সড়ক বিভাজকে আরো ১০৮টি গাছ লাগাল আনন্দনিকেতন

রবিবার, ১১ আগস্ট ২০১৯

সিলেট ব্যুরো : সিলেটের ইংরেজি মাধ্যমের স্কুল আনন্দনিকেতনের উদ্যোগে তৃতীয় ধাপে নগরীর সড়ক বিভাজকে আরও ১০৮টি রাধাচূড়া গাছের চারা রোপণ করা হয়েছে। গত শুক্রবার সকালে নগরীর সাগরদিঘির পাড় মুখ হতে সুবিদবাজার পর্যন্ত রাস্তায় এ বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

এর আগে প্রথম ধাপে ২০১৭ সালে আনন্দনিকেতনের সামনের সড়ক বিভাজকে ৪৮টি এবং দ্বিতীয় ধাপে ২০১৮ সালে মিরের ময়দান থেকে রিকাবী বাজার মোড় পর্যন্ত সড়কের বিভাজকে ২৩৪টি গাছের চারা রোপণ করে আনন্দনিকেতন আর্থক্লাব। তিনটি ধাপেই বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি উদ্বোধন করেন সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি উদ্বোধনকালে আরও উপস্থিত ছিলেন আনন্দনিকেতনের একাডেমিক প্রধান শামীম চৌধুরী, প্রশাসনিক প্রধান ফাহমিনা নাহাশ, পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থার সভাপতি কাসমির রেজা, আনন্দনিকেতনের নির্বাহী সেক্রেটারি পারভিন সাকিবা, শিক্ষক রূপক কান্তি দত্ত, আনন্দনিকেতন আর্থক্লাবের সভাপতি মুনতাহা তাবাসসুম আজাদ, সহ সভাপতি নুজহা বড়ভূইয়া, সাধারণ সম্পাদক সাদাত সারোয়ার চৌধুরী প্রমুখ।

তিন বছর ধরে আনন্দনিকেতন আর্থক্লাবের সদস্যদের উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালিত হয়ে আসছে। স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের নিজেদের তৈরি টিফিন বিক্রি করে পাওয়া অর্থ দিয়ে গাছের চারাগুলো কেনা হয়। আনন্দনিকেতন এলামনাই এসোসিয়েশন এসব গাছ রক্ষণাবেক্ষণ করে থাকে। ইতিমধ্যেই ফুলে ফুলে শোভিত এসব সড়ক বিভাজক নগরীর সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখছে। নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়কে দৃষ্টি নন্দন এসব রাধাচূড়া গাছ ইতোমধ্যে পথচারীদের নজর কেড়েছে। সুষ্ঠুভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করায় প্রতিটি গাছ প্রায় একই উচ্চতায় বড় হচ্ছে এবং ফুল ফুটছে।

বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি উদ্বোধনকালে সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, আনন্দ নিকেতনের শিক্ষার্থীদের এই উদ্যোগ আমাকে অভিভূত করেছে। নগরীর সৌন্দর্য বর্ধনে ও পরিবেশ সংরক্ষণে এই কর্মসূচী অত্যন্ত ইতিবাচক ভূমিকা রাখছে। তারা এর আগেও সড়ক বিভাজকে অনেকগুলো গাছ লাগিয়েছে এবং নিয়মিত পরিচর্যা করে যাচ্ছে। এতে তারা প্রমাণ করল পড়াশুনার পাশাপাশি তারা তাদের সামাজিক দায়বদ্ধতার কথা মনে রেখেছে।

টিফিন বিক্রি করে অর্থ সংগ্রহ করে গাছ লাগানো একটি অসাধারণ ব্যাপার। ঈদের পরে একটা অনুষ্ঠান করে সিলেট সিটি কর্পোরেশন এই শিক্ষার্থীদের এওয়ার্ড প্রদান করবে। আমি আশা করব অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও এভাবে পরিবেশ সংরক্ষণে এগিয়ে আসবে।

সারাদেশ'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj