কাশ্মির সংকট : পাকিস্তানকে চীনের সমর্থন, ভারতকে রাশিয়ার

রবিবার, ১১ আগস্ট ২০১৯

কাগজ ডেস্ক : জম্মু থেকে তুলে নেয়া হয়েছে ১৪৪ ধারা। টানা কয়েকদিন ধরে চলা কারফিউ প্রত্যাহারের নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসন। পাশাপাশি আজ থেকে খুলে যাচ্ছে বন্ধ থাকা স্কুল-কলেজও। গতকাল শনিবার শীর্ষস্থানীয় সরকারি সূত্রের বরাতে এনডিটিভি জানায়, সর্দার বল্লভভাই প্যাটেলের জন্মবার্ষিকীতে জম্মু ও কাশ্মির রাজ্য ভেঙে জম্মু ও কাশ্মির এবং লাদাখ নামে আলাদা দুটি কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলে পরিণত হতে যাচ্ছে। আগামী ৩১ অক্টোবর ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতা বল্লভভাই প্যাটেলের ১৪৪তম জন্মবার্ষিকী। ওই দিনই কেন্দ্র শাসিত অঞ্চল হিসেবে জম্মু ও কাশ্মির এবং লাদাখের আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হবে। এদিকে কাশ্মির ইস্যুতে পাকিস্তানের পাশে থাকার প্রতিশ্রæতি দিয়েছে চীন। তারা বলেছে, আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পাকিস্তানকে ন্যায়বিচার পাইয়ে দিতে তাদের পাশে থাকবে বেইজিং। অন্যদিকে নিজেদের পক্ষে রাশিয়ার সমর্থন আদায় করেছে ভারত। রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, মস্কো চায় ভারত-পাকিস্তনের মধ্যকার সমস্যা মিটে যাক। দ্বিপক্ষীয় এবং ক‚টনৈতিক আলোচনার মাধ্যমেই এ সমস্যার সমাধান সম্ভব।

জম্মুর পৌর এলাকার ১৪৪ ধারা প্রত্যাহারের জন্য গত শুক্রবার নির্দেশিকা জারি করে জেলা প্রশাসক। এ বিষয়ে ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল নির্দেশ দিয়ে জানান, জম্মুতে অবরোধ শিথিলের পর আইনশৃঙ্খলা বজায় রাখার সঙ্গে সঙ্গে কোনো কাশ্মিরিকে যেন হেনস্থা না করা হয় সে দিকেও নজরদারি রাখবে নিরাপত্তারক্ষীরা। গত সপ্তাহে সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের কয়েকদিন আগে থেকেই উপত্যকাকে সেনাবাহিনীর নিরাপত্তা চাদরে ঢেকে ফেলা হয়। একই সঙ্গে বিভিন্ন স্থানে কারফিউ জারি করা হয়। ইন্টারনেট-মোবাইল পরিষেবা বন্ধ করা হয়। গত কয়েকদিন ধরেই বন্ধ রয়েছে দোকানপাট-স্কুল-কলেজ-অফিস। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আশ^াস দিয়েছেন, কাশ্মিরিদের ঈদ পালনে সহায়তা করবে প্রশাসন। এদিকে রাজ্যপাল সত্যপাল মালিক ও অজিত দোভালের বৈঠকের পর ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে রাজ্যপাল বলেন, উপত্যকায় ঈদ পালন হবে। খাদ্যদ্রব্য, ওষুধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী সংগ্রহে যাতে সমস্যা না হয়, সে জন্য বিভিন্ন এলাকার তিনশ বাসিন্দার সঙ্গে কথা বলতে ডেপুটি কমিশনারকে নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। সরকার দেখছে যাতে ঈদ পালনে কোনো অসুবিধা না হয়। যারা কাশ্মিরের বাইরে থাকেন এবং যারা ঈদে ঘরে ফিরতে চান তাদের ঘরে ফেরানোর দায়িত্ব সরকারের। তার এ ঘোষণার পরপরই জম্মুর বড় অংশ থেকে ১৪৪ ধারা তুলে নেয়া হয়। প্রবাসী কাশ্মিরিদের সঙ্গে স্বজনদের কথা বলার জন্য শ্রীনগরের ডেপুটি কমিশনার দপ্তরে দুটি হেল্পলাইন খোলা হয়। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে থাকা স্বজনদের সঙ্গে কথা বলতে গতকালই কয়েকশ লোকের লাইন পড়ে সেখানে।

এদিকে উপত্যকার একাংশের দাবি, কাশ্মিরিদের মন নয়, জমি লুট করতেই ৩৭০ বাতিল করেছে কেন্দ্র। শ্রীনগরের একটি মসজিদের সামনে হাতে লেখা পোস্টার ঝুলতে দেখা যায়- যাতে বলা হয়, ভারতীয়দের কাছে জমি বেচবেন না, সোমবার ঈদের নামাজের পরে মিছিলে যোগ দিন। ৩২ বয়সী কাশ্মিরি যুবক তারিক আহমেদ বলেন, মানুষ নজর রাখছে। কতদিন কারফিউ চাপিয়ে রাখবে ওরা? বিক্ষোভ হবেই। আর লাঠি-গুলি চললে পরিস্থিতি কোন দিকে যাবে, কেউ বলতে পারে না।

প্রথম পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj