ডেঙ্গুবিরোধী ক্রাশ প্রোগ্রাম শুরু : চসিকের পরিচ্ছন্ন বিভাগের ঈদ ছুটি বাতিল

শুক্রবার, ৯ আগস্ট ২০১৯

চট্টগ্রাম অফিস : ডেঙ্গু মোকাবেলায় মশা নিধন এবং এডিস মশার উৎপত্তিস্থল ধ্বংসে চট্টগ্রাম মহানগরীতে সমন্বিত কর্মসূচি শুরু হয়েছে। সিটি করপোরেশন, জেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগসহ স্থানীয় সংশ্লিষ্ট সব সরকারি দপ্তর একযোগে এই কর্মসূচি শুরু করেছে। কর্মকর্তারা দাবি করছেন, নগরের ৪১ ওয়ার্ডজুড়ে সব নালা-নর্দমা, পানি জমে থাকা স্যাঁতসেঁতে জায়গা, নির্মাণাধীন ভবন, ঈদুল আজহার ছুটিতে যাওয়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সব জায়গায় মশা নিধনে একযোগে ক্রাশ প্রোগ্রাম শুরু হয়েছে। চসিকের পরিচ্ছন্ন বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ঈদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে নগরীর নন্দনকাননে অপর্ণাচরণ সিটি করপোরেশন উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে ফগার মেশিনে ওষুধ ছিটিয়ে এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন। এ সময় বিভাগীয় কমিশনার আবদুল মান্নান, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াছসহ অন্য সরকারি কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। চট্টগ্রাম আদালত পাহাড়ে বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এবং ১৪টি উপজেলাতেও একই কর্মসূচি পালিত হয়।

চট্টগ্রাম নগর থেকে ডেঙ্গু রোগ বাহক এডিস মশার অস্তিত্ব নিশ্চিহ্ন করার ঘোষণা দিয়ে মেয়র বলেন, সারা বছর এডিস মশার বিরুদ্ধে ‘যুদ্ধ’ চলবে। ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও মহিলা ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের তদারকিতে চসিকের ৩৬৪৭ জন পরিচ্ছন্ন কর্মী ওয়ার্ডজুড়ে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম পালনের সঙ্গে সঙ্গে মশা নিধনে সহায়ক শক্তি হিসেবে ভূমিকা রাখবেন। তিনি বলেন, ঢাকায় ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়ার পরপরই বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ভারত থেকে সংগ্রহ করা ওষুধ ছিটানোর পাশাপাশি জনগণকে সচেতন করার নানা উদ্যোগ নিয়েছি। দেশে প্রথম বিনামূল্যে ডেঙ্গু পরীক্ষা চালু করেছি। আতঙ্কিত না হওয়ার আহ্বান জানিয়ে মেয়র বলেন, জ্বর হলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে। আমরা আন্তরিকভাবে চেষ্টা করছি নগরকে নিরাপদ রাখতে। ঈদের সময় নগরবাসীকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে মেয়র বলেন, ‘দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে লোকজন চট্টগ্রামে ঈদ করতে আসবেন। অনেকে হয়তো শরীরে ডেঙ্গুর জীবাণু বহন করছেন। এ সময় আমাদের খুব সতর্ক থাকতে হবে।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. হাসান শাহরিয়ার কবীর বলেন, ডেঙ্গু একটি বাস্তবতা। শঙ্কা নয়, তাই চাই সচেতনতা। সমস্যার মূলে আঘাত করতে হবে। আপনার টেবিলের নিচে, বাড়িতে, ছাদে ডেঙ্গুর জন্য দায়ী এডিস মশা আছে। এডিসের প্রজননস্থল নির্মূল করতে হবে। ১ হাজার মানুষের জ্বর হলে ২ জনের ডেঙ্গু হতে পারে। ভরা পেটে প্যারাসিটামল খাবেন। বেশি করে পানি, ফলের জুস খাবেন। তরল খাবার খাবেন। বিশ্রাম নেবেন। ব্যথার ওষুধ খাবেন না। এ সময় বক্তব্য রাখেন ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মো. তৈয়ব, চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামশুদ্দোহা, ওয়ার্ড কাউন্সিলর তারেক সোলেমান সেলিম, শৈবাল দাশ সুমন, চসিকের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিম আকতার প্রমুখ।

এদিকে ডেঙ্গু রোগ বিস্তার ঠেকাতে চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের উদ্যোগে মশক নিধনে ক্রাশ প্রোগ্রামের আওতায় চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ সালামের নেতৃত্বে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে শোভাযাত্রা ও পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালিত হয়। শোভাযাত্রা শেষে অফিস ভবন ও আশপাশের ঝোপ-ঝাড়ে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে কার্যকর মশার ওষুধ ছিটানো হয়। এই কর্মসূচিতে চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অংশ নেন।

শেষ পাতা'র আরও সংবাদ
Bhorerkagoj