সিংড়ার সাতপুকুরিয়া উচ্চ বিদ্যালয় : ভুয়া শিক্ষক নিবন্ধন সনদে চাকরি পাওয়ার অভিযোগ

রবিবার, ১১ আগস্ট ২০১৯

সিংড়া (নাটোর) প্রতিনিধি : নাটোরের সিংড়ার সাতপুকুরিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা মোসা. জোসনা খাতুনের বিরুদ্ধে ভুয়া শিক্ষক নিবন্ধন সনদ দিয়ে চাকরির অভিযোগ উঠেছে। সহকারী শিক্ষক (শরীর চর্চা) পদে মোটা টাকা উৎকোচ নিয়ে এ নিয়োগ দিয়েছে বলে প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটি ও স্থানীয় নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা।

জানা যায়, উপজেলার সাতপুকুরিয়া দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে ২০১০ সালে ১৬ সেপ্টেম্বর সহকারী শিক্ষক (শারীরিক শিক্ষা) পদে চাকরির আবেদন করেন জোসনা খাতুন। ২০ সেপ্টেম্বর একটি ভুয়া শিক্ষক নিবন্ধন সনদ জমা দিয়ে সহকারী শিক্ষিকা পদে চাকরিতে যোগদানও করেন তিনি। পরে একই বছরের ১০ নভেম্বর ওই শিক্ষিকা এমপিওভুক্ত হন। এরপর থেকেই তার বিরুদ্ধে ভুয়া নিবন্ধন সনদ দিয়ে চাকরির অভিযোগ ওঠে। টাকার বিনিময়ে ভুয়া নিবন্ধনধারী একজন অদক্ষ শিক্ষিকা নিয়োগ দেয়ায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এ বিষয়ে ম্যানেজিং কমিটি দাতা সদস্য ও সাবেক ইউপি সদস্য মো. ফরিদুল ইসলাম বলেন, মোটা অঙ্কের টাকা উৎকোচ নিয়ে আগের কমিটি এই শিক্ষিকাকে নিয়োগ দিয়েছে। পরে আমরা বিশেষ সূত্রে জানতে পারি তার নিবন্ধন সনদ ভুয়া। এরপর থেকে এভাবে চলে আসছে।

অভিযুক্ত শিক্ষিকা জোসনা খাতুন বলেন, নিবন্ধন সনদ সঠিক না হলে কি এত দিন ধরে চাকরি করছি!

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই প্রতিষ্ঠানের একাধিক শিক্ষক বলেন, জাল নিবন্ধন সনদ জমা দিয়ে শিক্ষিকা জোসনা খাতুনের চাকরি হয়েছে এটা সবাই জানেন।

প্রতিষ্ঠানটির প্রধান শিক্ষক মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, অভিযুক্ত শিক্ষিকার নিয়োগ তার সময়ে হয়নি, তাই তিনি এ বিষয়ে কিছুই জানেন না।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আমিনুর রহমান বলেন, তিনি ভুয়া সনদ দিয়ে চাকরির বিষয়ে অবগত নন। তবে অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই জনপদ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj