্ত চারটি গ্রান্ড¯øামের ফাইনালে উঠেছেন তিনি। কিন্তু অবিশ^াস্যভাবে চারবারই তাকে রানার্সআপের শিরোপা নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে। আর ফাইনালে যারা তার প্রতিপক্ষ ছিল প্রত্যেকের বয়সই ছিল তার চেয়ে ঢের কম। সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো সেরেনা উইলিয়ামস যখন তার ক্যারিয়ারের প্রথম গ্রান্ড¯øামের শিরোপা যেতেন তখন বিয়ানকা আন্দ্রেসকুর জন্মই হয়নি।

অন্যদিকে শিরোপাজয়ী বিয়ানকা আন্দ্রেসকুর ব্যাপারটি যেন ঠিক এ রকম- এলেন, দেখলেন, জয় করলেন। ক্যারিয়ারে এর আগে কখনই ইউএস ওপেনের প্রথম রাউন্ডেই খেলার সুযোগ পাননি। সেই তিনিই একেবারে শিরোপা নিয়ে বাড়ি ফিরলেন।

এ জয়ের ফলে টানা ১৩ ম্যাচে অপরাজিত থাকার অনন্য এক রেকর্ড গড়েছেন তিনি। বিয়ানকার ইউএস ওপেন জয়ের মাত্রাটা অন্যদের চেয়ে আরো অনেক বেশি। কারণ তিনিই যে কানাডার পুরো টেনিসের ইতিহাসে প্রথম টেনিসার হিসেবে কোনো গ্রান্ড¯øামের শিরোপা জিতলেন। আর এই জয়কে নিজের কঠোর পরিশ্রমের ফসল হিসেবে দেখছেন আন্দ্রেসকু। ম্যাচ শেষে তিনি বলেন, ‘আমি অনেক অনেক পরিশ্রম করেছি। আর গত এক বছর ধরে সবকিছু যেন স্বপ্নের মতো কাটছে। এখন পরিশ্রমের ফল পেয়েছি। সেরেনার মতো এমন একজন কিংবদন্তির বিপক্ষে ফাইনাল ম্যাচ জেতা সত্যি অসাধারণ ব্যাপার।’ সেরেনা ও আন্দ্রেসকুর ফাইনালে কিন্তু এবারই প্রথম দেখা নয়। মাসখানেক আগে রজার কাপের ফাইনালে লড়েছিলেন তারা। কিন্তু সেবার ইনজুরির কারণে পুরো ম্যাচ খেলতে পারেননি সেরেনা। ফলে শিরোপা যায় কানাডিয়ান টেনিসারের হাতে। এদিকে গতকাল প্রাইজমানি হিসেবে তিন মিলিয়ন ইউরোর চেক তুলে দেয়া হয় বিয়ানকার হাতে।

খেলা-ধূলা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj