চট্টগ্রামের পশুর হাট শেষ মুহূর্তে জমজমাট

রবিবার, ১১ আগস্ট ২০১৯

চট্টগ্রাম অফিস : চট্টগ্রামে শেষ মুহূর্তের বেচাকেনায় জমজমাট হয়ে উঠেছে কুরবানির পশুর হাট। নগরীর স্থায়ী ও অস্থায়ী ৮টি হাটের মধ্যে বড় বাজার হিসেবে বিবেচিত নগরীর সাগরিকা ও বিবির হাট পশুর বাজার ছিল বেচাকেনায় মুখর। এর আগে বেচা-বিক্রি খুব একটা না হলেও গতকাল শনিবার সকাল থেকেই ভিন্ন চিত্র পরিলক্ষিত হয়। স্থায়ী পশুর হাট সাগরিকা ও বিবিরহাট ছাড়াও কর্ণফুলী বাজার, স্টিল মিল বাজার, পতেঙ্গা সিটি করপোরেশন উচ্চবিদ্যালয় মাঠ, সল্টগোলা রেলক্রসিং মাঠ, কমল মহাজন হাট ও পোস্তারপাড় বিদ্যালয় মাঠেও অস্থায়ী পশুর বসানো হয়েছে। পর্যাপ্ত গরু থাকায় শেষ মুহূর্তে দাম পড়ে যেতে পারে এমন আশায় অনেক ক্রেতা শেষ দিনের অপেক্ষায় রয়েছেন। তারা ছুটেছেন এক হাট থেকে অন্য হাটে।

নাড়ির টানে গ্রামে ছুটছে নগরবাসী : এদিকে, প্রিয়জনদের সঙ্গে ঈদ করতে ঘরমুখো মানুষ সপরিবারে শহর ছেড়ে গেছেন। পাল্টে গেছে চিরচেনা নগরীর ব্যস্ততম সড়কের যানজটের দৃশ্য। জীবিকার টানে যেসব মানুষ শহরে পাড়ি জমান তারা নাড়ির টানে গ্রামে যান দুই ঈদ ঘিরে। গতকাল শনিবার নগরীর ট্রেন, লঞ্চ ও বাস স্টেশন ঘুরে দেখা গেছে ঘরমুখো যাত্রীদের স্রোত। কোথাও তিল ধারণের ঠাঁই ছিল না। পদে পদে নানা বিড়ম্বনায় পড়তে হয় ঘরমুখো এ যাত্রীদের। মহাসড়কে সীমাহীন যানজট এবং ট্রেনে টিকেট সংকটে দুর্ভোগে পড়েন তারা। যাত্রীদের ভিড় সামাল দিতে বেগ পেতে হয় দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের। ট্রেনের অগ্রিম টিকেট না পেয়ে ‘স্ট্যান্ডিং’ টিকিটে অধিকাংশ যাত্রীকে দাঁড়িয়ে ও ছাদের উপর উঠে ঝুঁকি নিয়ে গন্তব্যে যেতে দেখা গেছে।

ফাঁকা নগরীতে নিরাপত্তা জোরদার : অন্যদিকে, ঈদে ফাঁকা নগরীতে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ-সিএমপি পাঁচ স্তরের নিরাপত্তার প্রস্তুতি নিয়েছে। গ্রামে ছুটে যাওয়া মানুষের বাসাবাড়ির নিরাপত্তা দিতে বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছে নগর পুলিশ। মোবাইল টিম, টহল টিমসহ মোট পাঁচ হাজার পুলিশ নগর পাহারা দেবে। ঘরমুখো মানুষের যাতায়াতে ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা, চট্টগ্রামের বিভিন্ন পর্যটন এলাকায় দর্শণার্থীদের নিরাপত্তা, থানাভিত্তিক ঈদের নামাজের ভেন্যুর নিরাপত্তাসহ ঈদে মানুষের সার্বিক নিরাপত্তাসংক্রান্ত পরিকল্পনা তৈরি করা হয়েছে। এ ছাড়া জেলার বিভিন্ন উপজেলায় কঠোর নিরাপত্তায় থাকবে চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ। ঈদ জামাতসহ সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থায় জেলা পুলিশের ৩ হাজার সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। এবার চট্টগ্রাম জেলায় ৩ হাজার ৮৮টি ঈদের জামাত, ১৪টি পর্যটন কেন্দ্রের নিরাপত্তা এবং চামড়া পাচাররোধে চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ জোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছে।

এই জনপদ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj