টেকসই নীতি সহায়তায় দরকার সরাসরি বিদেশী বিনিয়োগ

বৃহস্পতিবার, ১৫ আগস্ট ২০১৯

কাগজ প্রতিবেদক : অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি (এবিসিসিআই) দেশে আরো বেশি সরাসরি বিদেশী বিনিয়োগ (এফডিআই) আকৃষ্ট করতে টেকসই নীতি সহায়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেছে।

এবিসিসিআই সভাপতি ওবায়দুর রহমন সম্প্রতি সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, চীনে উচ্চ শ্রমমূল্যের কারণে ক্রমশ বিনিয়োগের আকর্ষণীয় গন্তব্য হয়ে উঠছে বাংলাদেশ। এ দেশে বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করতে সরকারকে মালয়েশিয়া, চীন ও ভিয়েতনামের মতো নীতি অন্তর্ভুক্ত করে নীতি প্রণয়ন করতে হবে।

বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিআইডিএ) হিসাব অনুযায়ী গত বছরের তুলনায় এ বছর এফডিআই ৬৮ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩ দশমিক ৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে, যা গত বছর ছিল ২ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলার।

তিনি জানান, সরকার দেশে বিনিয়োগ বান্ধব পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে বিভিন্ন নীতি প্রণয়ন করলেও এসব নীতি নিত্য পরিবর্তন বিনিয়োগকারীদের জন্য জটিলতা তৈরি করতে পারে। তিনি আরো বলেন, সরকার বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করতে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল (এসইজেড) এবং রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল (ইপিজেড) প্রতিষ্ঠা করছে।

বাংলাদেশ ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে ধীরে ধীরে বাণিজ্য বাড়ছে উল্লেখ করে ওবায়দুর রহমান বলেন, বাংলাদেশ অস্ট্রেলিয়ায় তৈরি পোশাক, গেঞ্জির কাপড়, নীটওয়্যার, টেক্সটাইল পণ্য, হোট টেক্সটাইল, চামড়াজাত পণ্য ও জুতা, প্রক্রিয়াজাত খাদ্য, মাছ ও পাটজাত পণ্য রপ্তানি করছে।

তিনি বলেন, অস্ট্রেলিয়া বেশিরভাগ পণ্য আমদানি করে চীন থেকে, তবে চীনে শ্রমমূল্য বেশি হওয়ায় বাংলাদেশ কমমূল্যে পণ্য দিয়ে সেই বাজার ধরতে পারে সহজেই।

এবিসিসিআই সভাপতি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আরো দক্ষ জনশক্তি তৈরির জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানান, যাতে তারা বিনিয়োগকারীদের যথাযথ সহযোগিতা করতে পারে।

অর্থ-শিল্প-বাণিজ্য'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj