স্বাচ্ছন্দ্যে বাইক চালানোর পরামর্শ

রবিবার, ১ সেপ্টেম্বর ২০১৯

মোটরবাইক চালানো ভালো লাগে না এমন মানুষ কম আছেন। আর মোটরবাইক চালানোর ক্ষেত্রে এক অন্য রকম বিস্ময় থাকে যখন কোনো মেয়েকে মোটরবাইক চালাতে দেখা যায়। তাহলে চলুন দেখে নেই মেয়েদের মোটরবাইক চালানোর কয়েকটি টিপস।

স্বাচ্ছন্দ্য মত চালানো : যে কোনো মোটরবাইক নির্বাচন করার আগে দেখতে হবে, আপনি তা চালাতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন কিনা। এই ব্যাপারটিকে অনেক মেয়েই পাত্তা দেয় না, তারা যে কোনো একটা মোটরবাইক কিনে ফেলে। কিন্তু পরবর্তীতে দেখা যায় যে, তারা তাদের পছন্দকৃত মোটরবাইকটি চালাতে মোটেও স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছে না।

আর যে মোটরবাইকতে আপনি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন না, সেটি ব্যবহার করার ক্ষেত্রে আপনার আতœবিশ্বাস অনেক কম থাকবে। তখন যে কোনো ভ্রমণ আপনার কাছে বিরক্তিকর মনে হবে। নিজেকে জিজ্ঞেস করুন কোন মোটরবাইকটিতে আপনি সবচেয়ে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন যেমন- ট্যুরিং, স্পোর্টস, অফ, রোড, এন্ডুরো।

আরামদায়ক পোশাক পরিধান : মোটরবাইক চালানোর সময়টা অন্য মুহূর্তের চেয়ে আলাদা। এ সময় আপনার অনুভূতি থাকবে অন্যরকম, তখন প্রতিদিনের পরিধানকৃত পোশাকেও স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন না। তাই মোটরবাইক চালানোর আগে খেয়াল করুন কোন ধরনের পোশাক তখন আপনার জন্য আরামদায়ক হয়।

দক্ষতা বাড়ানো : নিজের মোটরবাইক চালানোর আগে অবশ্যই আপনাকে তাতে দক্ষ হতে হবে। এক্ষেত্রে আপনি মোটরবাইক চালানো শিখার একটি কোর্স ক্লাসে ভর্তি হতে পারেন।

হালকা ব্যাগ বহন : জিন ব্যাগ, ট্রাঙ্ক ব্যাগ, ট্রাঙ্ক এগুলো সবই ভালো তবে অতিরিক্ত প্যাকিং করা ঠিক নয়। ভ্রমণে খুব প্রয়োজনীয় জিনিস ছাড়া বাড়তি কিছু নেবেন না। ভ্রমণের সঙ্গে যত কম জিনিস থাকবে আপনি তত স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন।

কাক্সিক্ষত জায়গা সম্পর্কে জানা : সাধারণত আপনার নির্ধারিত ভ্রমণের জায়গার সবকিছু আপনি চিনবেন না।

তাই ভ্রমণের পূর্বে সেই জায়গার মানচিত্র সম্পর্কে যতটুকু সম্ভব ধারণা নিন। এ ছাড়াও ভ্রমণের আগে সেই জায়গার আবহাওয়া সম্পর্কেও জানা উচিত। এতে করে আপনি আপনার পুরো মোটরবাইক ভ্রমণটি উপভোগ করতে পারবেন।

বিরতি নেয়া : আপনার গন্তব্যের দূরত্ব জানা বাঞ্ছনীয়। কেননা মেয়েরা একটানা কয়েক ঘন্টার বেশি মোটরবাইক চালাতে পারেন না। তাই যাত্রা বিরতি দরকার, এতে করে ক্লান্তির পরও আপনি আবার যাত্রা শুরু করার উদ্যম ফিরে পাবেন।

একটি রুটিন তৈরি করুন : সাধারণত গরমের সময় একটু সকাল সকাল যাত্রা শুরু করা উচিত। সকাল সকাল আবহাওয়া মোটামুটি ভালো থাকে এবং একটানা অনেকক্ষণ চালানো যায়। পরে দুপুরের খাবারের জন্য খুব ভালো একটা যাত্রা বিরতি হয়।

রাস্তা : আপনার গন্তব্যস্থলে পৌঁছানোর জন্য অবশ্যই আপনাকে সঠিক রাস্তাটি নির্বাচন করতে হবে। অনেকে হাইওয়ে পছন্দ করেন না,

কিন্তু হাইওয়েতে গেলে আপনার যাত্রা অনেকটা সহজ ও ঝঞ্ঝাটমুক্ত হবে।

সাধারণ নিয়মাবলি জানা : আপনার মোটরবাইক যাত্রাটি অবশ্যই দুঃসাহসিক হবে না যদি না তাতে কোনো গরমিল হয়। এজন্য আপনাকে যে কোনো ক্ষেত্রে প্রস্তুত থাকতে হবে।

ফ্যাশন (ট্যাবলয়েড)'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj