কেমন হবেন নতুন কোচ

মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯

অবশেষে দক্ষিণ আফ্রিকার রাসেল ডমিঙ্গোকেই জাতীয় দলের প্রধান কোচ হিসেবে বেছে নিল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। গত শনিবার তাকে কোচ হিসেবে নিয়োগ দেয়ার বিষয়টি সাংবাদিকদের কাছে নিশ্চিত করেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। ১৯৯০ সালে এক নতুন যুগে প্রবেশ করে বাংলাদেশের ক্রিকেট। ওই বছরই প্রথমবারের মতো বিদেশি কোচ নিয়োগ দেয় বাংলাদেশের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিসিবি। আর কোচ হিসেবে নিয়োগ পাওয়া ব্যক্তিটির নাম ভারতের মহিন্দর অমরনাথ। সেই যে শুরু, এরপর থেকে আরো অনেক বিদেশি কোচের অধীনে খেলেছে টাইগাররা। এ তালিকায় সর্বশেষ সংযোজন দক্ষিণ আফ্রিকার রাসেল ডমিঙ্গো। মহিন্দর অমরনাথ থেকে রাসেল ডমিঙ্গো পর্যন্ত সব মিলিয়ে মোট ১৩ জন কোচের অধীনে খেলেছে বাংলাদেশ জাতীয় দল। বাংলাদেশের ক্রিকেট পাড়ায় গত কয়েকদিন ধরে একটা বিষয়ই আলোচিত হচ্ছে সবচেয়ে বেশি। আর তা হলো কেমন হবেন টাইগারদের নতুন কোচ রাসেল ডমিঙ্গো।

কোচ হিসেবে রাসেল ডমিঙ্গো ক্রিকেট বিশে^ দারুণ পরিচিত। তবে খেলোয়াড়ি জীবনে জাতীয় দলের হয়ে কখনোই খেলতে পারেননি তিনি। তার জন্ম দক্ষিণ আফ্রিকার পোর্ট এলিজাবেথে ১৯৭৪ সালের ৩০ আগস্ট। ইস্টার্ন প্রভিন্সের বয়সভিত্তিক দলে খেলার সময়ই ডমিঙ্গো উপলব্ধি করেন যে, ক্রিকেট খেলে বেশিদূর যাওয়া তার পক্ষে সম্ভব নয়। তাই খেলা ছেড়ে নাম লেখান কোচিংয়ে। ২২ বছর বয়সেই পেয়ে যান প্রথম কোচিং ডিগ্রি।

তিনি কোচ হিসেবে স্বীকৃত পর্যায়ে দায়িত্ব পালন শুরু করেন ইস্টার্ন প্রভিন্সের বয়সভিত্তিক দলের হয়ে। পরে দায়িত্ব পান জাতীয় পর্যায়েও। তিনি দক্ষিণ আফ্রিকার ঘরোয়া ক্রিকেটে প্রথম বড় দায়িত্ব পান ২০০৫ সালে। মিকি আর্থার দক্ষিণ আফ্রিকা জাতীয় দলের কোচের দায়িত্ব নেয়ার পর ঘরোয়া ক্রিকেটের অন্যতম প্রতিষ্ঠিত দল ওয়ারিয়র্সের কোচ হন ডমিঙ্গো।

২০১১ সালে কারস্টেন দক্ষিণ আফ্রিকা জাতীয় দলের কোচের দায়িত্ব পাওয়ার পর সহকারী হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয় ডমিঙ্গোকে। ২০১২ সালে কারস্টেনের ওপর দায়িত্বভার কমাতে ডমিঙ্গোর কাঁধেই টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে জাতীয় দলের প্রধান কোচের দায়িত্ব দেয় দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ড। এরপর ২০১৩ সালে কারস্টেন দায়িত্ব ছেড়ে দিলে সব ফরম্যাটের ক্রিকেটেই জাতীয় দলের প্রধান কোচের দায়িত্ব পান রাসেল ডমিঙ্গো। তিনি প্রোটিয়াদের প্রধান কোচের দায়িত্ব পালন করেছিলেন ২০১৭ সাল পর্যন্ত। আর এবার বাংলাদেশকে দিয়ে আবার ফিরলেন কোনো জাতীয় দলের কোচিংয়ে।

কোচ হিসেবে দায়িত্ব পাওয়ার পর ইএসপিএন ক্রিকইনফোকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ডমিঙ্গো জানিয়েছেন, বাংলাদেশে প্রতিভাবান অনেক ক্রিকেটার আছে। তাদের উঠিয়ে আনতে হবে। আর পরিকল্পনা মতো এগোতে পারলে বাংলাদেশকে ক্রিকেট বিশে^র অন্যতম পরাশক্তিতে পরিণত করা সম্ভব বলেও বিশ^াস করেন তিনি। এ ছাড়া খেলোয়াড় তৈরিতে তিনি বয়সভিত্তিক পর্যায়েও কাজ করতে চান বলে জানিয়েছেন। অপরদিকে ডমিঙ্গোর কোচিং অভিজ্ঞতা, ক্রিকেটীয় দর্শন ও টাইগার ক্রিকেট নিয়ে বাস্তবমুখী পরিকল্পনা মুগ্ধ করার কারণেই তাকে সাকিব-তামিমদের কোচ হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। এখন মাঠের পারফরমেন্সে তার প্রতিফলন কতটা ঘটে সেটাই দেখার পালা।

:: এসএম সায়েম

গ্যালারি'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj