মনে না থাকলেও সমস্যা নেই : সকালে অফিসে বসের সঙ্গে মিটিং, এরপর জরুরি কিছু

রবিবার, ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ই-মেইল যোগাযোগ, বিকেলে সেমিনার, সন্ধ্যায় বন্ধুদের সঙ্গে দেখা করা। প্রতিদিন এমন ব্যস্ততায় কাটে অনেকের। এত কিছু কি মনে রাখা সম্ভব! এসবের সঙ্গে আছে ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রামসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও ডেবিট কিংবা ক্রেডিট কার্ডে পাসওয়ার্ড মনে রাখার ঝামেলা। অনেক কিছুই মনে রাখতে হয়। প্রযুক্তি আপনাকে অনেক বিষয় মনে রাখার ঝামেলা থেকে কিছুটা হলেও মুক্তি দেবে।প্রতিদিনই আমাদের রুটিনমাফিক চলতে হয়। বিশেষ বিশেষ দিনগুলো আমাদের সতর্কতার সঙ্গে মনে রাখতে হয়। এমন যদি হয় কেউ আপনাকে এসএমএস বা ই-মেইলে বিশেষ দিন বা উপলক্ষ আগেই জানিয়ে দিল! এসব তো আর অন্য কারো ওপর ছেড়ে দেয়া যায় না। প্রযুক্তি এ ক্ষেত্রে ভালো সহকারী। গুগল ক্যালেন্ডার আপনার এসব দিনক্ষণ নির্দিষ্ট সময়ের এসএমএস, ই-মেইলে বা পপআপ হিসেবে মনে করিয়ে দেবে, তাও আবার বিনা পয়সায়। তাই গুরুত্বপূর্ণ কাজ মনে করিয়ে দেয়ার ভার গুগল ক্যালেন্ডারকে দিয়ে আপনি থাকুন নিশ্চিন্তে।

মোবাইল ফোন আর কম্পিউটারের রিমাইন্ডার সেবা তো বটেই, এসএমএসের মাধ্যমেও গুরুত্বপূর্ণ মিটিং বা দিবসের রিমাইন্ডার সেবা পেতে পারেন। এমনকি ই-মেইল সাবস্ক্রাইবও করে রাখতে পারেন আপডেট রিমাইন্ডার জানার জন্য। গুগল ক্যালেন্ডারের পাশাপাশি গুগল নাউ সেবাতে নতুন রিমাইন্ডার অপশন যুক্ত আছে। এই অপশনটির কল্যাণে রিমাইন্ডার নিয়মিত আপডেট পাবেন ব্যবহারকারী। একবার সেট করে নিলে এসএমএস রিমাইন্ডার সেবা চলতেই থাকবে। ব্যবহারকারী ইচ্ছা করলেই তার এন্ট্রি করা সব তথ্য সবাইকে জানান দিতে পারেন অথবা পছন্দ অনুযায়ী শেয়ারও করতে পারবেন। এ জন্য গুগল ক্যালেন্ডারে একটি ডিফল্ট শেয়ারিং অপশন রয়েছে। সাধারণত মাসব্যাপী বা সপ্তাহব্যাপী যেসব পাবলিক ইভেন্ট রয়েছে, সেগুলো তৈরি করেই অনেকে শেয়ার করে থাকেন। আপনার মোবাইল ফোনটিকে নোটবুক ও রিমাইন্ডার হিসেবেও ব্যবহার করতে পারেন। প্রতিটি স্মার্টফোনে রিমাইন্ডার ফিচারটি যুক্ত থাকে। এ ছাড়াও মাইক্রোসফট মেইল অ্যান্ড ক্যালেন্ডারের মাধ্যমে একটি সম্মিলিত ক্যালেন্ডার ও শিডিউল তৈরি করা সম্ভব। এর মাধ্যমে কার, কোথায়, কখন কোন কাজ রয়েছে, তা প্রতিষ্ঠানের সবাই জানতে পারে। নোটবুক হিসেবে ব্যবহার করতে চাইলে গুগল প্লে-স্টোর থেকে বিভিন্ন অ্যাপস ডাউনলোড করে নিতে পারেন। এ ধরনের অ্যাপের মধ্যে কালার নোট অনেক জনপ্রিয়। আমাদের দৈনন্দিন কাজের সুবিধার্থে বর্তমানে স্মার্টফোনে চালু হয়েছে হাজার রকমের অ্যাপস, যা দিয়ে যে কোনো কিছু করা সম্ভব। প্রতিদিনের প্রয়োজন থেকে শুরু করে আমাদের জীবনে যা যা প্রয়োজন হয়, তার সমাধান মেলে এই স্মার্টফোনেই। স্মার্টফোনের বরাতে ছুটিতে গেছে অ্যালার্ম ঘড়িও। আজকাল ঘুম থেকে ওঠার জন্য অনেকেই আর অ্যালার্ম ঘড়ির চাবি ঘোরান না। রয়েছে রিমাইন্ডার অ্যাপস।

:: ডটনেট ডেস্ক

ডট নেট'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj